পাতা:কৃষিতত্ত্ব - নীলকমল লাহিড়ী.pdf/১১২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

de R কৃষিতত্ত্ব ধোপা পাট আলু। ইহারও সমুদয় কাৰ্য্য উক্তরূপ। এই আলুর ধোপার পাটের আকার হয়। বলিয়া এই নাম। কাসালু, চুপড়ি আলু। uDu uDuD KKBBu D DBDDBD DB S DD BBBB DBD DDBDuB བྱེ་ཁ་ལྟ་བུ།། এই আলু জঙ্গলে প্ৰায় স্বতঃ জন্মে। অনুসন্ধান করিয়া আনিলে প্ৰাপ্ত হওয়া যায় কিন্তু যত্ন পূর্বক আবাদ করিলে ফল সুখাদ্য হয় ও অধিক জন্মে। এপৰ্যন্ত এ আলুর অধিক আবাদ হইতে দেখা যায় না। শূরণ ওল । র্দোয়াস ও পলি মৃত্তিকা ইহার নিমিত্ত প্রশস্ত। খিয়ার মৃত্তিকাতেও উৎপন্ন হয়। ওল বড় হয় না। কিন্তু স্বাদ ভাল হয়। যে স্থানে নিয়ত চছায়া, সেই স্থানে এবং যে স্থানের মৃত্তিকাতে অধিক রস থাকে, সেই স্থানে ইহার আবাদ করা আকৰ্ত্তব্য। এই প্রকার স্থানের ওলে মুখ ধরে। যে ক্ষেত্রে জল বদ্ধ হইবার সম্ভাবনা আছে, স্ েক্ষেত্রে ইহা রোপণ করা। কৰ্ত্তব্য নয় । বঙ্গদেশের প্রায় সৰ্ব্বত্ৰই ইহার উত্তম আবাদ হয়। রঙ্গপুরে ইহা অত্যধিক জন্মে, এবং সুস্বাদ হয়, অথচ মুখ ধরে না। ফাস্তুন মাসের প্রথম হইতে চৈত্রমাসের প্রথমাৰ্দ্ধ পৰ্য্যন্ত রোপণের প্রকৃত সময়। তদ্ভিন্ন অন্য সময়ে ও রোপণ করা যাইতে পারে। ওলের গাত্রে বিস্তর মুখী ( বেজি) হয়। ঐ মুখী ভাঙ্গিয়া রোপণ করিলে গাছ জন্মিয় থাকে। লাঙ্গল দ্বারা ক্ষেত্ৰ সুগভীর কর্ষণ করিয়া অথবা কোদালি দ্বারা মৃত্তিকা খনন ও চূর্ণবৎ করিয়া ক্ষেত্র সমতল করিতে হইবে । গোময় ও খৈলের সার দেওয়া অবশ্য কৰ্ত্তব্য। ঘাস মুখা আদি বাছিয়া ফেলিবে। তদনন্তর দেড় ফুট ব্যবধানে সারি করিয়া এক এক সারিতে দেড় ফুট অন্তর এক একটা মুখী রোপণ করিবে। মুখীর মুখ মৃত্তিকার উপরে রাখিয়া অপর