পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ছুর ফতেহt [ প্রথম পার। হাদিছে বর্ণিত হইছে —তাওরাৎ, ইঞ্জিল, জবং র বা অন্য কোন আছমানী কেতবে হহর অন্তরূপ কোন ছুর নাজেল হয় নাই। (আহমদ, নাছাই প্রভৃতি) । অভিজ্ঞ পাঠকগণ একটু মনোবোর্গ সহকারে চিন্তা করিয়া দেখিলে এই হাদিছের সত্যত বিশেষরূপে হৃদয়ঙ্গম করিতে পরিবেন। 粵 aur...! বিছমিল্লাহু—এই পদের সম্পূর্ণ অর্থ–"করুণাময় কৃপানিধান আল্লার নামে (প্রবৃত্ত হইতেছি) ।” দণত বলিয়া রহমান শব্দের অর্থ করা ভুল। মুছলমান প্রত্যেক কৰ্ত্তব্য পালনের পূৰ্ব্বে এইরূপে আল্লার অস্তিত্ব এবং উহার প্রেম ও করুণা গুণের মহিমা ও ব্যাপকতার ধারণা করিবে—তৎপর সেই কাজে প্রবৃত্ত হইবে। কোআনের শিরোদেশে সৰ্ব্ব প্রথমে এই আয়তটা শোভিত হইয়াছে। পাঠকগণ দেখিতেছেন যে, আল্লার ৯৮টা গুণবাচক নামের মধ্যে কোরআনে সৰ্ব্ব প্রথমে তাহার এই রহমান ও রহিম বিশেষণ দুইটকে বাছিয়া লওয়া হইয়াছে, এবং তাহাকেই সৰ্ব্বাগ্রে বিশ্বমানবের সম্মুখে উপস্থিত করিয়াছে ! হাদিছে আছে—ইহকালে ও পরকালে যাহার অপরিসীম করুণ ও অনন্ত প্রেম সমানভাবে বিশ্বচরাচরকে ব্যাপ্ত করিয়া বিরাজমান, তিনিই রহমান ও রহিম । ( ফৎহুল বায়ান ) । এই বিছমিল্লাহ-পদে মুছলমানকে তাহীর ধৰ্ম্ম ও কৰ্ম্ম জীবনের প্রত্যেক স্তরে, আল্লার এই অনাদি অনন্ত এবং সৰ্ব্বব্যাপী প্রেমের ধ্যান ও সাধনাকে জাগাইয়া রাখিতে শিক্ষা দেওয়া হইতেছে। কোরআনের বাহক হজরত রঙ্কুলে করিম সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষা দিতেছেন— aul Gose buএ —অর্থাৎ “নিজের চরিত্রকে আল্লার গুণপুঞ্জের অনুরূপভাবে গঠন করিয়া লইতে চেষ্টা কর ।” তাহ হইলে দেখা যাইতেছে যে, মুছলমানকে সৰ্ব্ব প্রথমে আল্লার প্রেম ও দয়া গুণের আহ্ববর্তী হওয়ার জন্য সাধনা করিতে হইবে, তাহীকে এমনভাবে নিজের আখলাক বা চরিত্র গঠন করিয়া লইতে হইবে, যাহাতে সে স্থানার সকলকেই, আপন-পর নির্বিশেৰে নিৰ্ব্বিকারে প্রেমদান করিষ্ক যাইতে পারে। ২ ১4=U] আল-হাম দ-হাম্মদ শব্দের অর্থ কৃতজ্ঞতাপ্রকাশ, স্বতিবাদ, ও মহিমাকীৰ্ত্তন। আল্লার এক নাম হামিদ, অর্থাৎ মহিমাময়। আলু শব্দের Jল বা লাম সাকুল্য বাচকবর্ণ। অর্থাৎ সকল প্রকারের সমস্ত ধন্যবাদ ও মহিমা একমাত্র আল্লারই প্রাপ্য। কারণ স্বজন, পালনাদ জগতের সমস্ত কার্য্যের একমাত্র কারণ তিনি। র্তাহীরই মহিমা ও করুণার ফলে বিশ্বচরাচরের এক্তিত্ব ও স্থিতি। অতএব একজনের কার্য্যের জন্য অন্তের কৃতজ্ঞ হওয়া মহে"। i. মাদ্ৰাহ –প্রচলিত ভাষা সমূহে " আল্লাহ ” শব্দের ঠিক প্রতিশব খুজি পাওয়া গজী, বাংলা, সংস্কৃত, ফাস্ট প্রভৃতি জুগষার God, ঈশ্বর, ভগবান, খোদা প্রকৃতি তিশল্প হইতে পারে না । কারণ ঐ শব্দগুলি যুগপৎভাৰে মাছৰেন্থ প্রতিও హ్హGం, ঈশ্বর ভগবান প্রভৃতি শঙ্কের স্ত্রীলিঙ্কও হইয়া থাকে।