পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৬৮৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


_গদাপর্ব । ] ধৰ্ম্মরাজ-বাক্য শুনি বলেন শ্ৰীহরি। মায়াবন্ত দুর্য্যোধন আছে মায়া করি ॥ রলের প্রভাবে আছে সেই দুরাচার। উপায়েতে রাজা দেখা পাইবে তাহার ॥ মায়া করি ইন্দ্র সব দানবে দলিল । বামন হইয়া হরি বলিরে ছলিল ॥ উপায়েতে কার্য্য সিদ্ধ করে বিজ্ঞজনে । চিন্তহু উপায় রাজা আমার বচনে ॥ তোম হৈতে অভিমানী বড় দুৰ্য্যোধন । সহিতে না পারে কভু নিন্দার বচন ॥ মহাভারতের কথা সমান পীযুষ । যাহায় শ্রবণে নর হয় নিষ্কলুষ ॥ বলদেবের তীর্থযাত্রা বিবরণ । জন্মেজয় বলিলেন কহ মুনিবর। তীর্থযাত্রা করিলেন কেন হলধর ॥ কহেন বৈশম্পায়ন শুনহ রাজন । তীর্থযাত্রা কথা কহি ইথে দেহ মন ॥ নৈমিষকাননে শৌনকাদি মুনিগণ । বসিয়া করেন মহাভারত শ্রবণ ॥ ঐসুত গোস্বামী গ্রন্থ করেন পঠন। মুনি ষাটি সহস্ৰেক করেন শ্রবণ ॥ ব্যাদাসনে বসিয়া কথক সূত মুনি । কহেন ভারত-কথা বিজ্ঞ চুড়ামণি ॥ এই কালে সেখানে গেলেন বলরাম । মুনিগণ সাদরেতে করেন প্রণাম ॥ মুনিগণ দিল তারে দিব্য কুশাসন । পরস্পর হইল কুশল জিজ্ঞাসন ॥ সুত মুনি বসিয়াছে আসন উপর । রামে অভ্যর্থন না করিল মুনিবর ॥ মনে করে সর্ব মুনি নিত্য মোরে সেবে । সবায় প্রণাম করে আলি বলদেবে ॥ বিশেষ আছি যে ব্যাস আসন উপর । যম সমাদর যোগ্য নহে হলধর ॥ এই বিবেচনা করি রছিল আসনে । গমাদর না করিল রেবতীরমণে ॥ নীলারবিন্দং বামেন পাণিনা বিপ্রতীং সদা ॥ বলরাম জানিয়া সূতের অহঙ্কার । মনে মনে করিলেন এমত বিচার ॥ কোন ছার সূত না করিল সম্বৰ্দ্ধন । মারিব উহারে দেখি রাখে কোনজন ॥ ওরে সূত নরাধম অতি নীচ জাতি । এবে জানিলাম আমি তোমার প্রকৃতি ॥ সমাদর আমারে না কর অহঙ্কারে । মনে কর বসিয়াছ আসন উপরে ॥ এখনি মারিব তোরে সবার সাক্ষাতে । নিজ কৰ্ম্ম দোষেতে ঠেকিলি মম হাতে ॥ সূত বলে শুন প্রভু বচন আমার । অপরাধ করিনু কি অগ্ৰেতে তোমার ॥ ব্যাসের আসনে আমি আছি যে বসিয়া । কিমতে উঠিব আমি তোমারে দেখিয়া ॥ ব্যাসাসনে থাকিয় উঠিলে হয় দোষ । এই হেতু মোরে নাথ না কর আক্রোশ ॥ সূত যদি এতেক কহিলা হলধরে । কম্পমান হইয় উঠেন ক্রোধভরে ॥ কাদম্বরী পানেতে পূর্ণিত ভুলোচন । প্রভাতের ভানু যেন লোহিত বরণ ॥ যুগল অধর কোপে কঁপে থর থর । কদম্ব-কুসুম যেন হৈল কলেবর ॥ বসিয়া ছিলেন রাম দেন এক লম্ফ । দেখিয়া রামের কার্য সবাকার কম্প । প্রলয়ের মেঘ জিনি দারুণ গর্জন । ক্ষিতি টলমল করে কাপে নাগগণ ॥ দিগগজ কাতর হৈল সমুদ্র উথলে । সকল পৰ্ব্বত নড়ে রাম কোপানলে ॥ হলে আকৰ্ষিয় সূতে আনিয়া নিকটে । খড়গ দিয়া কাটেন মস্তক এক চোটে ॥ দেখি হাহাকার করে যত দেবগণ । কি হ’ল বলিয়া সবে করয়ে রোদন ॥ , হায় হায় করিলেন তপস্ব সমাজ । সবে বলে রাম না করিলে ভাল কাজ । ব্ৰহ্মবধ তোমারে হইল মহাশয় । করিলে দারুণ কৰ্ম্ম পাপে নাহি ভয় ॥