পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৪৪৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ՀԵ-8 ঘোরদংষ্ট্রং করালাস্তং পীনোন্নত পয়োধরাং । [ মহাভারত । ہمیـــ---- সিংহ যেন ক্ষুদ্র মৃগে করয়ে সংহার । তেমনি নাশিব ধৃতরাষ্ট্রের কুমার ॥ কহিতে কহিতে ভীম ক্রোধে কম্পে কায় । নয়নে সঘনে অগ্নিকণা বাহিরায় ॥ ভীষ্ম দ্রোণ বিন্ধুর মধুর বলে বাণী । খুকে যুধিষ্ঠির কহুক চারিজন । ইক্ষণে হয় তবে তোমার মোচন ॥ তুবা কহুক নিজে ধৰ্ম্মের কুমার । ষ্ণার উপরে মম নাহি অধিকার ॥ ত যদি বলিল নৃপতি দুৰ্য্যোধন । গল ভাল বলিয়া কহিল সভাজন ॥ শুনিবারে রাজগণ আছে কুতুহলে। ক বলে ধৰ্ম্মের পুত্ৰ ভীম কিবা বলে ॥ কব বলে ধনঞ্জয় মাদ্রীর নন্দন । পঞ্চজন মুখ সবে করে নিরীক্ষণ ॥ নঃশব্দ নৃপতিগণ একদৃষ্টে চায় । কহিতে লাগিল ভীম চাহিয়া সভায় ॥ চন্দনে লেপিত ভুজ তুলি সভামাঝে । কহিতে লাগিল যেন কেশরী গরজে ॥ এই রাজা যুধিষ্ঠির পাণ্ডবের পতি । পাণ্ডবগণের নাহি ইহা বিন গতি ॥ ইনি যদি নহিবেন পাণ্ডব ঈশ্বর । এতক্ষণ কোথা বীচে কৌরব পামর ॥ যুধিষ্ঠির মহারাজ হারিল আপন । ঈশ্বর হইল দাস দাসী কি গণন ॥ যুধিষ্ঠির জিত হৈলে জিনিলা সবারে । কাহার শকতি ইহা খণ্ডিবারে পারে ॥ আর কহি শুন দুষ্ট কৌরব সকল । আমি জীতে তো সবার নাহিক মঙ্গল ॥ যেইক্ষণে রাজারে বসালি ভূমিতলে । যেইক্ষণে ধরিলি দ্রুপদস্থত৷ চুলে ॥ সেইক্ষণে আয়ুশেষ তোমা সবাকার । কুটি কুটি করি সবে করিব সংহার ॥ হের দেখ যমদণ্ড মোর দুই ভুজ । শচীপতি ন জীয়ে পড়িলে ইতি মাঝ ॥ পৰ্ব্বত করিব চুৰ্ণ তোম। গণি কিসে । নিৰ্ম্মল করিতে পারি চক্ষুর নিমিষে ॥ ধৰ্ম্মপাশে বদ্ধ এই ধৰ্ম্মের নন্দন । র্তেই মুঢ়মতিগণ জীয়ে এতক্ষণ ॥ আর তাহে পুনঃ পুনঃ অর্জন নিবারে । এথনি দেখাই যদি রাজ আজ্ঞা করে । সকল সম্ভবে তোম। ক্ষম বীরমণি ॥ ভারতের পুণ্যকথা অমৃত লহরী। শুনিলে অধৰ্ম্ম খণ্ডে ভবসিন্ধু তরি ॥ দুৰ্য্যোধনের উরু ভঙ্গে ভীমের প্রতিজ্ঞ বৃকোদর বীর যবে নিঃশব্দ হইল । কৃষ্ণ প্রতি কৰ্ণ বীর কহিতে লাগিল । তিনজন ধনের উপরে প্রভু নহে । সেবক রমণী শিষ্য শাস্ত্রে হেন কহে । দাস হৈল যুধিষ্ঠির তুই ভাৰ্য্য। তার । দাসভাৰ্য্যা দাসী হয় জানয়ে সংসার ॥ দাসী হৈলে দাসী কৰ্ম্ম কর ঘথোচিত । ধৃতরাষ্ট্র গৃহেতে প্রবেশই ত্বরিত ॥ তোর প্রভু হৈল ধৃতরাষ্ট্র পুত্ৰগণ । তোর অধিকারী নহে পাণ্ডুর নন্দন ॥ যারে তোর ইচ্ছা হয় ভজহু তাহারে । পাণ্ডবের। আর তোরে নিবারিতে নারে । বৃকোদর শুনিল কর্ণের কটুভর। নিশ্বাস ছাড়িয় সে কচালে করে কর । ক্রোধে দুই চক্ষু যেন রক্ত কুমুদিনী । কণ পানে চাহি যেন গর্জে কাদম্বিনী { ওরে মুঢ় যে উত্তর করিলি মুখেতে । ইহার উচিত ফল আছে মম হাতে । ধৰ্ম্মপাশে বদ্ধ এই ধৰ্ম্ম অধিকারী । সে কারণে তোরে আমি বলিবারে নারি যুধিষ্ঠির প্রতি বলে কৌরব প্রধান । তুমি কেন নাহি কর ইহার বিধান ॥ চারি ভাই তোমার বাক্যেতে তার স্থিত আপনি বলহু কৃষ্ণ জিতা কি অঞ্জিত । যুধিষ্ঠির অধোমুখ শুনি সে বচন । নয়নে বসন দিয়া ঢাকেন বদন ।