পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৫৮৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভীষ্মপৰ্ব্ব ৷ I (tశిసి . দসি আমার ভারে বাধ হয় ভঙ্গ । সাক্ষাতে তোমারে আজি দেখাইব রঙ্গ ॥ আমি কহিলাম যদি বান্ধি হে সাগর । তোমারে কি গণি পার হয় চরাচর ॥ তোমার ভরেতে যদি মম ৰাধ ভাঙ্গে । তবে পরাজিত আমি হইব তব আগে । সাগর তীরেতে তবে গেম্বু দুই জন । ধনুকে টঙ্কার আমি দিলাম তখন ॥ বৃষ্টি ধারাবৎ অস্ত্র হইল বর্ষণ, পদ্ম শঙ্খ আদি বাণ কে করে গণন ॥ নিমেষেতে বান্ধিলাম শতেক যোজন । দেখি বাধ হনুমান সবিস্ময় মন ॥ জানি যে কিরাত নহে হবে কোন জন । কোন দেবতার ক্রোধে পড়িমু এখন ॥ এতেক ভাবিয়া বীর বলে মোরে হাসি । ক্ষণেক বিলম্ব কর শীঘ্র আমি আসি ॥ এত বলি উত্তরেতে চলে মহাবীর । বাড়াইল উভে লক্ষ যোজন শরীর ॥ লোমে লোমে মহাবীর পর্বত বান্ধিল। পৰ্ব্বত স্কন্ধেতে কত শত তুলি নিল ॥ মহাবেগে আসে বীর কৃতান্ত আকার । লুকাইল রবিতেজ হৈল অন্ধকার ॥ নিরখিয়া দেখি রূপ অতি ভয়ঙ্কর । হনুমানে হেরি মম কঁাপিল অন্তর ॥ মহাভয় পেয়ে আমি স্মরি মনে মন । অন্তৰ্য্যামী সব জানিলেন নারায়ণ ॥ হনুমান অর্জনেতে হৈল বিসংবাদ । মহাবীর হনুমান পাড়িল প্রমাদ ॥ । এতেক চিন্তিয়া প্রভু আসিয়া ত্বরিতে । রহে কচ্ছপ রূপে বাধের নীচেতে ॥ কোপে হনুমান ডাকি আমাপ্রতি বলে । এবে বাধ কর রক্ষা প্রতিজ্ঞা করিলে ॥ বিপক্ষেতে আমি পড়ি সাহস করিলাম । নিঃশঙ্কাতে হও পার ডাকি বলিলাম । , হনুমান ভরে কম্পমান বসুমতী । বান্ধে এক পদ দিল হয়ে ক্রুদ্ধ অতি ॥ পরা, খড়েগঙ্গৗবর কর্তৃথপরভুজ হুঙ্কারবীজোস্তব। ! আর পদ তুলি দেয় যেমন স্বধীর । কচ্ছপের মুখ হইতে বহিল রুধির ॥ হইল লোহিত বর্ণ সাগরের জল । তাহ দেখি সচিন্তিত হৈল মহাবল ॥ পৃথিবী সহিতে মোর ভর নাহি পারে। শর বাধ কি প্রকারে রহিল সাগরে ॥ কেন বা এ রক্তবর্ণ সাগরের নীর । এতেক চিন্তিয়া জ্ঞান দৃষ্টি করে বীর ॥ জানিল ধ্যানেতে প্রভু বাধের নীচেতে । লাফ দিয়া তটে পড়ে অতি ভীত চিতে ॥ বান্ধের নীচেতে প্ৰভু রঘুকুলমণি । আমি পশু মুঢ়মতি ইহা নাহি জানি ॥ অজ্ঞান অধম আমি বড়ই বর্বর। না জানিয়া আরোহিনু প্রভুর উপর ॥ তবে ত কচ্ছপ রূপ ত্যজিয়া শ্ৰীহরি । নবদুৰ্ব্বাদল শু্যাম হন ধনুৰ্দ্ধারী ॥ হনুমান প্রতি তবে বলেন বচন । আমার পরম ভক্ত তোমরা দুজন ॥ দুইজনে প্রীতি কর ছাড় মনে রোষ । আমারে করহ ক্ষমা অর্জনের দোষ ॥ কৃতাঞ্জলি বলে হনু করিয়া বিনয় । অপরাধ ক্ষম মোর ওহে দয়াময় ॥ শুনি হরি উভয়ের সখ্য করাইয়া । উভয়েরে শান্ত করি গেলেন চলিয়া ॥ আম চাহি হনুমান বলেন বচন । তুমি আমি সখা হইলাম দুইজন ॥ তোমার সহায় আমি সদাই থাকিব । সমর-সঙ্কটে তব সাহায্য করিব t এতেক বলিয়া বীর গেলেন উত্তর । পুষ্প ল’য়ে আসিলাম দ্বারক নগর ॥ বড় বড় সঙ্কটেতে রাখিলেন মোরে । কেন বৃথা ধৰ্ম্ম রাজ চিন্তিছ অন্তরে ॥ এত বলি প্রবোধেন পার্থ ধৰ্ম্মৰূপে । রজনী বঞ্চেন নানা কথার আলাপে ॥ smoo-e