পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৯১৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Ե-ՏԵ লক্ষণ পড়িল যবে রাবণের শেলে । ক্ৰন্দন করেন রাম ভাই ল’য়ে কোলে ৷ সেইমত কান্দিলেন ভীমে কোলে লৈয়া । হিমে তনু কাপে তবু ব্যাকুল কান্দিয়া ॥ প্রবোধ করিতে আর নাহি কোনজন । ধৰ্ম্মরাজ করিলেন অরণ্যে রোদন ॥ জননীরে স্মরিয়া কহেন শোক পাই । এ হেন দুঃখীরে কেন গর্ভে দিলে ঠাই ॥ শৈশবে মরিল পিতা না পড়ি সে শোকে। পিতামহ ভীষ্মদেব পালিল সবাকে ॥ হিংসা হেতু বিষলাডু, ভীমে খাওয়াল । পাপ দুর্য্যোধন যারে ভাসাইন্ম দিল ॥ উদেশ না পেয়ে কান্দে জননী আমার । সাত দিন মাতা মম কৈল অনাহার ॥ অনন্ত করিয়া কৃপা দিল প্রাণদান । তাহে না ম'রে ভাই পাইলে পরিত্রাণ ॥ দেখিবারে গোবিন্দে আইলে স্বৰ্গপুরী । ন পাইলে দেখিতে সে প্রসন্ন শ্ৰীহরি ॥ হায় বীর পার্থ কৃষ্ণ সুন্দর নকুল । হায় সহদেব বীর বিক্রমে অতুল ॥ হায় বিধি মম ভাগ্যে কি আছে না জানি । মম কৰ্ম্মে এত দুঃখ লিখিল আপনি ॥ কোন জন্মে আমার আছিল কোন পাপ । সে কারণে দহে তনু শোকেতে সন্তাপ ॥ কি করিমু কি হইল আর কিবা হয় । এত বলি কান্দিলেন ধৰ্ম্মের তনয় ॥ হায় কুন্তী পিতা পাণ্ডু কোথা গেলে ছাড়ি । হয় তুৰ্য্যোধন অন্ধ বিদুর গান্ধারী ॥ হায় ভীষ্ম কৰ্ণ দ্রাণ পাঞ্চাল-কুমারী। তোম। সবাকার শোক সহিতে না পারি ॥ হায় ভীমাভজুন হায় মান্দ্রীপুত্র ভ্রাতা । হায় কৃষ্ণ প্রাণপ্রিয়া তুমি গেলে কোথা ॥ এক দণ্ড কোথা না যাইতে আজ্ঞা বিনে । তবে অামা এক রাখি ছাড়ি গেলে কেনে ॥ সব দুঃখ যায় যদি পাপ আত্মা ছাড়ি । এত বলি কান্দিলেন ভূমিতলে পড়ি ॥ রূপমঞ্জরীর ধ্যান—গোরোচনানিন্দিনিজাঙ্গকান্তং— মহাভারত। | কতক্ষণে স্থির হইয়া ধৰ্ম্মের তনয় । ক্ৰন্দন সম্বরি রাজা ভাবেন হৃদয় ॥ | কোন পাপে বৃকোদর স্বর্গ নাহি গেল । এই কথা ভূপতির মনেতে হইল । মিথ্যা বলি দ্রোণ গুরু বিনাশিল রণে । স্বর্গে নাইি গেল ভাই ইহার কারণে ॥ এই চিন্তা করি রাজা ভাবিত অন্তরে । একান্তে গোবিন্দ চিন্তি চলেন উত্তরে ॥ ভারত পঙ্কজ রবি মহামুনি ব্যাস । যাহার চরিত্র তিন ভুবনে প্রকাশ ॥ ভীমের প্রয়াণ যেবা শুনে শুদ্ধভাবে । পরম কৃষ্ণের পদ সেইজন পাবে ॥ কাশীদাস দেব কহে গোবিন্দ ভাবিয়া । তরিবে শমন দায় শুন মন দিয়া ॥ ! যুধিষ্ঠিরের সছিত বিপ্ররূপী ইন্দ্রের ও ! কুকুররূপী ধৰ্ম্মের ছলন । মুনি বলে শুনহ নৃপতি জন্মেজয় । উত্তরাস্তে চলিলেন ধৰ্ম্মের তনয় ॥ কতদূরে দেখি গন্ধমাদন পৰ্ব্বত । যাহার সৌরভ যায় যোজনের পথ ॥ তাহে উঠি শুনিলেন স্বগের বাজনা । ভুপতি করেন মনে পূরিল কামন ॥ স্বগের দুল্লভ ভোগ সেই গিরিবরে । আরোহণ করিলেন হরিষ অন্তরে ॥ পৰ্ব্বতে দেখিল তবে ধৰ্ম্মের তনয় । অপূৰ্ব্ব মহেশ লিঙ্গ মরকতময় ॥ অত্যন্ত নির্জন স্থান লোকে মনোহর । কোটি চন্দ্র জিনিয়া উজ্জ্বল মহেশ্বর ॥ হীরা মণি মাণিক্যের মন্দির হঠাম । দেখি রাজা ভক্তিভাবে করেন প্রণাম ॥ হরিহর এক তনু ভিন্ন কভু নয় । হরিভক্ত মোরে হর হবেন সদয় ॥ এত বলি বর মাগি যান ধীরে ধীরে । কতকালে পার হব দুঃখের সাগরে ॥