পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/১৬৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


     বৃহষ্পতিরুবাচ।--বরদা যদি মে দেবি দিব্যজ্ঞানং প্রযচ্ছ মে।
 বলভদ্র বলেন রহি কি কারণ।
 ব্যর্থ স্বয়ংবর কৈল পাঞ্চাল রাজন।।
 নিমন্ত্রিয়া আনাইল একলক্ষ রাজা।  
 বিংশতি দিবস সবাকারে করে পূজা।।
 কোন রাজা নোঙাইতে নারিল ধনুক।
 তোমা হেন জন যাহে হইল বিমুখ।।
 আর বা সংসার মধ্যে আছে কোন্ জন।  
 এ লক্ষ্য বিন্ধিয়া কন্যা করিবে গ্রহণ।।
 চল অকারণে আর কেন রহি ইথি।
 পনর দিবস ছাড়ি আছি দ্বারাবতী।।
 গোবিন্দ বলেন আজিকার দিন রহ।
 লক্ষ্য বিন্ধিবারে এবে কৌতুক দেখহ।।
 যেই বিন্ধে ইতি মধ্যে নাহি কোন ব্যক্তি।
 এই লক্ষ্য বিন্ধিবারে আছে কার শক্তি।।
 পৃথিবীর রাজা আছে ত্রৈলোক্যমণ্ডলে।
 ইন্দ্র যম বরুণ প্রভৃতি দিকপালে।।
 এ লক্ষ্য বিন্ধিতে সবে একজন ক্ষম।
 মনুষ্যলোকেতে শ্রেষ্ঠ মহাপরাক্রম।।
 শুনিয়া বলেন রাম বিস্মিত-বদন।
 কহ কৃষ্ণ এমত আছয়ে কোন্ জন।।
 তিনলোকে বীর তার নাহিক সমান।
 নরশ্রেষ্ঠ তোমা বিনে কেবা আছে আন।।
 তোমা আমা হৈতে শ্রেষ্ঠ মনুষ্য আছয়।
 শুনিয়া আমার বড় জন্মিল বিস্ময়।।
 অবর্ণিত-রূপ কৃষ্ণা লক্ষ্মী-স্বরূপিণী।
 সম্পূর্ণচন্দ্রমামুখ জাতিতে পদ্মিনী।।
 এ কন্যা লভিবে যে পুরুষ উত্তম।
 কহ কৃষ্ণ তোমা হৈতে অন্য কেবা ক্ষম।।
 গোবিন্দ বলেন দেব কর অবধান।
 এ লক্ষ্য বিন্ধিতে পার্থ বিনা নাহি আন।।
 ইন্দ্রের নন্দন এই পাণ্ডব তৃতীয়।
 লক্ষ্য বিন্ধিতে সক্ষম সেই জেন'হয়।।
 রাম বলে ত্রিভূবণে কেহ না পারিল।
 যে পারিবে দ্বাদশ বৎসর সে মরিল।।
 আশ্চর্য্য লাগিল মম শুনি তব ভাষ।
 অনুমানে বুঝি কৃষ্ণ কর উপহাস।।
 অগ্নি মধ্যে পুড়িল যে পাণ্ডুর নন্দন।
 তাহা ইনা লক্ষ্য বিন্ধে নাহি হেন জন।।
 তবে কে বিন্ধিবে লক্ষ্য কহ নারায়ণ।
 কি হেতু রহিতে বল না জানি কারণ।।
 কৃষ্ণ বলে পাণ্ডুপুত্র পুড়ি নাহি মরে।
 মহাবীর্য্যবন্ত তারা অবধ্য সংসারে।।
 দেব হৈতে হৈল পঞ্চ কুন্তীর কুমার।
 ভূমিভার নাশিবারে জন্ম সবাকার।।
 তা সবা মারিতে পারে কাহার শকতি।
 কতকাল গুপ্তে কাটাইল যথি তথি।।
 এই সভা মধ্যেতে আছয়ে পঞ্চজন।
 শুনিয়া বিস্ময়াপন্ন রোহিণীনন্দন।।
 রাম বলিলেন কহ অদ্ভুত কথন।
 শুনিয়া আশ্চর্য্যযুক্ত হৈল মম মন।।
 অগ্নিতে মরিল পুড়ে ঘোষিল ভূবনে।
 এতকাল কোন্ দেশে বঞ্চিল গোপনে।।
 কোন্ দেশে কোন্ স্থানে আছে পঞ্চজন।
 পার্থ লক্ষ্য বিন্ধিতে না উঠে কি কারণ।।
 এত শুনি বলিলেন দেব যদুবীর।
 দ্বিজসভামধ্যে দেখ রাজা যুধিষ্ঠির।।
 এক্ষণে কেমনে বা উঠিবে ধনঞ্জয়।
 লক্ষ্য বিন্ধিবারে তারে কেহ নাহি কয়।।
 যখন ব্রাম্ভণগণে দ্রুপদ বলিবে।
 লক্ষ্য বিন্ধিবারে পার্থ তখনি উঠিবে।।
 শুনিয়া চাহে রাম যুধিষ্ঠির পানে।
 পিঙ্গল মলিন বস্ত্র বিরসবদনে।।
 তৈল বিনা তাম্রবর্ণ লোমাবলি চুলি।
 মাথে তালপত্র-ছত্র স্কন্ধে ভিক্ষাঝুলি।।
 রাম বলিলেন কৃষ্ণ কর অবধান।
 ধর্ম্মশ্রেষ্ঠ যুধিষ্ঠির লোকেতে আখ্যান।।
 তবে কেন হেন গতি দেখি যুধিষ্ঠিরে।
 অনাহারে মহাকষ্ট দুঃখিত শরীরে।।
 কৃষ্ণ বলে কর অবধান মহাশয়।
 পাপ-আত্মা দুর্য্যোধন জানিও নিশ্চয়।।
 পাপেতে পাপীর ধন বৃদ্ধি হয় নিতি।
 পশ্চাতে হইবে সমুলেতে বিনশ্যতি।।