পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৮৪২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


bురిం বরাভয়যুতাং সুরেৎ গৌরবর্ণাং মহাদেবীং নানালঙ্কারভূষিতাম্। মহাভারত। -o অহঙ্কারে হয়ে মত্ত, না বুঝিনু ধৰ্ম্মতত্ত্ব, - বিনাশ করিমু জন্মদাতা । প্রবেশিয়ী রসাতলে, নাগে জিনিলাম বলে, মনি আনি না দেখিলু মাথ ॥ আদি অন্ত বিবরণ, করিলাম নিবেদন, কে লইল হরি পার্থশির । আমি আপনার প্রাণ, না রাখিব ভগবান, ভাল হৈল এলে যদুবীর ॥ এত বলি বক্রবাহ, ত্যাজিয়া সকল মোহ, দিব্য অস্ত্র লইল তখন । নৃপতির হাতে ধরি, বারণ করেন হরি, না মরিও অর্জন নন্দন ॥ মহাভারতের কথা, শুনিলে ঘুচয়ে ব্যথা, কলির কলুষ হয় নাশ । কমলাকান্তের স্থত, হেতু স্থজনের প্রীত, বিরচিল কাশীরাম দাস ॥ মণিম্পর্শে অর্জনাদির জীবন প্রাপ্ত ও তাম্রধবজের সঙ্গে যুদ্ধ । শ্ৰীজনমেজয় বলে শুন তপোধন । কি প্রকারে পাইলেম অর্জুন জীবন ॥ সে সকল কথা এবে কহ মহাশয় । তোমার প্রসাদে শুনি খণ্ডুক সংশয় ॥ বলেন বৈশম্পাখন শুন নরপতি । কহি যে তোমারে আমি সে সব তারতী ॥ নিজ পরিচধ দিল শ্ৰীবত্রুবাহন । করিলেশ গাস্ব:প তাহারে নারায়ণ ॥ গোবিন্দ হলেন মুণ্ড হরিল যে জন । তাহার মস্তক খসি পড়কে এখন । অর্জনের মুণ্ড আসি স্কন্ধেতে লাগুক । ইহা কহিলেন কৃষ্ণ হ’য়ে সকৌতুক ॥ তবে সে দুজনার মস্তক খসিল । বভক্রবাহ রাজা তাহা নয়নে দেখিল ৷ বৃষকেতু অর্জুনের মস্তক লইয়া । অনন্ত্র আপনি আসে সানন্দ হইয়া ॥ حيحسدح– দোহাকার স্বন্ধে মুণ্ড করিল যোজন । অমৃত আপনি ছড়াইলা নারায়ণ ॥ প্রাণদান পায় সবে মণির পরশে । রাখিলেন কৃষ্ণচন্দ্র আপনার পাশে ॥ হস্তী ঘোড়া আদি যত ছিল মৃতলোক । "মণি হৈতে প্রাণ পায় দূর হৈল শোক । উঠিয়া বলি যত নৃপতিকুমার। মহাশব্দে সৈন্য সব বলে মার মার ॥ যদুমণি মণি দেন অনন্তের স্থানে । মণি ল’য়ে গেল নাগ আপন ভবনে ॥ গোবিন্দ বলেন শুন অৰ্জ্জুন তনয় । ক্ষত্ৰধৰ্ম্ম আচরিলা নাহি ধৰ্ম্মভয় । অপরাধ বলি তুমি ন ভাবিহ মনে । ক্ষঞ্জিয় প্রধান কৰ্ম্ম সম্মুখ সংগ্রামে ॥ অর্জনেরে বুঝাইয়া কহিলেন হরি । বভক্রবাহনেরে তোষ আলিঙ্গন করি ॥ কৃষ্ণবাক্যে ধনঞ্জয় সম্প্রীতি পাইয়া । বভ্রবাহে তুষিলেন আলিঙ্গন দিয়া ॥ আমার নন্দন তুমি বড় বলবান । ত্রিভুবনে বীর নাহি তোমার সমান ॥ সম্প্রীতি পাইয়া সবে দিল আলিঙ্গন । সবে বলে যোদ্ধা বড় শ্ৰীবক্রবাহন ॥ প্ৰণমিয়া বক্রবাহ কহে যোড়হাতে । একদৃষ্টে নিরীক্ষয়ে পাণ্ডবের নাথে ॥ অনুশাল্ব দৈত্য সঙ্গে কৈল আলিঙ্গন । সবে বলে ধন্য ধন্য অর্জুন নন্দন ॥ চিত্রাঙ্গদ উলুপী গেলেন অন্তঃপুরে । কৃষ্ণ হেথা কছিলেন বক্রবাহনেরে ॥ তুরঙ্গ রাখিতে যাহ অৰ্জ্জুন সংহতি । সৈন্যগণ সঙ্গে লহ ঘোড়া আর হাতী ৷ বক্রবাহ রাজা তবে হরষিত চিতে । তুরঙ্গ রাখিতে গেল অর্জুনের সাথে । লক্ষ ধেনু সেখানে ব্রাহ্মণে দিল দান । তুরঙ্গ লইয়া বীর করিল প্রয়াণ ॥ এই বিবরণ রাজা কহিমু তোমারে । আর কি বলিব রাজা বলহ আমারে ।