পাতা:কাব্যগ্রন্থ (পঞ্চম খণ্ড).pdf/১৯৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নাট্য-কবিতা দীপ্ত বজশূল, সেই মত কাল যবে জাগে, তারে সভয়ে অকাল কহে সবে । লুটাও লুটাও শির, প্রণম, রমণী, সেই মহাকালে ; তা’র রথচক্রধবনি দূর রুদ্রলোক হ’তে বজ-ঘর্ঘরিত ওই শুনা যায় । তোর আর্ত জর্জরিত হৃদয় পাতিয়া রাখ তা’র পদতলে । ছিন্ন সিক্ত হৃৎপিণ্ডের রক্ত শতদলে অঞ্জলি রচিয়া থাক জাগিয়া নীরবে চাহিয়া নিমেষহীন —তা’র পরে যবে গগনে উড়িবে ধুলি, কঁাপিবে ধরণী, সহসা উঠিবে শূন্তে ক্ৰন্দনের ধ্বনি— হায় হায় হা রমণী, হায় রে অনাথা, হায় হায় বীরবধু, হায় বীরমাতা, হায় হায় হাহাকার—তখন স্থধীরে ধূলায় পড়িস্ লুটি অবনত শিরে মুদিয়া নয়ন ।—তা’র পরে নমো নমঃ সুনিশ্চিত পরিণাম, নির্ববাক নিৰ্ম্মম দারুণ করুণ শাস্তি ; নমো নমো নমঃ কল্যাণ কঠোর কান্ত, ক্ষমা স্নিগ্ধতম । নমো নমো বিদ্বেষের ভীষণা নির্ববৃতি, শ্মশানের ভস্মমাখা পরমা নিস্কৃতি । > ԵՀ