পাতা:কালান্তর - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১২৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্বাধিকারপ্ৰমত্ত: इहेश बिएनएन इज़ाहेब नज्रिन। ठाशत्र ब्राहे७ नाहे, ब्राहेठज७ नॉरें। কিন্তু তাহার ইতিহাসে এইটেই সকলের চেয়ে গুরুতর কৰা নয়। ইহার চেয়ে অনেক বডে! কথা এই যে, তাহার কাছ হইতে প্রাণের বীজ উড়িয়া আসিয়া যুরোপকে নূতন মনুষত্ব দান করিয়াছে। সে যাহা দিয়াছে তাহাতেই তাছার সার্থকতা । যাহা হারাইয়াছে, যাহা পায় নাই, সেটা সত্ত্বেও সে বড়ো, ইতিহাসে তাহার প্রমাণ হইয়াছে । বাহিরের পরিমাণে মানুষের পরিমাণ নহে, এ কথা আমরা বার বার ভূলি কিন্তু তবু ইহা বার বার মনে করিতে হইবে । চীনদেশকে যুরোপ অস্ত্রবলে পরাস্ত করিয়া তাহাকে বিব খাওয়াইয়াছে, সেটা বড়ো কৰা নয় । কিন্তু বড়ো কথা এই যে, ভারত এক দিন বিনা অস্ত্রবলে চীনকে অমৃত পান করাইয়াছিল। ভারত আজ যদি সমুদ্রের তলায় ডুবিয়া যায় তবু যাহা সে দান করিয়াছে তাহার জোরেই সে মামুষের চিত্তলোকে রছিল। যাহা সে ভিক্ষা করিয়াছিল, চুরি করিয়াছিল, স্ত,পাকার করিয়াছিল, তাহার জোরে নয়। তপস্তার বলে আমরা সেই দানের অধিকার পাইব, ভিক্ষার অধিকার নয়, এ কথা যেন কোনে প্রলোভনে না ভুলি । মা মুষ যেহেতু মানুষ এই হেতু বস্তুর দ্বারা সে বঁাচে না । সত্যের দ্বারাই সে বঁাচে । এই সত্যই তাছার যে ; তমেব বিদিত্বাতিমৃত্যুমেতি, নান্তঃ পন্থা বিস্ততে অয়নায় : তাহাকে জালিয়াই মামুৰ মৃত্যুকে অতিক্রম করে, তাহার উদ্ধারের অন্ত কোনো উপায় নাই । এই সত্যকে দান করিবার জন্ত আমাদের উপর আহবান আছে। মণ্টেণ্ডার ডাক খুব বড়ো ডাক, আজ এই কথা বলিয়া ভারতের সভা কষ্টতে সভায়, সংবাদপত্র হইতে সংবাদপত্রে ঘোষণা চলিতেছে । কিন্তু এই ভিক্ষার ভাৰুে আমরা মানুষ হইব না। আমাদের পিতামহের অমরলোক হইতে আমাদের আহবান করিতেছেন, বলিতেছেন, ‘তোমরা যে অমৃতের পুত্র 》及>