পাতা:কৃষ্ণচরিত্র.djvu/১৭০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


* জঞ্জ গক্ষ্য বিধিয়া, রাজগণের সহিত যুদ্ধ সমাপন করিয়া ভাতৃগণ শৰ্মা शाहहत्व জুপ্রিমে গমন করিলেন। রাজগণওঁ খ স্বস্থানে গমন করিতে লাগিলেনন এক্ষণে কৃষ্ণের কি করা কর্তব্য ছিল। ত্ৰৌপদীর স্বয়বের ফুরাইল উৎসব যাহা ছিলভাই ফুৰাইল, স্কঞ্চে পাঞ্চলে থাকিবার আর কোন প্রয়োজন ছিল না। এক্ষণে স্বস্থানে ফিরিয়া গেলেই হইত। অস্ত্যষ্ঠ রাজগণ তাছাই করিলেন, কিন্তু কৃষ্ণ তাহ না করিয়া, বলদেবকে সঙ্গে লইয়া, যেখানে ভার্গবকৰ্ম্মশালায় ভিক্ষুকবেশধারী পাগুলগণ বাস করিতেছিলেন, ' সেইখানে গিয়া যুধিষ্ঠিরের সঙ্গে সাক্ষাং করিলেন । - ? - , সেখানে তাহার কিছু কাজ ছিল না—যুধিষ্ঠিরের সঙ্গে তাহার পূৰ্ব্বে কখন সাক্ষাৎ বা আলাপ ছিল না, কেন না মহাভারতকার লিখিয়াছেন যে, “বাস্থদেৰ যুধিষ্ঠিরের নিকট অভিগমন ও চরণবদন পূর্বক আপনার পরিচয় প্রদান করিলেন।" বলদেবও ঐরূপ করিলেন। যখন আপনার পরিচয় প্রদান করিতে হইল, তখন অবশ্ব ইহা বুৰিতে হইবে যে, পূৰ্ব্বে পরস্পরের সহিত তাহাদিগের সাক্ষাৎ বা আলাপ ছিল না। কৃষ্ণ-পাণ্ডবে এই প্রথম সাক্ষাং। কেবল পিতৃম্বসার পুত্র বলিয়াই কৃষ্ণ র্তাহাদিগকে খুজিয়া লইয়া তাহাদিগের সহিত আলাপ করিয়াছিলেন। কাজটা সাধারণ-লৌকিক-ব্যবহার-অনুমোদিত হয় নাই। লোকের প্রথা আছে বটে খে, পিসিত বা মাসিত ভাই যদি একটা রাজা বা বড়লোক হয়, তবে উপযাচক হইয় তাহাদের সঙ্গে আলাপ করিয়া আইসে। কিন্তু পাণ্ডবেরা তখন সামান্য ভিক্ষুক মাত্র ; তাহাদিগের সহিত সাক্ষাৎ করিয়া কৃষ্ণের কোন অভীষ্টই সিদ্ধ হওয়ার সম্ভাবনা ছিল না। আলাপ করিয়া কৃষ্ণও যে কোন লৌকিক অভীষ্ট সিদ্ধ করিলেন, এমন দেখা যায় না। তিনি কেবল বিনয়পূর্বক যুধিষ্ঠিরের সঙ্গে সদালাপ করিয়া তাহার মঙ্গলকামনা করিয়৷ ফিরিয়৷ আসিলেন। এবং তার পর পাণ্ডবদিগের বিবাহসমাপ্তি পৰ্য্যন্ত পাঞ্চলে আপন শিবিরে অবস্থান করিতে লাগিলেন । বিবাহ সমাপ্ত হইয় গেলে, তিনি “কৃতদার পাগুবদিগের যৌতুক স্বরূপ বিচিত্র বৈদূৰ্য্য মণি, সুবর্ণের আভরণ, নানা দেশীয় মহাৰ্থ বসন, রমণীয় শয্যা, বিবিধ গৃহসামগ্ৰী, বহুসংখ্যক দাসদাসী, সুশিক্ষিত গজবৃন্দ, উৎকৃষ্ট ঘোটকাবলী, অসংখ্য রথ এবং কোটি কোটি রজত কাঞ্চন শ্রেণীবদ্ধ করিয়া প্রেরণ