পাতা:কাব্যগ্রন্থ (পঞ্চম খণ্ড).pdf/৪৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


হ’ল, যেন কার মুগ্ধ নয়নের দৃষ্টি দশ অঙ্গুলির মত পরশ করিছে রভস-লালসে মোর নিদ্রালস তনু । চমকি উঠিলু জাগি । দেখিলু, সন্ন্যাসী পদপ্রান্তে নিৰ্ণিমেষ দাড়ায়ে রয়েছে স্থির প্রতিমূৰ্ত্তি সম । পূর্বাচল হ’তে ধীরে ধীরে সরে’ এসে পশ্চিমে হেলিয়ে দ্বাদশীর শশী সমস্ত হিমাংশুরাশি দিয়াছে ঢালিয়া, স্থলিতবসন মোর অমাননুতন শুভ্ৰ সৌন্দর্য্যের পরে। পুষ্পগন্ধে পূর্ণ তরুতল ; ঝিল্লিরবে তন্দ্রামগ্ন-নিশীথিনী ; স্বচ্ছ সরোবরে অকম্পিত চন্দ্রকরচচ্ছায়া ; স্থপ্ত বায়ু ; শিরে ল’য়ে জ্যোৎ মালোকে মস্তণ চিক্কণ রাশি রাশি অন্ধকার পল্লবের ভার স্তম্ভিত অটবী । সেই মত চিত্রাপিত দাড়াইয়া দীর্ঘকায় বনস্পতিসম, দণ্ডধারী ব্রহ্মচারী ছায়াসহচর । প্রথম সে নিদ্রাভঙ্গে চারিদিক চেয়ে মনে হ’ল, কবে কোন বিস্মৃত প্রদোষে জীবন ত্যজিয়া, স্বপ্নজন্ম করিয়াছি ૨ગ