পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৫৭৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাম পাদং শৰহৃদি সংস্থাপ্য দক্ষিপ্তং পদং। ভীমের সাক্ষাতে আর কেহ নাহি রয়। ভীষ্মের সারথি মারি দিল যমালয় ॥ ধনুক ধরিয়া হাতে ভীষ্ম মহামতি । ভীমের উপরে বাণ এড়ে শীঘ্ৰগতি ॥ গদা ফিরাইয়া ভীম নিবারিল শর। একঘায়ে রথ অশ্ব দিল যম এর ॥ লম্ফ দিয়া ভীস্থাবীর চড়ে অন্য রথে । অস্ত্র বৃষ্টি করে মহাপণ্ডিত রণেতে ॥ নারায়ণ দেখি রথ চালান ঝটিতি । . ভীষ্মের সম্মুখে রথ রাখেন শ্ৰীপতি ॥, অন্তরীক্ষে অৰ্জ্জুন কাটেন সৰ্ব্ব বাণ । দেখি ক্রুদ্ধ হৈল ভীষ্ম,অগ্নির সমান ॥ দেখাদেখি দুইজনে বাধে ঘোর রণ । চমকিত হ’য়ে দেখে যত দেবগণ ॥ ভীম মহাক্রোধে সৈন্য করিল সংহার । যারে পায় তারে মারে না করে বিচার ॥ ইন্দ্ৰ যেন বজ্ৰ হস্তে ভাঙ্গে গিরিবর। গদাঘাতে মারে বড় বড় গজবর ॥ মাদ্রীপুত্র দুইজনে ভাঙ্গে পাটোয়ার । সহস্ৰ সহস্র রথ মারে আসোয়ার ॥ সহস্ৰ সহস্ৰ গজ পদাতি বিস্তর । পৃথিবী আচ্ছাদি পড়ে সৈন্য বহুতর ॥ ধ্বজ ছত্র পতাকায় ঢাকিল মেদিনী । দুইদলে কোলাহল কিছুই না শুনি ॥ হেনকালে রণে আসে ইলাবন্ত নাম । অর্জনের পুত্র সেই ইন্দ্রের সমান ॥ হুবর্ণ রচিত দিব্য বিমান স্থলদর । তাহাতে চড়িয়া আসে সংগ্রাম ভিতর ॥ তীর্থযাত্র করেন যে কালে পার্থবীর । ভ্ৰমিলেন বহু তীর্থ নির্ভয় শরীর ॥ অনুঢ়া নাগের কন্য উলুপী আছিল । সর্পরাজ পুণ্ডরীক হৃদয়ে ভাবিল ॥ অর্জনেরে তথায়ু লইল ছল করি । প্রদান করিল তারে উলুপী স্বন্দরী । তার গর্ভজাত বীর ইলবন্ত নাম । মহাপরাক্রমশালী যুদ্ধে যেন রাম ॥ i i h * ? f | m L মহাভারত ! ঐরাবত পাঠাইয় দেব পুরন্দর । ইলাবন্ত আনিলেন আপন গোচর ॥ অৰ্জ্জুন গেলেন যবে ইন্দ্রের ভুবন । পিতা পুত্রে তথায় হইল দরশন ॥ পিতা পুত্রে পরিচয় মাতলি করিল। ---=ब्ध সেই বীর ইলাবন্ত উপনীত হৈল ॥ সমরে আসিয়া ইলাবন্ত করে রণ। স্ববলের পুত্ৰগণ আইল তখন ॥ পশিয়া তোমর শেল মূষল মুদগর । ইলাবন্ত উপরে বরিষে নিরন্তর ॥ নিবারিয়া ইলাবন্ত বাণ বৃষ্টি করে। একে একে মারিয়া পাঠায় যমঘরে ॥ নানা অস্ত্র সোঁবলের সৈন্যেরে প্রহারে । জর্জর সকল বীর ইলাবন্ত-শরে ॥ অনেক মরিল তবে কুরুসৈন্যগণ । সসৈন্য সাজিয়৷ এল দেখি দুর্য্যোধন। দুৰ্য্যোধন নিজ সৈন্যে করিল আদেশ । ইলাবন্ত বীরেরে মারছ সবিশেষ ॥ অলম্বুষ রাক্ষসেরে আজ্ঞা দিল আর । ইলাবন্ত বীরে শীঘ্র কর প্রতিকণর ॥ সাবধান হ’য়ে তারে করহ নিধন । তোমা বিনা তারে মারে নাহি কোন জনা অলম্বুষ ইলবিন্তে হয় মহারণ । অলক্ষিতে মায়াযুদ্ধ করে দুইজন ॥ দোহে মহাবীৰ্য্যবন্ত সংগ্রামে নিপুণ । দোহে অস্ত্রে বিশারদ কেহ নহে উন ॥ তবে অলক্ষুষ করে মায়ার প্রকাশ । বাণে অন্ধকার করে না চলে বাতাস ৷ দেখিয়৷ হাসিল ইলাবন্ত মহাবীর । রাক্ষসের-বাণ কাটি রণে হৈল স্থির ॥ চোখ চোখ বাণে পুনঃ পূরিয়া সন্ধান । অলম্বুষ রাক্ষসের কাটে ধনুৰ্ব্বাণ ॥ আর ধনু লইল রাক্ষস বীরবর। ইলাবন্ত উপরেতে বরিষয়ে শর ॥ বাণে নিবারয়ে তাহ অর্জুন-তনয় । নিজ অস্ত্রে বিন্ধিলেকু রাক্ষস-হৃদয় ।