পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৬২২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৬১২ দিগম্বরং মহাঘোরাং প্রত্যালীঢ়পদস্থিতং । অমঙ্গল হৈল তার নাহিক অবধি । শুকাইল সরোবর স্রোত এড়ে নদী ॥ আহার এড়িল সব পক্ষী যে প্রমাদে । আকুল হইয়া যত গ্রাম্যসিংহ কাদে ॥ অনাচার কৰ্ম্ম বড় অরণ্যে হইল । মুহুমুহুঃ বম্বমতা কাপিতে লাগিল । রাজলক্ষী রাজারে ছাড়িল অনুতাপে । অচিরে হইবে নষ্ট এই মহাপাপে ॥ মঙ্গ হৈল বিবর্ণ বদন হৈল কালি । ৰামৰ্থ্য-বিহীন অঙ্গ কর্ণে লাগে তালি ॥ দবমায়া দেখে রাজা হইতে গগন । উদয় হইল যেন দ্বাদশ তপন ॥ আচম্বিতে মাথার মুকুট গেল খসি । অন্ধকার দেখি সদ। মনে ভয় বাসি ॥ তথাপি বিষয়-মদে না জানি মরণ । আজ্ঞা দিল বধ কাট পার্থের নন্দন ॥ সপ্তরর্থী রথে চড়ে ভাবিয়া বিষাদ । ভদ্র নাহি নৃপতির হইল প্রমাদ ॥ । বেড়িল বালকে গিয়া সপ্ত মহারথী । হানাহানি মহাযুদ্ধ হয় অবিরতি ॥ এককালে সপ্তরর্থী করে অস্ত্রময় । রবি অচিছাদিল বাণে অন্ধকার হয় ৷ ভূষণ্ডী তোমর শক্তি বাণ জাঠাজাঠি । ত্ৰিশূল পট্টিশ মহা অস্ত্র কোটি কোটি ॥ সূচীমুখ শেলমুখ অৰ্দ্ধচন্দ্ৰবাণ । বিকট সঙ্কট শক্তি অনল সমান ॥ কপালী কৌশিকী বাণ, বাণ ব্রহ্মজাল । রুদ্রদ্যুতি রিপুচণ্ড অত্যন্ত বিশাল ॥ শ্রাবণের মেঘ যেন বৃষ্টি বার বার । তপন ঢাকিল যেন তিমির আকার ॥ একযোগে সপ্তরর্থী অস্ত্র বরষিল । অমর ভুজঙ্গ নর চমকিত হৈল ॥ যেন স্বষ্টি মজাইতে ইচ্ছা বিধাতার । বাণবৃষ্টি হয় যেন মুঘলের ধার ॥ হইল পাবক তুল্য আৰ্জ্জুনি কুপিয়া । কোরবদলের এত অন্যায় দেখিয়t u . হাহাকার আকাশে অমরগণ করে। [ মহাভারত । সপ্ত মহারথী বেড়ে এক বালকেরে ॥ বিধি বিড়ম্বিল দুর্য্যোধন দুরাচারে । এমত অন্যায় যুদ্ধ সে কারণে করে ॥ কতু হেন বিপরীত না দেখি না শুনি । মরিবে নিশ্চয় পাপী গরাসিল ফণী ॥ মহাবীৰ্য্য তনুজ, তুলনা নাহি মহী । সাধু সাধু শব্দ শুনি ইহা বই নাহি ॥ অভিমনু্য মহাবীর অবসাদ নাই । প্রশংসা করিয়া গুণ দেবতারা গাই ॥ বন্ধনে সন্ধান পুরি শিশু এড়ে বাণ । নিমিঘে সকল অস্ত্র করে খান খান ॥ কাটিয়া সবার অস্ত্র অর্জুন তনয় । দশ দশ বাণে বিন্ধে সবার হৃদয় ॥ বাণাঘাতে সত্তরথী হতজ্ঞান হয় । শিশুর শমন বাণ হেন মনে লয় ॥ মূৰ্ছ দেখি রথীর সারথি লয় রথ। পলাইল রথী লীয়ে যোজনেক পথ ॥ সপ্তরর্থী এইরূপে যুঝে সাতবার। সবাকারে পরাজিল অর্জুন-কুমার ॥ অবসাদ নাহি, অস্ত্র এড়ে শিশু যত । কোটি কোটি সেনা হয় সমরেতে হত ॥ হয় পড়ে নাহি সীমা কুঞ্জরের দল । রথে পথ ঢাকিল চলিতে নাহি স্থল ৷ মড়ায় ধোড়ার ক্ষিতি পদাতিক গদা । রুধিরে হইল হোড় বরিষার কাদা ॥ কতক্ষণে সপ্তরর্থী পাইল চেতন । লজ্জায় সবার যেন হইল মরণ ॥ কার’ মুখ কেহ নাহি চাহে অভিরোষে । | রথ এড়ি মহীতলে মাথা ধরি বসে ॥ কি হৈল কি হইরে কুমার নহে যম । পলাইল অবসাদে বলে হ’য়ে কম ॥ চিন্তিয়া আকুল হয়ে কুল নাহি দেখি । মজিলাম অবোধ রাজার হাতে ঠেকি । বালকের ক্লান্তি নাহি আর বাড়ে বল । পতঙ্গের প্রায় দেখে কুরুসৈন্য দল ॥ -