পাতা:কালান্তর - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


कांब्लॉखुग्न কথাই বার বার মনে আসে, কোথায় রইল মামুষের সেই দরবার যেখানে মামুষের শেষ আপিল পৌছবে আজ । মনুষ্যত্বের পরে বিশ্বাস কি ভাঙতে হবে ? বর্বরতা দিয়েই কি চিরকাল ঠেকাতে হবে বর্বরতা ? কিন্তু সেই নৈরাশ্বের মধ্যেই এই কথাও মনে আসে যে, ছৰ্গতি যতই উদ্ধতভাবে ভয়ংকর হয়ে উঠুক, তবু তাকে মাথা তুলে বিচার করতে পারি, ঘোষণা করতে পারি ‘তুমি অপ্রদ্ধেয়', অভিসম্পাত দিয়ে বলতে পারি ‘বিনিপাত, বলবার জন্তে পণ করতে পারে প্রাণ এমন লোকও দুদিনের মধ্যে দেখা দেয়— এই তো সকল ছুঃখের, সকল ভয়ের উপরের কথা । আজ পেয়াদার পীড়নে হাড় গুড়িয়ে যেতে পারে, তবুও তো আগেকার মতো হাতজোড় করে বলতে পারি নে, দিল্লীশ্বরো বা জগদীশ্বরে বা । বলতে পারি নে, তেজীয়ান যে তার কিছুই দোষের নয়। বরঞ্চ মুক্তকণ্ঠে বলতে পারি, তারই দায়িত্ব বড়ো, তারই আদর্শে তারই অপরাধ সকলের চেয়ে নিন্দনীয়। যে দুঃখী, ষে অবমানিত, লে যেদিন স্তায়ের দোহাইকে অত্যাচারের সিংহগর্জনের উপরে তুলে আত্মবিস্তুত প্রবলকে ধিক্কার দেবার ভরসা ও অধিকার সম্পূর্ণ হারাৰে, সেই দিনই বুঝব, এই যুগ আপন শ্রেষ্ঠ সম্পদে শেব কড়া পর্যন্ত দেউলে হল । তার পরে অসুিক কল্পাস্ত । শ্রাবণ ১৩৪০ 》也