পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/২৬৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৩২৬ রঘুনাথায়-নাথায় সীতায়াঃ পতয়ে নমঃ ॥ মহাভারত আজ্ঞা মাত্র সারথি চলিল শীঘ্ৰগতি । রথ সাজি সেইক্ষণে আনিল সারথি ॥ রাজা বলিলেন সৈন্য সাজ সর্বজন । শ্ৰীবৎস কহিল রায় নাহি প্রয়োজন ॥ দক্ষিণ সমুদ্র পর আমার বসতি । সৈন্য সেন। কেমনে যাইবে ঘোড় হাতী ॥ রাজা বলে কেমনে বাইবে তুমি তথ। । শ্ৰেীবৎস বলিল রাজ উপায় দেবত ॥ তাল বেতালেরে রাজা করিল স্মরণ । স্মরণ মাত্রেতে তার। এল দুইজন ॥ হাসিয়া কহিল দোহে কি আজ্ঞা করহ । শ্ৰীবৎস কহিল মোরে নিজ রাজ্যে লহু ॥ শ্বশুরে প্রণাম করি উঠে রথোপরে : চিন্তা ভদ্র বলি নুপ ডাকিল সত্বরে ॥ জনক-জননী-পদে বিদায় মাগিল । চিন্তা ভদ্র দোহে তালি রথে আরোহিল । চুড়ায় বসিল তাল বতাল সারথি । বায়ুবেগে ধায় রথ স্থললিত গতি ॥ । নিমিষে উত্তরে উত্তরে দশ সহস্ৰ যোজন ; রাজা কহে কহ তাল এই স্থান কোন ৷ তাল কহে ঐ দেপ হুরভি আশ্রিম । কহিতে কহিতে পায় কাঠরে ভবন ৷ তাল কহে মহারাজ কর অবধান : পোড়। মৎস জলে গেল দখ সেই স্থান ৷ ভাঙ্গ। নায় শনি অ! সি কথা হ’রে নিল । নিমিষেতে সেই স্থান পশ্চাৎ হইল ॥ ক্রমেতে পাইল আসি আপন ভ২ণ । তাল কহে নিজ রাজ্যে আছিল। রঞ্জিন ! রথ হৈতে রাজ রাণী নামে তিনজন । পদব্রজে ধীরে ধীরে করিল গমন : শুনি নগরের লোক আগইল রাজন । মৃত-শরীরেতে যেন পাইল জীবন ॥ বামপার্থে দুই রাণী সিংহাসনে রাজা । পাত্রমিত্ৰ সবে আসি করিলেন পূক্ত ॥ পূর্বের স্বহৃৎ বন্ধু যতেক আছিল । ক্রমেতে অ’ লয় সবে একত্র হুইল । বান্ধব সানন্দ নিরানন্দ রিপুগণ । পূৰ্ব্বমত রাজা রাজ্যে করেন শাসন ! চিন্তা ভদ্র দুই নারী পরম স্থশীল । ক্রমে ক্রমে শত পুত্ৰ দোহে প্রসবিল ! দুই রাণী গর্ভে জন্মে দুই কন্যা ধন । অমৃতেন্তে অভিষিক্ত হইল রাজন । বহুকাল রাজ্য করে শ্ৰীবৎস রাজন । ধৰ্ম্ম কৰ্ম্ম করে যত না যায় বর্ণন । দীর্ঘকাল রাজ্য করি পরম কৌতুকে । অন্তকালে রাণী সহ গেল বিষ্ণুলোকে । অতএব যুধিষ্ঠির করি নিবেদন । দৈবাধীন কৰ্ম্মে শোক কর। অকারণ : শ্ৰীবৎস-চরিত্র আর শনির মাহাত্ম্য : যেবা শুনে যেবা পড়ে সে হয় পবিত্ৰ । কদ{চ শনির বাধা তাহার না হয় । শাস্ত্রের বচন এই নাহিক সংশয় । এত বলি জগন্নাথ মাগেন মেলানি : সবারে সম্ভাৰ করিলেন চক্রপাণি ॥ সুভদ্র সৌভদ দোহে সঙ্গেতে করিয়া দ্বারক; গেলেন ছাঁর রথ চালাইয়৷ ৷ ধৃষ্টদ্যুম্ন ল'য়ে ভাগিনেয় পঞ্চজন । সসৈন্যে পাঞ্চালদেশে করল গমন । আর যেই দুই ভাৰ্য্যা পাণ্ডবের ছিল । ! নিজ নিজ ভ্রাতৃগণ সহ দেশে গেল , পা গুৰগণের দ্বৈ ভবনে গমন ও মr". 13 মুনির আশ্রন । দ্বারকানগরে চলিলেন যদুপতি যুধিষ্ঠির জিজ্ঞাসেন ভ্রাতৃগণ প্রতি ॥ দ্বাদশ বৎসর আমি নিবসিব বনে । | যোগ্যস্থান দেখ যথা বঞ্চি হৃষ্টমনে ॥ বহু যুগ পক্ষী থাকে ফল পুষ্পরাশি । সজল স্বস্থল যথা বৈদে সিদ্ধ ঋষি । অৰ্জুন বলেন সব তোমাতে গোচর । মুনিগণ হৈতে তুমি জ্ঞাত চরাচর ॥