পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৭২৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


b'):R মৎস্তাবতারের ধ্যান—ওঁ নাভাধো রোহিত সম— । [ মহাভারত । আপনি সে সব কথা, অবশ্য আছেন জ্ঞাতা, তবে কেন শোকে দেহ মতি । জীবন মরণ যোগ, সুখ দুঃখে ভোগাভোগ, - কৰ্ম্মফলে হয় সে সঙ্গতি ॥ সহজে দুৰ্ম্মতি জন, রাজা হ’য়ে দুর্য্যোধন, সাধুজন-বচন না শুনে । দুঃশাসন মহাবীর, শকুনি পাপেতে ধীর, বুদ্ধি দিল কৌরব-নন্দনে ॥ কর্ণ বলিলেন যত, তাহে মাত্র অভিরত, কার বেলি না শুনিল কাণে । ভীষ্মদেব বুঝাইল, কণে তাহা না শুনিল, গান্ধারীর বাক্য নাহি শুনে ॥ গুরুজন বলে যত, উপহাস করে তত, এ জনের কেমনে কল্যাণ । দ্রোণ কৃপ বিধিমতে, প্রবোধ দিলেন ভৃগুরাম ॥ পাণ্ডবে মাগিল গ্রাম, আসিলেন ঘনশ্যাম, নীতি বুঝাইল নারায়ণ । অসম্মত ফুৰ্য্যোধন, কেবল মাগেন রণ, কেন নাহি ত্যজিবে জীবন ॥ না শুনে ব্যাসের বাণী, অহঙ্কার মনে গণি, ধৰ্ম্মপথ পরিহরি দূরে । আপনি মধ্যস্থ হৈল, কত তীরে বুঝাইল, দৈবে যাবে শমনের পুরে ॥ পাশা খেলাইল যবে, শকুনি কহিল তবে, সৰ্ব্ব ধন হারিল পাণ্ডব । কিংজিতং কিজিতং বলি,হইল যে কুতুহলী, কেন তাহ না ভাব কৌরব ॥ ক্ষিতির করিয়া ক্ষয়, শক্রর বাড়ালে জয়, পুত্ৰগণ মরিল অকালে । তুমি কেন শোক কর, কি কারণ লোটাও ভূতলে ॥ পুত্ৰ তব মহাবলী, জ্বলন্ত অনল কেন, বসনে বাধিয়া আন, সে অগ্নিতে দহিবে শরীর। এ সব আপন দোষে,কহি রাজা তব পাশে, তাহে দোষ নাহিক বিধির ॥ স্বহৃদ বচন ঠেলি, রাজ্যলোভ করিল দুৰ্জ্জয় ॥ পূৰ্ব্বাপর না ভাবিল, অগ্নিতে পতঙ্গ হৈল, সঞ্জয়ের বাক্য শুনি, বুঝাইল বিহ্বরেতে, ' আমার বচন ধর, । জানিয়া করিলা পাপ শেষে পাও মনস্তাপ, অনুশোচ না কর তাহাতে । আপনার কৰ্ম্ম যত, বিজ্ঞজন মুগ্ধ হন তাতে ॥ ফল হয় অনুগত, . তাহাতে হইল বংশক্ষয় ॥ স্তব্ধ হৈয়া নৃপমণি, অতি দীর্ঘ ছাড়িল নিশ্বাস । বিদুর পণ্ডিত গুরু, উপদেশে কল্পতরু, , নৃপতিরে করিল আশ্বাস ॥ উঠ উঠ মহারাজ, সকলি বিধির কাজ, সবার মরণ মাত্র গতি । যত দিন নিয়ত যার, সেই দিন মৃত্যু তার, তাহা নাহি ঘুচে মহামতি ॥ মহা মহা বীর মরে, নিত্য যায় যমঘরে, মৃত্যু বশ সব চরাচর । সকল সংহারে কাল, নাহি তার কালাকাল, অনুশোচ করহ অন্তর ॥ পূৰ্ব্ব কথা মনে কর, শুন ওহে নৃপবর, শকুনি খেলিল যবে পাশ । সেই অনর্থের মূল, বিনাশিল কুরুকুল, হাসি তুমি করিল জিজ্ঞাস। ॥ পাসরিল সেই বাণী, শুন অন্ধ নৃপমণি, সে কথা নাহিক তব মনে । এখনি ভাবহ শোক, নিন্দিবেক সৰ্ব্বলোক, এই দশা হইল এক্ষণে । ক্ষত্রিয় নিধন করি, সম্মুখ সমরে মরি, সবে গেল বৈকুণ্ঠ ভবনে । এখন ত্যজহ শোক, আমার বচন রাখ, দুঃখ ভাব কিসের কারণে ॥ জীর্ণ বস্ত্র পরিহরি, যেন নব বস্ত্র পরি, তেমতি শরীর পরিবর্ত । কেহ মরে গর্ভবাসে, কেহ মরে দশমাসে, ক্ষিতিস্পর্শে হইয়া নিবর্ত ॥