পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/২৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


3:RR পৃষ্ঠতে লক্ষণং দেবং সচ্ছত্ৰং সহচামরং । ধৰ্ম্ম মহাভয় ভক্ষ্য ভোজ্য নিয়োজিত করি দিল কাকে । নিত্য নিত্য পুরা হৈতে নিয়া দিবে তাকে ॥ এইমত ছুইজন রহিল বাহিরে । দেখ যুধিষ্ঠির রাজা দৈবে যাহা করে ॥ বনপৰ্ব্ব অপূৰ্ব্ব শ্ৰীবৎস উপাখ্যান । কাশী কহে শুনিলে জম্ময়ে দিব্যজ্ঞান ॥ শ্ৰীবৎস রাজার সঠিত চিস্তাদেবীর মিলন । শ্ৰীবৎসের যত দুঃখ কহে যদুরায় । পঞ্চ ভাই জিজ্ঞাসেন কাতর হৃদয় ॥ দ্ৰৌপদী কহিল দেব কহু পুনৰ্ব্বার । চিস্তার কি হৈল গতি কেমন প্রকার ॥ কিরূপে ভদ্রারে ল’য়ে বঞ্চিল রাজন । কহ দেব শুনিতে ব্যাকুল বড় মন ॥ শ্ৰীকৃষ্ণ বলেন সবে শুন সেই কথা । বাজগৃহে মানহীন বঞ্চে রাজা তথা ॥ পরগৃহে বঞ্চে পর অন্নেতে পালিত । ধিক্ তার জীবন মরণ সমুচিত ॥ কষ্টেতে বঞ্চেন রাজা দিবস রজনী । সাত্বন করেন ভদ্রা কহি প্রিয়বাণী ॥ বহুকাল গেল দুঃখ আছে অল্পকাল । অচিরে পাইবা রাজ্য শুন মহীপাল ॥ জ্ঞানবান লোকে কভু কাতর না হয় । স্থির হয়ে কৰ্ম্ম করে ঈশ্বরে ধেয়ায় ॥ ইহা বুঝি মহারাজ শান্তচিত্ত হয় । নিরবধি বদনেতে রাম নাম লয় ॥ না জানহ মহাশয় আছয়ে শমন । ইহ জানি নরপতি তত্ত্বে দেহ মন ॥ ভদ্রার বিনয় বাক্য শুনিয়া রাজন । অহনিশি করে রাজা ঈশ্বর স্মরণ ॥ হেনমতে দ্বাদশ বৎসর অবশেষ । শনির ভোগান্ত গত শুভেতে প্রবেশ ॥ হেনকালে একদিন শ্ৰীবৎস রাজন । ভদ্র প্রতি কহে রায় মধুর বচন ॥ তব বাপে কহি কিছু কৰ্ম্ম দেহ মোরে । ক্ষীরোদ নদীর তটে দান সাধিবারে ॥ শুনিয়া ইঙ্গিতে ভদ্র মায়েরে কহিল। রাণীর ইঙ্গিতে রাজা সেইক্ষণে দিল ॥ পাইয়৷ নৃপের আজ্ঞা শ্ৰীবৎস নৃপতি । নদীকূলে বৈসে রাজ হইয়া জগাতি । শত শত মহাজন নৌক বাহি যায় । তল্লাসি লইয়৷ তারে পুনঃ ছাড়ি দেয় ॥ দেখ যুধিষ্ঠির রাজা দৈবের ঘটনে । কত দিনে সেই সাধু আইসে ঐ স্থানে ॥ দেখিয়া তরণী তার শ্ৰীবৎস চিনিল । আটক করিয়া তরী ঘাটেতে রাখিল । নিজ জনে আজ্ঞা দিল শ্ৰীবৎস রাজন । নৌকা হৈতে কুলেতে উঠাও যত ধন ৷ আজ্ঞা মাত্র স্বর্ণপাট যতেক আছিল । ডিঙ্গা হৈতে নামাইয়া কূলে উঠাইল । দেখি সদাগর গিয়া ভূপে জানাইল । তোমার জামাতা মম সৰ্ব্বস্ব লুটিল । শুনি রাজা ক্রোধচিত্তে জামাতারে বলে । কি হেতু সাধুর সব স্বর্ণপাট নিলে । শ্ৰীবৎস বলেন রাজা করহ শ্রবণ । সাধু নহে এই বেটা দুষ্ট মহাজন । এই স্বর্ণপাট যদি করে দুইখান । তবে ত উহার স্বর্ণ সকলি প্রমাণ ॥ শুনি সদাগরে ডাকি কহিল নৃপতি । স্বর্ণপাট দুই খণ্ড কর শীঘ্ৰগতি ॥ একখানি পাট যদি দুইখানি হয় । তবে ত তোমার স্বর্ণ হইবে নিশচয় ॥ এ কথা শুনিয়া সাধু কুঠার আiনয় । খুলিতে বসিল যত স্বর্ণপাট নিয় ॥ খুলিতে নারিল সাধু মহালজ্জ পায় । তবে ত শ্ৰীবৎস রাজা কহিছে সভায় ৷ খুলিতে মারিল সাধু পাইলে প্রমাণ । আমি খুলি স্বর্ণপাট করি দুইখান ॥ স্বর্ণপাট হাতে করি শ্ৰীবৎস রাজন । তাল-বেক্তালেরে তবে করিল স্মরণ II স্মরণ করিবামাত্র দুইখান হয় । দেখিয়া সভার লোক মানিল বিস্ময় ॥