পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৮৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আশ্রমিকপর্ব। ] নবদ্বীপচন্দ্রের ধ্যান—স্বধুস্তাচারুতীরে, স্ফরিতমতিরহৎ— ৮৫৯ নিজ নিজ বান্ধব পাইয়া দরশন। আনন্দ-সাগরে ভাসিলেন সৰ্ব্বজন । ধৃতরাষ্ট্রে দিব্যচক্ষু দিলা মুনিবর। আত্মীয় সকলে দেখে অন্ধ নৃপবর ॥ আনন্দ-সাগরে ভাসে কুরু নরপতি । হরিষে চক্ষুর জলে তিতে বসুমতী ॥ দুৰ্য্যোধন আদি এক শত সহোদর । প্ৰণমিয়া দাণ্ডাইল অন্ধের গোচর ॥ পুত্ৰগণ কোলে করি অম্বিকানন্দন । অনিমিষ নয়নে করয়ে নিরীক্ষণ ॥ আলিঙ্গন শিরোস্ত্রীণ বদনে চুম্বন । মনের মানসে করে কথোপকথন ॥ ভীষ্ম দ্ৰোণ ভগদত্ত শল্য নরপতি । কর্ণ ভূরিশ্রব জয়দ্ৰথ মহামতি ॥ ধৃতরাষ্ট্র নিকটে বসিল সৰ্ব্বজন । কানন ভিতরে হৈল হস্তিনাভুবন ॥ পুৰ্ব্বমত সভা করি বৈসে অন্ধরাজ । পাত্রমিত্ৰ ইষ্ট বন্ধু সকল সমাজ ॥ ব্যস্ত হ’য়ে গান্ধারী ধরিল পুত্ৰগণে । প্ৰণমিল শত পুত্র মায়ের চরণে ॥ শত পুত্র কোলে করি স্থবল-নন্দিনী । হরিষে চক্ষুর জলে তিতিল মেদিনী ॥ ৮ ঘন ঘন চুম্ব দেন পুত্ৰগণ-মুখে । অনিমিষ নয়নে পুত্রের মুখ দেখে ॥ আনন্দ-সাগরে সবে হইল পূর্ণিত। অন্য অন্য কহে কথা মনের পীরিত ॥ পুলকে পূর্ণিত পঞ্চ পাণ্ডুর নন্দন । খণ্ডিল সকল তাপ আনন্দিত মন ॥ ভীষ্ম দ্রোণ চরণে করিল নমস্কার । মন্দ্ররাজে সম্ভাষে মাতুল আপনার ॥ কর্ণেরে প্রণাম করে পঞ্চ সহোদর । আনন্দে চক্ষুর জল বহে খরতর ॥ ভ্ৰাতৃগণ সঙ্গে কৰ্ণ করি আলিঙ্গন । কুন্তীর নিকটে গেল ভাই ছয় জন ॥ প্ৰণাম করিল কর্ণ কুন্তী-পদতলে । আনন্দে ভাসিল কুন্তী পুত্র নিল কোলে । ঘন ঘন চুম্ব দেন বদনকমলে । বার বার অনিমিষ নয়নে নেহ’লে ৷ খণ্ডিল সকল পাপ আনন্দিত মনে । কোলে করি বৈসে কুন্তী পুত্র ছয় জনে ॥ কথোপকথন করে মনের হরিমে । সব পাসরিল যত দুঃখ শোক ক্লেশে ॥ বৃষসেন আদি যত কর্ণের কুমার । ঘটোৎকচ অভিমনু্য পঞ্চপুত্র আর ॥ নিকটে আসিয়া সবে হৈল উপনীত । পাঞ্চাল বিরাট বন্ধুগণের সহিত ॥ পুত্ৰগণ পেয়ে কুন্তী হৃদয়ে লইল । । হরিষে নয়নজলে স্নান করাইল ॥ ঘটোৎকচ পেয়ে তবে ভীমসেন বীর । আলিঙ্গন করি ভীম পুলক শরীর ॥ অভিমনু্য করি কোলে বীর ধনঞ্জয় । আসিয়া স্থভদ্রা দেবী পুত্র কোলে লয় ॥ মাতা পিতা সম্বোধিয়া অভিমনু্য রথী । পরীক্ষিত পুত্র কোলে নিল শীঘ্ৰগতি ॥ বসিল উত্তরাদেবী অভিমত্যু পাশে । নানা কথা আলাপন করে পরিতোষে ॥ দুৰ্য্যোধন আদি করি ভাই শত জন । পঞ্চ ভাই পাণ্ডব করিল সম্ভাষণ ৷ পূৰ্ব্বমত শক্রভাব নাহিক এখন । অন্য অন্য সম্ভাষা করয়ে হৃষ্টমন ॥ পঞ্চ পুত্র পেয়ে তবে দ্রুপদ-কুমারী । আনন্দে পূর্ণিত হৈল পুত্র কোলে করি ॥ ধৃষ্টদ্যুম্ন শিখণ্ডী দ্রুপদ নরপতি । ভ্ৰাতৃ জ্ঞাতি দেখি কৃষ্ণ আনন্দিত মতি ॥ করযোড়ে প্রণমিল পিতার চরণে । যথাবিধি সম্ভাষা করিল ভ্রাতৃগণে ॥ ধরিয়া পিতার হস্ত দ্রৌপদী সুন্দরী । শোক দুঃখ সম্বরে বিলাপ বহু করি ॥ আনন্দে পূর্ণিত মনস্তাপ গেল দূরে । নানা কথা আলাপন হরিষ অস্তরে ॥ দ্রুপদ বিরাট আদি যত বন্ধুগণ । পঞ্চভাই পাণ্ডব করিল সম্ভাষণ ॥