পাতা:কালান্তর - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৩০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কালান্তর থেকে রাষ্ট্রব্যবস্থার উদ্ভাবন হয়েছে। গোড়াকার কথাটা এই বে, তাদের মধ্যে শাসিত ও শাসয়িত এই দুই দলের মধ্যে ভেদ ঘটেছিল । লে ভেদ জাতিগত ভেদ নয়, শ্রেণীগত ভেদ । সেখানে এক দিকে রাজা ও রাজপুরুষ, অন্ত দিকে প্রজা, যদিচ একই জাতের মানুষ তবু তাদের মধ্যে অধিকারের ভেদ অত্যস্ত বেশি হয়ে উঠেছিল। এইজন্তে তাদের বিপ্লবের একটিমাত্র কাজ ছিল, এই শ্রেণীগত ভেদটাকে রাষ্ট্রনৈতিক শেলাইয়ের কলে বেশ পাকারকম শেলাই করে ঘুচিয়ে দেওয়া । আজ আবার সেখানে দেখছি, আর-একটা বিপ্লবের হাওয়া বইছে । খোজ করতে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে বাণিজ্যক্ষেত্রে যারা টাকা খাটাচ্ছে আর যারা মজুরি খাটছে, তাদের মধ্যে অধিকারের ভেদ অত্যস্ত বেশি । এই ভেদে পীড়া ঘটায়, সেই পীড়ায় বিপ্লব । ধনীর ভীত হয়ে উঠে কর্মীরা যাতে ভালো বাসস্থান পায়, যাতে তাদের ছেলেপুলের লেখাপড় শিখতে পারে, যাতে তার সকল বিষয়ে কতকট পরিমাণে অগ্রামে থাকে, দয়া ক’রে মাঝে মাঝে সে চেষ্টা করে ; কিন্তু তবু ভেদ যে রয়ে গেল ; ধনীর অনুগ্রহের ছিটেফোটায় সেই ভেদ তো ঘোচে না, তাই আপদও মিটতে চায় না । বহুকাল হল, ইংলণ্ড থেকে এক দল ইংরেজ আমেরিকায় গিয়ে বসতি করে। ইংলণ্ডের ইংরেজ সমুদ্রপার থেকে আমেরিকার ইংরেজের উপর শাসন বিস্তার করেছিল ; এই শাসনের দ্বারা সমুদ্রের দুই পারের ভেদ মেটে নি । এ ক্ষেত্রে নাড়ির টানের চেয়ে দড়ির টানটাই প্রবল হওয়াতে বন্ধন জোর করে ছিড়ে ফেলতে হয়েছিল । অৰs এখানে ছুই পক্ষই সহোদর ভাই । এক দিন ইটালিতে অষ্ট্রিধান ছিল রাষ্ট্রের মুড়োয়, আর ইটালিয়ান ছিল লেজায়। অথচ লেজায় মুড়োয় প্রাণের যোগ ছিল না । এই প্রাণহীন বন্ধন ভেদকেই দুঃসহক্সপে প্রকাশ করেছিল। ইটালি তার 及战象