পাতা:কৃষ্ণচরিত্র.djvu/৯৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


कुँशंग्निद्धे * * ففه. কালতরঞ্জিী প্রসন্নসলিল হয়। এই কৃষ্ণসলিলা ভীমনাদিনী কালস্রোতস্বর্তীর আবর্তমধ্যে অমঙ্গলভূজঙ্গমের মস্তকারূঢ় এই অভয়বংশীধর মূৰ্ত্তি, পুরাণকারের অপূর্ব স্থষ্টি । যে গড়িয়া পূজা করিবে, কে তাহাকে পৌত্তলিক বলিয়া উপহাস করিতে সাহস করিবে? 。劇 আমরা ধেমুকাস্থর (গর্দভ ) এবং প্ৰলম্বাসুরের বধ্বস্তান্ত কিছু বলিব না, কেঞ্জ উহা বলরামকৃত—কৃষ্ণকৃত নহে। বস্ত্রহরণ সম্বন্ধে যাহা বক্তব্য, তাহ আমরা অন্য পরিচ্ছেদে বলিব, এখন কেবল গিরিষজ্ঞৰ্বত্তান্ত বলিয়া এ পরিচ্ছেদের উপসংহার করিব। বৃন্দাবনে গোবৰ্দ্ধন নামে এক পৰ্ব্বত ছিল, এখনও আছে। গোসাই ঠাকুরের এক্ষণে যেখানে বৃন্দাবন স্থাপিত করিয়াছেন, সে এক দেশে, আর গিরিগোবৰ্দ্ধন আর এক দেশে । কিন্তু পুরাণাদিতে পড়ি উহা বৃন্দাবনের সীমান্তস্থিত। ঐ পৰ্ব্বত এক্ষণে যে ভাবে আছে, তাহা দেখিয়া বোধ হয় যে উহা কোন কালে, কোন প্রাকৃতিক বিপ্লবে উৎক্ষিপ্ত হইয়া পুনঃস্থাপিত হইয়াছিল। বোধ হয়, অনেক সহস্ৰ বৎসর ঐ ক্ষুদ্র পৰ্ব্বত ঐ অবস্থাতেই আছে, এবং ইহার উপর সংস্থাপিত হইয়া উপন্যাস রচিত হইয়াছে যে, শ্ৰীকৃষ্ণ ঐ গিরি তুলিয়া সপ্তাহ ধারণ করিয়া পুনৰ্ব্বার সংস্থাপন করিয়াছিলেন। উপন্যাসটা এই । বর্ষাস্তে নন্দাদি গোপগণ বৎসর বৎসর একটা ইন্দ্ৰযজ্ঞ করিতেন। তাহার আয়োজন হইতেছিল। দেখিয়া কৃষ্ণ জিজ্ঞাসা করিলেন যে, কেন ইহা হইতেছে ? তাহাতে নন্দ বলিলেন, ইন্দ্র বৃষ্টি করেন, বৃষ্টিতে শস্য জন্মে, শস্য খাইয়া আমরা ও গোপগণ জীবনধারণ করি, এবং গো সকল দুগ্ধবতী হয়। অতএব ইন্দ্রের পূজা করা কর্তব্য। কৃষ্ণ বলিলেন, আমরা কৃষী নহি । গাভৗগণই আমাদের অবলম্বন, অতএব গাভীগণের পূজা, অর্থাৎ তাহাদিগকে উত্তম ভোজন করানই আমাদের বিধেয়। আর আমরা এই গিরির আশ্রিত, ইহার পূজা করুন। ব্রাহ্মণ ও ক্ষুধাৰ্ত্তগণকে উত্তমরূপে ভোজন করান। তাহাই হইল । অনেক দীনদরিদ্র ক্ষুধাৰ্ত্ত এবং ব্রাহ্মণগণ (তাহার। দরিদ্রের মধ্যে ) ভোজন করিলেন। গাষ্ঠীগণ খুব খাইল। গোবৰ্দ্ধনও মূৰ্ত্তিমান হইয়। রাশি রাশি অল্পব্যঞ্জন খাইলেন। কথিত হইয়াছে যে, কৃষ্ণ নিজেই এই মূৰ্ত্তিমান গিরি সাজিয়া খাইয়াছিলেন। ইন্দ্ৰযজ্ঞ হইল না। এখন পাঠক জানিতে পারেন যে, আমাদিগের পুরাণেতিহাসোত্ত দেবতা ও ব্রাহ্মণ সকল ভারি বদূরাগী। ইন্দ্র বড় রাগ করিলেন। মেঘগণকে আজ্ঞা দিলেন, বৃষ্টি করিয়া বৃন্দাবন ভাসাইয়া দাও। মেঘ সকল তাহাই করিল। বৃন্দাবন ভাসিয়া যায়। গোবৎস ও ব্রজবাসিগণের দুঃখের আর সীমা রহিল না। তখন শ্ৰীকৃষ্ণ গোবৰ্দ্ধন উপাড়িয়া বৃন্দাবনের উপর ধরিলেন। সপ্তাহ বৃষ্টি হইল, সপ্তাহ তিনি পৰ্ব্বত