পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/১০৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


      পদ্মাসনস্থাং ধ্যায়েচ্চ শ্রিয়ং ত্রৈলোক্যমাতরং।
 পৃথিবীতে বহুলোক দান পুণ্য করে।
 পুত্রহীন হৈলে স্বর্গে যাইতে না পারে।।
 স্বর্গেতে যতেক বৈসে দেব সিদ্ধ ঋষি।
 মর্ত্তে পুত্র জন্মাইয়া সবে স্বর্গবাসী।।
 শুনিয়া বলেন রাজা বিনয় বচন।
 কি করি আমারে আজ্ঞা কর তপোধন।।
 মুনিগণ বলে রাজা থাক এই স্থানে।
 হইবেক পুত্র তব দেব বরদানে।।
 দিব্যচক্ষে মোরা সব করি দরশন।
 মহাবীর্য্যবন্ত হবে তব পুত্রগণ।।
 ঋষিগণ বচনে নিবর্ত্তে নরপতি।
 শতশৃঙ্গ পর্ব্বতে করিলেন স্থিতি।।
 মহাভারতের কথা অমৃত সমান।
 কাশীরাম দাস কহে শুনে পুণ্যবান।।
 
      -------
 পুত্রোৎপাদনে কুন্তীর প্রতি পাণ্ডুর অনুমতি।
   কুন্তীরে বলেন তবে পাণ্ডু নরবর।
 আপনি শুনিলে মুনিগণের উত্তর।।
 মৃগঋষি শাপে শক্তি নাহি যে আমার।
 উপায় করিয়া পিতৃগণে কর পার।।
 আর হেন আছে পূর্ব্বে শাস্ত্রের বিধান।
 বিবরিয়া কহি তাহা কর অবধান।।
 স্বয়মুৎপাদিত কেহ সহজে নন্দন।
 নতুবা কাহারে পুত্র দেয় কোন জন।।
 মূল্য লৈয়া পোষ্য করে পুত্রবৎ করি।
 আপনি প্রবেশে কেহ অন্ন হেতু মরি।।
 পুত্রহীনে কোন জন কন্যা করে দান।
 তার পুত্র হৈলে সেই হয় পুত্রবান।।
 নতুবা স্বামীর আজ্ঞা লৈয়া কোন জনে।
 আপন সদৃশ কিম্বা উচ্চজন স্থানে।।
 তাহাতে জন্মিলে হয় আপন নন্দন।
 পূর্বাপর আছে হেন ব্রম্ভার বচন।।
 সেই অনুসারে আমি বংশের কারণ।
 আজ্ঞা করি কর তুমি বংশের রক্ষণ।।
 কুন্তী বলে রাজা তুমি পরম পণ্ডিত।
 কি কারণে কহ তুমি এমন কুৎসিত।।
 আমি ধর্ম্মপত্নী তুমি ধর্ম্মজ্ঞ আপনে।
 তোমা বিনা অন্য জনে না দেখি নয়নে।।
 পূর্ব্বে শুনিয়াছি রাজা কহে মুনিগণ।
 বুষ্যিতাশ্ব রাজা ছিল কৌরব নন্দন।।
 মহারাজ বুষ্যিতাশ্ব ধর্ম্মেতে তৎপর।
 যজ্ঞ করি তুষিলেক যতেক অমর।।
 তাঁর দক্ষিণায় সুখী হৈল দ্বিজগণ।
 বাহুবলে জিনিল সকল রাজগণ।।
 ভদ্রা যে তাঁহার ভার্য্যা পরমা সুন্দরী।
 রাজারে সেবয়ে সদা পুত্রকাম্য করি।।
 কামনায় তাঁহার কামুক নরবর।
 তাঁহার সঙ্গমে ব্যাধিযুক্ত কলেবর।।
 যক্ষাকাশ রোগে রাজা হইল নিধন।
 ভদ্রা হৈল শোকের সাগরে নিগমন।।
 স্বামী বিনা ভার্য্যা জীয়ে ধিক্ তার প্রাণ।
 স্বামী বিনা ঘর দ্বার শ্মশান সমান।।
 স্বামীর বিহনে নারী জীয়ে যেই জনা।
 নিত্য নিত্য ভুঞ্জে সেই বিবিধ যন্ত্রণা।।  
 স্বামী পুত্রহীন নারী লোকে অনাদরে।
 গণনা না করে কেহ মনুষ্য ভিতরে।।
 হেনমতে ভদ্রা বহু করিছে রোদন।
 ডাকিয়া তাহারে শব বলে ততক্ষণ।।
 না কন্দহ ভদ্রা তুমি উঠি যাও ঘরে।
 আমি জন্মাইব পুত্র তোমার উদরে।।
 শবের বচনে ভদ্রাগেল নিজ স্থান।
 শবেরে রাখিল করি যতন বিধান।।
 ঋতুযোগে ভদ্রা তবে শবের সঙ্গমে।
 সপ্ত পুত্র উদরে ধরিল ক্রমে ক্রমে।।
 শব স্বামী হোইতে ভদ্রা পুত্র জন্মাইল।
 হেনমতে হয় পূর্ব্বে মুণিরা কহিল।।
 তুমিও এখন রাজা যোগ কর মনে।
 আমার উদরে জন্ম করাও নন্দনে।।
 পাণ্ডু বলিলান সে মনুষ্যে না সম্ভব।
 দৈববলে শব হৈতে পুত্রের উদ্ভব।।
 সেইরূপ শক্তি কুন্তী নাহিক আমার।
 পূর্ব্বের আচার কিছু কহি শুন আর।।