পাতা:কালান্তর - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কালান্তর পরিণত হয়েছিল সে সকলেরই জানা । আজও আমেরিকার যুক্তরাষ্ট্রে নিগ্রোঞ্জাতি সামাজিক অসন্মানে লাঞ্ছিত, এবং সেই-জাতীয় কোনো হতভাগ্যকে যখন জীবিত অবস্থায় দাহ করা হয় তখন শ্বেতচর্মী নরনারীরা সেই পাশব দৃশু উপভোগ করবার জন্তে ভিড় ক’রে আসে। তার পরে মহাযুদ্ধ এসে অকস্মাৎ পাশ্চাত্য ইতিহাসের একটা পর্দ তুলে দিলে । যেন কোন মাতালের আব্রু গেল ঘুচে । এত মিথ্যা, এত বীভৎস হিংস্রতা নিবিড় হয়ে বহুপূর্বকার অন্ধ যুগে ক্ষণকালের ন্তে হয়তো মাঝে মাঝে উংপাত করেছে, কিন্তু এমন ভীষণ উদগ্র মূর্তিতে আপনাকে প্রকাশ করে নি। তারা আসত কালো জাধির মতো ধুলায় আপনাকে আবৃত করে ; কিন্তু এ এসেছে যেন অগ্নিগিরির আগ্নেয়ন্ত্ৰ'ব, অবরুদ্ধ পাপের বাধাযুক্ত উৎস-উচ্ছ্বাসে দিগৃদিগন্তকে রাঙিয়ে তুলে’, দগ্ধ ক’রে দিয়ে দূরদূরাস্তের পৃথিবীর হামলতাকে । তার পর থেকে দেখছি যুরোপের শুভবুদ্ধি আপনার পরে বিশ্বাস হারিয়েছে, আজ সে স্পর্ধা ক’রে কল্যাণের আদর্শকে উপহাস করতে উদ্যত । আজি তার লজ্জা গেছে ভেঙে /একদা ইংরেজের সংস্রবে আমরা যে যুরোপকে জানতুম, কুৎসিতের সঙ্গন্ধ তার একটা সংকোচ ছিল ; আজ সে লজ্জা দিচ্ছে সেই সংকোচকেই। আজকাল দেখছি, আপনাকে ভদ্র প্রমাণ করবার জন্তে সভ্যতার দায়িত্ববোধ যাচ্ছে চলে। অমানবিক নিষ্ঠুরতা দেখা দিচ্ছে প্রকাণ্ডে বুক ফুলিয়ে । সভ্য যুরোপের সর্বার-পোড়ো জাপানকে দেখলুম কোরিয়ায়, দেখলুম চীনে ; তার নিষ্ঠুর বলদৃপ্ত অধিকারলঙ্ঘনকে নিন্দা করলে সে অট্টহাস্তে নজির বের করে যুরোপের ইতিহাস থেকে। আঞ্জলওে রক্তপিঙ্গলের যে উন্মত্ত বর্বরতা দেখা গেল, অনতিপূর্বেও আমরা তা কোনো দিন কল্পনাও করতে পারভূম না। তার পরে চোখের সামনে দেখলুম জালিয়ানওয়ালাবাগের বিভীষিকা। যে যুরোপ এক দিন তৎকালীন তুর্কিকে অমাছৰ ব’লে S 8