পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


       সূর্য্যের ধ্যান--রক্তাম্বুজাসন-মশেষ গুণৈকসিন্ধুং,

অঙ্গের দুর্গন্ধে উঠে মুখেতে বমন। না জানি আছয়ে কিনা মুখেতে দশন।। মম অঙ্গ গন্ধে দেখ ব্রম্ভাণ্ড পূরিত। অঙ্গের ছটাতে দেখ ত্রৈলোক্য দীপিত।। কোন লাজে চাও তুমি করিতা সম্ভাষ। কেমনে সাহসে তুমি আইস মম পাশ।।

       -----
 মোহিনীর সহিত হরের মিলন।
 হর বলে হরিণাক্ষি কেন দেহ তাপ।

মম সহ কভু নহে তোমার আলাপ। ত্রৈলোক্যের মধ্যে আছে যত মহাপ্রাণী। সবার ঈশ্বর আমি জান বরাননি।। ব্রম্ভার পঞ্চম শির ন'খে ছেদি দিল। বহুকাল সেবি বিষ্ণু অভয় পাইল।। ইন্দ্র যম বরুণ কুবের হুতাশন। সব লোকপাল করে মোর আরাধন।। জ্ঞানযোগে মৃত্যু আমি করিলাম জয়। আমার নয়নানলে কাম ভস্ম হয়।। মহামায়া যাঁরে বলে ত্রৈলোক্যমোহিনী। বিষ্ণু অংশ জন্মে গঙ্গা ত্রিপথগামিনী।। দাসী হ'য়ে সেবে মোর চরণ-অম্বুজে। মনোরথ লভে সেই যেবা মোরে পূজে।। ত্যাজ মান মনোরমে করহ সম্ভাষ। আমায় ভজিলে হবে সিদ্ধ অভিলাষ।। কন্যা বলেন যোগী জানিনু এক্ষণে। তোমারে মহেশ বলি ব্লে সর্ব্ব্জনে।। ব্যর্থ জপ তপ তোর, ব্যর্থ যোগ জ্ঞান। ব্যর্থ তাওর পঞ্চমুখে রাম নাম গান।। ব্যর্থ জটা ভস্ম মাখ, ব্যর্থ তুমি যোগী। ভণ্ডতা করিয়া লোকে বলহ বৈরাগী।। কামিনী দেখিয়া এত হইলা বিহ্বল। কামে দগ্ধ কৈলে কোন লাজে হেন বল।। হর বলে মনোহরা কর অবধান। তব অঙ্গ দেখি মম হরিলেক জ্ঞান।। করিলাম এক কাম দেহন নয়নে। কোটি কাম জ্বলিতেছে তব চক্ষুকোণে।। তপ জপ যোগ জ্ঞান নিবৃত্তি বৈরাগ্য। এ সকল কর্মে যদি হয় শ্রেষ্ঠ ভাগ্য।। এই বাঞ্ছা হয় তুমি করহ পরশ। আলিঙ্গন দেহ তুমি হইয়া হরষ।। যতেক করিনু তপ জপ রাম নাম। জটা ভস্ম দিগবাস শ্মশানের ধাম।। তার সমুচিত ফল মিলাইল বিধি। এতকালে পাইলেম তোমা হেন নিধি।। সর্ব্ব কর্ম্ম সমর্পিনু তোমার চরণে। কৃপা করি আলিঙ্গন দেহ বরাননে।। হরবাক্য শুনিয়া বলেন হয়গ্রীব। অপ্রাপ্য দ্রব্যের কেন বাঞ্ছা কর শিব।। সর্ব্ব কর্ম্ম ত্যাজিবারে পারে যেইজন। অন্যমনা না হবে আমাতে এক মন।। কায়মনোবাক্যে করে আমার ভজন। সে জনেরে যাচি আমি দিব আলিঙ্গন।। শঙ্কর বলেন এই সত্য আঙ্গীকার। আজি হৈতে তোমা বিনা না ভজিব আর।। ত্যাজিলাম সর্ব্ব কর্ম্ম ভার্য্যা পুত্রগণ। সেবিব তোমার পদ দেহ আলিঙ্গন।। হরি বলে কত আর করহ ভণ্ডন। কেমনে ত্যাজিবে তুমি ভার্য্যা পুত্রগ্ণ।। এক ভার্য্যা রাখিয়াছ জটার ভিতর। আর ভার্য্যা রাখিয়াছ অর্দ্ধ কলেবর।। হর বলে হরিণাক্ষি কেন হেন কহ। ত্যাজিয়া কপট তুমি কর অনুগহ।। কি ছার সে নারী পুত্র নাম লও তার। শত শত দুর্গা গঙ্গ নিজনি তোমার। দাসী হয়ে সেবিবে সে আমি হব দাস। কৃপা কর বরাননি পুরাও এ আশ।। যদি তুমি নিশ্চয় না দিবে আলিঙ্গন। তোমার উপরে বধ দিব এইক্ষণ।। নেউটি আমার পানে চাহ চারুমুখে। হের মরি ত্রিশূল মারিয়া নিজ বুকে।।