পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৬৮৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৬৭৬ উমার ধ্যান—ওঁ হুবর্ণসদৃশীং গোঁরং ভুজৰয়সমম্বিতাং । [ মহাভারত। যে বলিলে সে সম্ভবে তোমা সবাকায় । যুদ্ধে জয়ী হব তোমা সবার কৃপায় ॥ পড়িল আমার সৈন্য নাহি একজন । পাণ্ডবের সৈন্য সব করে মহারণ ॥ একেশ্বর সমর না হয় সমুচিত । বলবন্ত সহিত সংগ্রাম নহে হিত ॥ তবে অশ্বথামা বহু দপের আগার । প্রতিজ্ঞা করিল করি মহা অহঙ্কার ॥ এই আমি মারিব সকল পরদল । উঠ দুর্য্যোধন না হইও হীনবল ॥ পাঞ্চালক সোমবংশ করিব সংহর । আমার প্রতিজ্ঞ এই শুন সারোদ্ধার ॥ পঞ্চালে না মারি যদি কবচ এড়িব । ধিক্ অকারণ ব্যর্থ শরীর ধরিব ॥ এ নহে ক্ষত্রিয়ধৰ্ম্ম শুন মহারাজ । প্রাণপণ চেষ্টায় সাধিব নিজকাজ ॥ শুন মহারাজ তুমি নাহি কর ভয় । চারি বীরে মারিব বিপক্ষ চুরাশয় ॥ এই তিন থাকিতে তোমার কেন ডর । পুনরপি চারি বীর করিব সমর ॥ হয় ধনঞ্জয়ে জিনি পুনঃ রাজ্য পাব । নহে বা সমরে পড়ি সদ্য স্বগে যাব ॥ হেন জানি দুর্য্যোধন রণে দেহ মন । চারি মহাবীরেতে করিব মহারণ ॥ হেন কথা শুনি বলে রাজা দুৰ্য্যোধন । শুন মহারথী সব আমার বচন ॥ প্রাণেতে পীড়িত আমি শুন চারি বীর । অস্ত্রাঘাতে ভগ্ন মম সকল শরীর ॥ রণ জিনিবারে যদি করিয়াছ মন । আজি নিশি বঞ্চিয় করিব কালি রণ ॥ এই কথা আলাপে আছেন চারিজন । পক্ষী মারিবারে ব্যাধ গেল সেই বন ॥ ভীমের তোষণ লাগি মৃগয়া করিয়া । সেই হ্রদে জলপানে গেল মৃগ লৈয়া ॥ সেই ব্যাধ শুনিল সকল সমাচার । ব্যাধ বলে বড় কৰ্ম্ম হইল আমার । যাহারে খোজেন সদা রাজা যুধিষ্ঠির T হ্রদে পলাইয়া আছে সেই কুরুবীর । যুধিষ্ঠিরে কহিলে এ সব বিবরণ। আনন্দিত হইবেন পাণ্ডুর নন্দন ॥ এত ভাবি ব্যাধগণ হরষিত মনে । দ্রুতগতি নিবেদিল ভীমের চরণে ॥ ভীমসেন শুনি হ’ল হরষিত মন । ধৰ্ম্মরাজ যুধিষ্ঠিরে কহিল তখন ॥ জলমধ্যে আশ্রয় করিল দুর্য্যোধন। কুলের কলঙ্ক পাপ বড়ই দুর্জন ॥ ভীমের বচন শুনি রাজা যুধিষ্ঠির । ভ্রাতৃবন্ধু সহ রাজা আনন্দে অস্থির ॥ যথা আছে জলমধ্যে রাজা দুৰ্য্যোধন । তথাকারে সর্বব বীর করিল গমন ॥ কৃষ্ণে আগু করি সবে তথা গেল চলি । পাণ্ডুর নন্দন সব বলে মহাবলী ॥ সৈন্য সহ চলিলেন রাজা যুধিষ্ঠির । যথ জলমধ্যে আছে দুর্য্যোধন বীর । কটকের নিনাদ হইল বিপরীত । শব্দ শুনি চারি বীর হৈল বড় ভীত ॥ কৃপ্ল কৃতবৰ্ম্ম বলে হইল অকাজ । সৈন্য সহ আইলেন যুধিষ্ঠির রাজ ॥ কি করিব মহারাজ বলহ উপায় । কোন আজ্ঞা হয় দুর্য্যোধন কুরুরায় ॥ দুৰ্য্যোধন বলে হও তোমরা অন্তর । আমি মায়া করি থাকি জলের ভিতর ॥ রাত্রি অনুসারে সবে হ’বে এক স্থানে । যুধিষ্ঠিরে মারি পুনঃ সাধিব সম্মানে ॥ রাজার বচনে চলি গেল তিনবীর । নরপতি ডুবাইল সলিলে শরীর ॥ তিন জন বনমধ্যে করিল নিবাস । রাজারে স্মরিয়া ঘন ছাড়িল নিশ্বাস ॥ নানা শোকে সন্তাপ করয়ে তিন বীর । হেনকালে তথা আইলেন যুধিষ্ঠির । হ্রদতীরে যুধিষ্ঠির কৃষ্ণে জিজ্ঞাসেন । জল মধ্যে দুৰ্য্যোধন কিমতে আছেন " _