পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৩৪৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


_ープ一エ কলর গঙ্গাস্তোত্ৰ-মিদং ভধলারং। 8 e S বাঞ্ছিতফলদং বিদিতমুদ্রারং ॥ হিনির দৈত্যের পতি অতি দুঃখমনে । ঢকিয়া আনিল যত অমুচরগণে ॥ বহুরূপে পার শীঘ্র মার এই পাপ । ইহার জীবনে বড় পাইব সন্তাপ ॥ উহ! শুনি যত দৈত্য প্ৰহলাদে লইল । বনম অনল জ্বলি তাঁহাতে ফেলিল ॥ কৃষ্ণ বলি অনলে পড়িবা মাত্র শিশু । শীতল হইল বহ্নি ন হইল কিছু ॥ দেখিয়া যতেক দৈত্য দুঃখিত অন্তর । নকটে পৰ্ব্বত ছিল অতি উচ্চতর ॥ সবে মেলি তাহার উপরে শিশু তুলি । অবনীমণ্ডলে তারে ফেলাইল ঠেলি ॥ পড়ে শিশু নারায়ণ চিন্তিয়া অন্তরে । বালক শুইল যেন তুলার উপরে ॥ দেখিয়া দৈত্যের পতি চিন্তাকুল মনে । নিকটে ডাকিয় তবে যত মন্ত্ৰিগণে ॥ সংহার করিতে শিশু দিঙ্গ তার হাতে । কতেক প্রহার করি নারিল বধিতে ॥ তবে রাজা নিকটে ডাকিল মল্লগণে । ক্রীড়াযুদ্ধ আরম্ভিল বধিতে নন্দনে ॥ প্ৰহলাদে মারিতে কৈল যজ্ঞ আরম্ভন । তfহাতে হইল দগ্ধ সকল ব্রাহ্মণ ॥ তবে ত দেখিয়া শিশু দ্বিজের মরণ । পরিত্রাহি ডাকে রক্ষা কর নারায়ণ ॥ এষ্ট ত ব্রাহ্মণ হয় তোমার শরীর । ঈহার মৃত্যুতে আমি হইনু অস্থির ॥ তবে যদি ব্রাহ্মণ না হইবে সজীব । অগ্নিতে প্রবেশ করি আমিও মরিব ॥ এরূপ অনেক শিশু করিল স্তবন। ভক্তছুঃখ দেখি তবে দেব নারায়ণ ॥ জীয়াইয়া দিলেন সে সকল ব্রাহ্মণে । দেখিয়া প্ৰহলাদ হৈল কুতুহলী মনে ॥ দৈত্যপতি শুনিয়া সকল সমাচার । না জানিয়া মুঢ়মতি বলে পুনর্বার ॥ ধfই সবে যত্নেতে আনই,কালসাপ । দংশিয়া মারুক আজি কুলাঙ্গার পাপ ॥ রাজার আজ্ঞায় যায় যত দৈত্যগণ । ভুজঙ্গ আনিয়া দিল করিতে দংশন ॥ | পরম বৈষ্ণব-তেজ শিশুর শরীরে । তাহাতে সে সব বিষ কি করিতে পারে। তবে দৈত্য পাষাণ বান্ধিয়া তার গলে । ক্রোধমনে ফেলাইল সমুদ্রের জলে ॥ শিশুর সন্ত্রম কিছু নহিল তাহায় । নিমগ্ন করিল চিত্ত গোবিন্দের পায় ॥ ডাকিয়া বলিল শিশু রাখহ সঙ্কটে । তোমার কিঙ্কর মরে দুষ্টের কপটে ॥ অবশ্য মরণ নাথ দুঃখ নাহি তায় । সবে মাত্র ভজিতে নারিনু রাঙ্গা পায় ॥ এরূপ অনেক মতে করিল স্তবন। জানিয়া সেবক-দুঃখ দেব নারায়ণ ॥ পাষাণ ভাসিল জলে কৃষ্ণের কৃপায়। বিষ্ণুভক্ত জনে আর নাহিক সংশয় ॥ তাহ অবলম্ব করি আপনার সুখে । কৃষ্ণ কৃষ্ণ জপে শিশু পরম কৌতুকে ॥ জানিয়া একান্ত ভক্ত দেব দামোদর। ভক্তের অধীন প্রভু আসিয়া সত্বর ॥ কোলে করি আলিঙ্গন করেন তাহায় । পদ্মহস্ত বুলালেন প্ৰহলাদের গায় ॥ কহিলেন প্ৰহলাদ মাগহ ইষ্ট বর । শুনিয়া কহিল শিশু যুড়ি দুই কর ॥ যাহারে এতেক দয়া আছয়ে তোমার । ব্রহ্মপদ তুচ্ছ তার বর কোন ছার ॥ , তবে যদি বর দিব অখিলের পতি । কৃপা করি কর মস পিতার সদগতি ॥ শুনিয়া শিশুর মুখে এতেক বচন । তুষ্ট হৈয়। গোবিন্দ দিলেন আলিঙ্গন ॥ উদ্ধার করিব আমি তোমার জনকে । নিজালয়ে গমন করত তুমি হুখে ॥ দুষ্ট দৈত্যগণে তুমি না করিও ভয়। যথা তুমি তথা আমি জানিবে নিশ্চয় ॥ এত বলি বৈকুণ্ঠে গেলেন দৈত্যরিপু । চর জানাইল যথা হিরণ্যকশিপু ॥