পাতা:কালান্তর - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কালান্তর না। ভিক্ষার দানে আমরা স্বাধীন হইব না— কিছুতেই না। স্বাধীনতা অস্তরের সামগ্ৰী । যুরোপ কেন আমাদিগকে মুক্তি দিতে পারে না ? যেহেতু তাহার নিজের মন মুক্তি পায় নাই। তার লোভের অন্ত কোথায় ? যে হাত দিয়া সে কোনো সত্যবস্তু দিতে পারে লোভে তার সে হাতকে বাধিয়া রাখিয়াছে – সত্য করিয়া তার দিবার সাধ্যই নাই, সে যে রিপুর দাস । যে মুক্ত সেই মুক্তি দান করে । যদি সে বিষয়বুদ্ধির পরামর্শ পাইয়া আমাদিগকে কিছু দিতে আসে তবে সে নিজের দানকে নিজে কেবলই খণ্ডিত করিবে । এক হাত দিয়া যত দিবে আর-এক হাত দিয়া তার চেয়ে বেশি হরণ করিবে । স্বার্থের দানকে পরীক্ষা করিয়া লইবার বেলা দেখিব তাহাতে এত ছিদ্র যে, সে আমাদিগকে ভাসাইয়া রাখিবে কি, তাহাকে ভাসাইয়া রাখাই শক্ত । তাই এই কথা বলি, বাহিরের দিক হইতে স্বাধীনতা পাওয়া যায়, এমন ভুল যদি মনে অঁাকড়িয়া ধরি তবে বড়ো দুঃখের মধ্যেই সে ভুল ভাঙিবে। ত্যাগের জন্ত প্রস্তুত হইতে পারি নাই বলিয়াই অস্তরে বাহিরে আমাদের বন্ধন । যে হাত দিতে পারে সেই হাতই নিতে পারে। আপনার দেশকে আমরা অতি সামান্তই দিতেছি, সেইজন্তই আপনার দেশকে পাই নাই । বাহিরের একজন আমার দেশকে হাতে তুলিয়া দিলেই তবে তাহাকে পাইব, এ কথা যে বলে সে লোক দান পাইলেও দান রাখিতে পারিবে না। আপন লোককে দুঃখ দিই, অপমান করি, অবজ্ঞা করি, বঞ্চনা করি, বিশ্বাস করি না— সেইজন্তই আপন পর হইয়াছে, বাহিরের কোনো আকস্মিক কারণ হইতে নয় । য়িহুদি যখন পরাধীন ছিল তখন রোমের হাত হইতে দক্ষিণস্বরূপ তাহারা স্বাধীনতা পায় নাই। পরে এমন ঘটিয়াছে যে, য়িহুদি দেশছাড়া У 3. o