পাতা:কৃষ্ণচরিত্র.djvu/১৪০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


૪૨ • . ? ? ; : ४: कंकप्तब्रिज ്..; পরিচ্ছেদে মহাভারম্ভ হইতে যে কৃষ্ণস্বাক্য উদ্ধৃত করা গিয়াছে, তাহ হইতে এরূপ অম্লমানই সঙ্গত যে, কংসবধের অনেক পুর্ব হইতেই তিনি মথুরায় বাস করিতেছিলেন, এবং মহাভারতের সভাপর্বে শিশুপালকৃত কৃষ্ণনিন্দায় দেখা যায় যে, শিশুপাল ঠাহাকে কংসের অঙ্গভোজী বলিতেছে--

  • যশু চানেন ধৰ্ম্মজ্ঞ তুক্তমন্নং বলীয়স । স চানেন হত; কংস ইত্যেতন্ন মহাভূতং ।”

মহাভারতম, সভাপর্ব, ৪৯ অধ্যায় । অতএব বোধ হয়, শিক্ষার সময় উপস্থিত হইতে না হইতেই কৃষ্ণ মথুরায় আনীত হইয়াছিলেন। বৃন্দাবনের গোপীদিগের সঙ্গে প্রথিত কৈশোরলীলা যে উপন্যাস মাত্র, ইহা তাহার অন্ততর প্রমাণ । মথুরাবাসকালেও তাহার কিরূপ শিক্ষা হুইয়াছিল, তাহারও কোন বিশিষ্ট বিবরণ নাই। কেবল সান্দীপনি মুনির নিকট চতুঃষষ্টি দিবস অস্ত্রশিক্ষার কথাই আছে। র্যাহার কৃষ্ণকে ঈশ্বর বলিয়া জানেন, র্তাহীদের মধ্যে কেহ কেহ বলিতে পারেন, সৰ্ব্বজ্ঞ ঈশ্বরের আবার শিক্ষার প্রয়োজন কি ? তাহার উত্তরে বলা যাইতে পারে যে, তবে চতুঃষষ্টি দিবস সান্দীপনিগৃহে শিক্ষারই বা প্রয়োজন কি ? ফলতঃ কৃষ্ণ ঈশ্বরের অবতার হইলেও মানবধৰ্ম্মাবলম্বী এবং মামুঘী শক্তি দ্বারাই সকল কাৰ্য্য সম্পন্ন করেন, এ কথা আমরা পূৰ্ব্বে বলিয়াছি এবং এক্ষণেও তাহার ভূরি ভুরি প্রমাণ দেখাইব। মামুৰী শক্তি দ্বারা কৰ্ম্ম করিতে গেলে, শিক্ষার দ্বারা সেই মানুষী শক্তিকে অনুশীলিত এবং ফুরিত করিতে হয়। যদি মানুষী শক্তি স্বতঃস্ফুরিত হইয়৷ সৰ্ব্বকাৰ্য্যসাপ্লনক্ষম হয়, তাহ হইলে সে ঐশী শক্তি —মানুষী শক্তি নহে। কৃষ্ণের যে মানুষী শিক্ষা হইয়াছিল, তাহ। এই সান্দীপনিবৃত্তান্ত ভিন্ন আরও প্রমাণ অাছে। তিনি সমগ্র বেদ অধ্যয়ন করিয়াছিলেন । মহাভারতের সভাপর্বে অর্ধাভিহরণ-পৰ্ব্বাধ্যায়ে কৃষ্ণের পূজ্যতা বিষয়ে ভীষ্ম একটি হেতু এই নির্দেশ করিতেছেন যে, কৃষ্ণ নিখিল বেদবেদাঙ্গপারদর্শী। তাদৃশ বেদবেদাঙ্গজ্ঞানসম্পন্ন দ্বিতীয় ব্যক্তি তুর্লভ। - o “বেদবেদাঙ্গবিজ্ঞানং বলং চাপ্যধিকং তথা । নৃণাং লোকে হি কোহন্তোহস্তি বিশিষ্ট কেশবাদৃতে ।” মহাভারতম্, সভাপর্ক, ৩৮ অধ্যায়: ।