পাতা:কালান্তর - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৩২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কালান্তর গিয়েছিলুম। অর্থাৎ এখনকার প্রধান সম্বন্ধ হল সংসারের সঙ্গে। অথচ তখনকার সঙ্গে এখনকার দিনের যে এত বড়ো একটা বিচ্ছেদ ঘটেছে, কাজ করতে করতে তা ভূলে গিয়েছিলুম। এই ভোলবার ক্ষমতাই হচ্ছে মনের বিশেষ ক্ষমতা । সে দু নৌকোয় পা দেয় না ; সে যখন একটা নৌকোয় থাকে তখন অন্ত নৌকোটাকে পিছনে বেঁধে রাখে ; এমন সময় আমায় শরীর অসুস্থ হল । সংসারের কাছ থেকে কিছু দিনের মতো ছুটি মিলল। দোতলা ঘরের পুব দিকের প্রান্তে খোলা জানলার ধারে একট লম্বা কেদারায় ঠেস দিয়ে বসা গেল । স্থটো দিন না যেতেই দেখা গেল, অনেক দূরে এসে পড়েছি, রেলভাড়া দিয়েও এত দূরে আসা যায় না । যখন আমেরিকায় যাই, জাপানে যাই, ভ্রমণের কথায় ভ'রে ভ’রে তোমাদের চিঠি লিখে পাঠাই। পথ-খরচাটার সমান ওজনের গৌরব তাদের দিতে হয় । কিন্তু এই-যে আমার নিখরচার যাত্রা কাজের পার থেকে আকাজের পারে, তার ও ভ্রমণবৃত্তাস্ত লেখা চলে – মাঝে মাঝে লিখব। মুশকিল এই যে, কাজের মধ্যে মধ্যে অবকাশ মেলে, কিন্তু পুরো অবকাশের মধ্যে অবকাশ বড়ো দুর্লভ। আরো একটা কথা এই যে, আমার এই নিখরচার ভ্রমণবৃত্তাস্ত বিনা-কড়ি দামের উপযুক্ত নেহাত হাস্ক হওয়া উচিত— লেখনীর পক্ষে সেই হাল্কা চাল ইচ্ছা করলেই হয় না, কারণ লেখনী স্বভাবতই গজেন্দ্রগামিনী । জগৎটাকে কেজো অভ্যাসের বেড়ার পারে ঠেলে রেখে অবশেষে ক্রমে আমার ধারণা হয়েছিল, আমি খুব কাজের লোক । এই ধারণাটা জন্মালেই মনে হয়, আমি অত্যন্ত দরকারি, আমাকে না হলে চলে না । মানুষকে বিন মাইনেয় খাটিয়ে নেবার জন্তে প্রকৃতির হাতে যে-সমস্ত উপায় আছে এই অহংকারটা সকলের সেরা । টাকা নিয়ে যারা কাজ করে তারা সেই টাকার পরিমাণেই কাজ করে, সেটা একটা বাধা >良8