পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৯৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


         চণ্ডা চণ্ডবতী-চৈব চণ্ডরাপাতি-চণ্ডিকা।
    বিচিত্রবীর্য্যের মৃত্যু ও ধৃতরাষ্ট্রাদির উৎপত্তি।
   সত্যবতী পাইয়া শান্তনু শান্তমনে।
 অনুক্ষণ ক্রীড়া করে সত্যবতী সনে।।
 কিছুকাল পরে রাজ্ঞী হৈল গর্ভবতী।
 দশ মাসে প্রসব হইল সত্যবতী।।
 পরম সুন্দর সুত মুখ কোকনদ।
 সুন্দর দেখিয়া নাম রাখে চিত্রাঙ্গদ।।
 আর কত দিনেতে দ্বিতীয় সুত হৈল।
 তার নাম তবে বিচিত্রবীর্য্য রাখিল।।
 সত্যবতী গর্ভে হৈল যুগল কুমার।
 পরম সুন্দর যেন কাম অবতার।।
 কতদিন অন্তরে শান্তনু নৃপবর।
 ত্যাজলেন অক্লেশে ভৌতিক কলেবর।।
 রাজার মরণে হৈল দুঃখী সর্ব্বজন।
 ভীষ্ম সত্যবতী হৈল শোকাকুল মন।।
 বালক কুমার দুই অভাবে পিতার।
 পালন করিল ভীষ্ম আপনি দোঁহার।।
 চিত্রাঙ্গদ উপরে ধরিল ছত্রদণ্ড।
 আপনি পালেন ভীষ্ম মহারাজ্যখণ্ড।।
 কত দিনে চিত্রাঙ্গদ হইল যুবক।
 মহাধনুর্ধর হৈল প্রতাপে পাবক।।
 দেবতা গন্ধর্ব্ব যক্ষ দৈত্য নর নাগে।
 হেন জন নাহি যুযজে চিত্রাঙ্গদ আগে।।
 হেনমতে এক রথে জিনিল সকল।
 একরথে ভ্রমে বীর পৃথিবী-মণ্ডল।।
 চিত্ররথ নামে এক গন্ধর্ব্ব ঈশ্বর।
 কুরুক্ষেত্রে তাহাকে ভেটিল নৃপবর।।
 সরস্বতী নদীতীরে হইল সমর।
 সম্পুর্ন হইল যুদ্ধ দ্বাদশ বৎসর।।
 নিজ তেজে গন্ধর্ব্ব অধিক হৈল বলে।
 চিত্রাঙ্গদ মারি গেল গগন-মণ্ডলে।।
 চিত্রাঙ্গদ বধ শব্দ হইল নগরে।
 ধরিল বিচিত্রবীর্য্য রাজছত্র শিরে।।
 তাহার বিবাহ তরে সবে চিন্তা করে।
 শুনে তবে স্বয়ম্বর কাশীরাজ করে।।
 রূপবতী তিন কন্যা আছে তার ঘর।
 হেন শুনি ভীষ্ম তবে চলিল সত্ত্বর।।
 এক রথে কাশী রাজ্যে হৈল উপনীত।
 ভীষ্ম দেখি কাশীরাজ হয় পুলকিত।।
 পৃথিবীর যত রাজা তথা বিদ্যমান।
 সভা আলো করি সবে আছে গুণবান।।
 হেনকালে বলে ভীষ্ম সভার ভিতর।
 আমার বচন শুন কাশীর ঈশ্বর।।
 আমার অনুজ আছে শান্তনু নন্দন।
 তার হেতু তব কন্যা করিব হরণ।।
 এত বলি তিন কন্যা রথে চড়াইল।
 পুনরাপি ডাক দিয়া রাজারে কহিল।।
 স্বয়ংবর হৈতে কন্যা বলে যাই ল'য়ে।
 যার শক্তি থাকে যুদ্ধ করহ আসিয়ে।।
 মাতঙ্গে তুরঙ্গে কেহ, কেহ চড়ে রথে।
 শতপুর করিয়া বেড়িল চারিভিতে।।
 শেল শূল জাঠা শক্তি মুষল মুদ্গর।
 নানা বর্ণে অস্ত্র ফেলে ভীষ্মের উপর।।
 মুহূর্ত্তেকে হৈল সব অন্ধকার প্রায়।
 না দেখায় ভীষ্মবীর আছয়ে কোথায়।।
 ক্ষিপ্রহস্ত ভীষ্মবীর গঙ্গার কুমার।
 বশিষ্ঠমুনির শিক্ষা যমের দোসর।।
 শরজালে আপনারে করে আচ্ছাদন।
 শরে শরে অস্ত্র সব করিল বারণ।।
 কাটিয়া সকল অস্ত্র গঙ্গার কুমার।
 নিজ অস্ত্রে রাজগণে করিল প্রহার।।
 কাটিল কাহার মুণ্ড কুণ্ডল সহিত।
 শ্রবণ কাটিল কারো দেখি বিপরীত।।
 শরীর ত্যাজিল কেহ ভূমিতলে পড়ি।
 রত্ন অলঙ্কার সব যায় গড়াগড়ি।।
 বাম হস্ত সহিত ধনুক গেল কাটি।
 বুকেতে বাজিল কেহ করে ছটফটি।।
 পড়িল সকল সৈন্য পৃথিবী আচ্ছাদি।
 করিল গঙ্গার পুত্র ক্ষণে রক্ত নদী।।
 বিমুখ হইল কেন না রহে সম্মুখে।
 ধন্য ধন্য ভীষ্ম বলি রাজগণ ডাকে।।