পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৭৬৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শক্তিপৰ্ব্ব । ] আর যেই বর ইচ্ছা মাগ মম স্থানে । শুনিয়া কছেন রাম পিতার চরণে ॥ যদ্যপি আমায় পিতা তুমি দিবা বর। জীউক আমার মাতা চারি সস্তুহাদর ॥ এত শুনি সৌম্যদৃষ্টে চাহি তপোধন। ভাৰ্য্যা সহ জীয়াইল চারিটি নন্দন ॥ মাতৃবধ সঞ্চারিল রামের শরীরে । না খসে হাতের টাঙ্গি পড়িল র্যাপরে ॥ .কহ তাত কি হইবে ইহার প্রকার । হাত হৈতে টাঙ্গি কেন না খসে আমার ॥ এত শুনি ধ্যান করি মহা তপোধন । ক্ষণেক চিন্তিয়া বলে শুনহ নন্দন ॥ মাতৃবধ-পাপ তাত দুষ্কর সংসারে । দৈবযোগে সঞ্চারিল তোমার শরীরে ॥ নিরাহারী ব্ৰতী হ’য়ে এক সম্বৎসর । মান অহঙ্কার ত্যজি শিরে জটাভার a সংসারের যত তীর্থ করহ ভ্ৰমণ । তবেত তোমার পাপ হইবে মোচন ॥ পৃথিবীর যত তীর্থ করিয়া ভ্রমণ । তবেত যাইবে তাত কৌশল ভুবন ॥ বিষ্ণুৰ্যশ নামে দ্বিজ জগতে বিদিত। তাহার বাটতে গিয়া হবে উপনীত ॥ জিজ্ঞাসা করিবে তারে ইহার প্রকার । তবেত হস্তের টাঙ্গি খসিবে তোমার ॥ " শুনিয়া বিলম্ব আর কিছু না করিল। তীর্থ পৰ্য্যটন হেতু সত্বরে চলিল ॥ গয়া গঙ্গা বারাণসী করিয়া ভ্রমণ । তদন্তরে প্রভাসেতে করিল গমন ॥ তদন্তরে মানসরে করিল গমন । বিন্দুক্ষেত্রে বিন্দুসর করিল ভ্রমণ ॥ উভয় পথেতে যত যত তীর্থ ছিল । একে একে ভূগুরাম সকল ভ্ৰমিল ॥ পশ্চিম দ্বারকা অাদি যত তীর্থগণ । প্রদক্ষিণ করি সব করেন ভ্রমণ ॥ দক্ষিণ দিকেতে আসি হৈল উপনীত । , যত তীর্থ দক্ষিণেতে না হয় বর্ণিত ॥ কপালখটাঙ্গধরম্ ঘন্টাডমরুবাদিনম্। . จ๕จ ইন্দ্রছুক্ষ্ম সরোবর সরযু কেদার। গোদাবরী বৈতরণী রেব নদী আর ॥ । একে একে সৰ্ব্ব তীর্থ করিল ভ্রমণ । জনকের বাক্য তবে হইল স্মরণ স্থা সত্বরে চলিয়া গেল কৌশল নগরে । উপনীত হৈল গিয়া বিষ্ণুযশ ঘরে । ভয়ঙ্কর মূৰ্ত্তি রামে দেখি দ্বিজবর। জিজ্ঞাসা করেন আসি রামের গোচর ॥ বিলীর্ণ শরীর কেন মলিন বদন। মেঘেতে আচ্ছন্ন যেন রবির কিরণ ॥ এত শুনি রাম করিলেন নিবেদন । যেই মত জননীরে করিল নিধন । যেই মতে স্বহস্তে কাটিল ভ্রাতৃগণ । পুনশ্চ পাইল তারা যেমতে জীবন ॥ একে একে সকল করিল নিবেদন । | শুনিয়া হইল দ্বিজ সবিস্ময় মন ॥ হৃদয়ে ভাবিয়া তবে বলিল বচন । খসিবে হস্তের টাঙ্গি শুন দিয়া মন ॥ ব্ৰহ্মহদে গিয়া স্নান করহ ত্বরিত । তবেত হস্তের টাঙ্গি হুইবে স্থলিত ॥ সেই সে হ্রদের কথা শুন দিয়া মন । ব্ৰহ্মার স্বজন সেই অদ্ভুত গঠন ॥ চক্রাকারে ঘুরে জল ঘুর্ণমান-বায়ু । সেই হ্রদে যেই স্নান করিবারে যায় ॥ • দৃষ্টিমাত্র জল তার উঠে উথলিয়া । ডুবায়ে মারিতে বারি যায় খেদাড়িয় ॥ পুণ্য আত্মা হয় যদি পায় সে জীবন। সে কারণে তথায় না যায় কোন জন ॥ পূর্বের বৃত্তান্ত আছে ব্ৰহ্মার নিয়ম । | নারদের মুখে শুনি বাড়িল সন্ত্ৰম । ব্ৰহ্মঋষি স্থতপ নামেতে তপোধন । ব্ৰহ্মলোকে গিয়া ঋষি দিল দরশন ॥ বসিয়াছে প্রজাপতি সভার ভিতর। মেনকা অপলর যায় শূন্যে করি ভর ॥ পরম মুন্দরী কন্থা মোহে ত্ৰিভুবন । দেখি ইেটমুখ কৈল প্রজাপতিগণ ॥