পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/১৪০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কোরআন শরীফ [ প্রথম পার " . . تولاذ সহজে রক্ষা পাইয়া গেল—তাহার প্রতি কৃতজ্ঞ ও প্রণত হওয়া এহুদী জাতির উচিত ছিল। ঐ ঘটনার উল্লেখে তাহাদিগকে এই মাত্র উপদেশ দেওয়া হইতেছে। সাধারণতঃ মনে করা হইয়া থাকে যে, মান্ন' ও 'ছালওয়া কোন অসাধারণ খাদ্য, বানি-এছরাইলের জন্য বিশেষ করিয়া উহ। সিনাই উপত্যক প্রান্তরে আছেমান হইতে নাজেল করা হইয়াছিল। কিন্তু বস্তুতঃ এ ধারণাটা সম্পূর্ণ অসঙ্গত, কোরআনের সহিত এ ধারণার কোনই সম্বন্ধ নাই। U}} শব্দের তাৎপৰ্য্য ৮নং টীকায় বর্ণিত হইয়াছে। এখানে উহার ' অর্থ—“দণন করিলাম” ৷ সিনাই উপত্যক প্রান্তরে সাগুদানার ন্যায় এক প্রকার মিষ্টস্বাদযুক্ত ছোট ছোট বীজবৎ পদার্থ রাত্রিকালে গাছের পাতায় ও পাথরের গায় জমিয়া থাকে, ইহাকেই—মান্ন’ বলা হয়। ফার্সি ভাষায় মান্ন'কে তোরাঞ্জবন ও গজঞ্জবীন বলা হয়। ইহারই এক প্রকারের নাম— খেশত’ বা প্রস্তর দুগ্ধ । সিনাই উপত্যকার প্রান্তর সমূহে, বিশেষতঃ -ੇ شهر خشت ওয়াদীউশশেখ প্রান্তরে বর্তমান সময়ও আরবগণ প্রচুর পরিমাণে মান্ন' সংগ্ৰহ করিয়া _St. catheriness monk বা সন্ন্যাসীদিগের মধ্যবৰ্ত্তিতায় Convent-এর যাত্রীদিগের নিকট বিক্রয় করিয়া থাকে। ইহা দুনয়ায় আদৌ কোন অসাধারণ ব্যাপার নহে। এশিয়া , ও ইউরোপের বহু স্থানে আবহমানকাল হইতে এই ‘মান্ন' উৎপন্ন হইয়া আসিতেছিল এবং এখনও হইতেছে। ইউরোপীয় পণ্ডিতগণ বহু দিন এমন কি ১৫শ শতাব্দী পর্য্যন্ত ইহার সন্ধান না জানিলেও সেমেটিক জাতিদের নিকট ইহার ব্যবহার কোনকালেই অবিদিত ছিল না। ইটালীর সিসিলী বৃন্দর মুছলমানদিগের হস্তগত থাকার সময় (৮২৭—১৯৭০ খৃষ্টান্ধ) তাহারা এখান হইতে মান্ন' সংগ্রহের ব্যবসায় খুব জোরে চালাইয়াছিল। সিসিলীর একটা পৰ্ব্বত এখনও জবলুল-মান্ন' বা মান্ন’-পৰ্ব্বত নামে অভিহিত হইয়া থাকে। ভারতের পাঞ্জাব, প্রভৃতি অঞ্চলেও এই ‘মান্ন’ পাওয়া যায় । { fästfāris Watt Fs Dictionary of Economic Products of India RscAFA Manna দ্রষ্টব্য ) । হজরত রছলে করিমের এক হাদিছে বণিত হইয়াছে— الكمأة من ال من و مائها شفاء للعين | «fts—“ কাম্মাত"এক শ্রেণীর মান্ন',-ইহার জলে চক্ষুপীড়ার নিবৃত্তি হয়।” কাম্মাত শব্দের অর্থ—এক প্রকার ভোজন যোগ্য ক্ষেত্ৰজগত ছত্রক—কোড়ক জাতীয় উদ্ভিদ, খাওয়ার উপযোগী এক প্রকার ব্যাঙ্গের ছাতা । ( বোখারী, মোছলেম, আহমদ, তিমিজী, নাছাই, এবনে মাজ)। 鼻 ۵ ی 鹽 ছালওয়া 3— ইব্রানীতে Salwim—এক প্রকারের মাংস বহুল পক্ষী, আরবগণ সাধারণতঃ ইহাকে Ju. সোমান নামে অভিহিত করিয়া থাকে। এই পার্থীগুলি এক এক মওছুমে কোথা হইতে আসে তাহ জানিতে পারা ধায় না। তাই এক দল লোকৰলিয়া থাকে যে, ঐ