পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/১৯৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২য় চুরা, ১১শ রুকু ] “স্থতু কামল।” .دهد এহুদীরা বলিতেছে—“আমাদিগের প্রতি যাহা অবতীর্ণ হইয়াছে তাহাতে আমরা বিশ্বাস করিয়া থাকি।” তাহাদিগের এ দাবীও যে কত দূর মিথ্যা, তাহা এই ও ইহার পরবর্তী আয়তগুলিতে দেখান হইতেছে । তাওরাতে নবদিগকে মান্ত করার উপদেশ দেওয়া হইয়াছে, কিন্তু এহুদীরা তাহাদিগকে অমান্ত করিতে, এমন কি হত্যা করিতে একটুও কুষ্ঠিত হইল না। তাওরাতে তাওহীদ বা একেশ্বরবাদের ধৰ্ম্ম চরম দৃঢ়তার সহিত প্রচারিত হইয়াছে—কিন্তু এহুদীরা হজরত মূছার সময়ই গো-পূজায় লিপ্ত হইয়া তাওরাতের শিক্ষার চরম অবমাননা করিয়াছিল। ইহাতে জানা যাইতেছে যে, নিজেদের শাস্ত্রকেও তাহারণ " চিরকালই অমান্ত করিয়া আসিয়াছে। ৯১ শাস্ত্রের সন্মান ও সংস্কারের সন্মোহন ঃ— শাস্ত্রকে মান্ত করা বা না করার প্রমাণ স্থল—কথা নহে, কৰ্ম্ম ক্ষেত্র । জ্ঞানগত সম্মান আর সংস্কারগত সম্মোহন, এ দুয়ের মধ্যে অনেক ব্যবধান । জ্ঞানগত সম্মান প্রকাশ পায় —মাহুষের কৰ্ম্ম জীবনের প্রত্যেক স্তরে, আর সংস্কার গত সম্মোহনের পরিচয়ু পাওয়া যায়— মুখের দাবীতে, মূল্যবান জেলুদ ও যুজদানের মধ্যে, কৰ্ম্মক্ষেত্রে শাস্ত্রের ভাব ও লক্ষ্যকে নিৰ্ম্মম ভাবে বর্জন করাতে। প্রকৃত ধাৰ্ম্মিকতার সন্ধান এখানে খুব কম পাওয়া যায়, এখানে প্রবল হইয়া উঠে—ধাৰ্ম্মিকতার দাস্তিকতা ! কাৰ্য্যতঃ এহুদীরা এই অবস্থায় উপনীত হইয়াছিল। কোবৃঅান বলিয়া দিতেছে—ইহা শাস্ত্রের সম্মান নহে, রবং স্বেীপাজ্জিত সংস্কারের সম্মোহন । শাস্ত্রের নাম করণে এই সম্মোহনের মারাত্মক প্রভাবে আবিষ্ট হইয়া জাতিগণের । মরণ ঘটিয়া থাকে। অথচ অজ্ঞ লোকেরা মনে করিয়া থাকে যে, শাস্ত্র অনুসরণের ফলেই জাতির এই দুৰ্গতি ঘটিয়াছে। এই অবস্থার একটা স্পষ্ট লক্ষণ এই যে, নিজেদের সংস্কারে যখন আঘাত না লাগে, সে অবস্থায় শত শত শাস্ত্র ব্যবস্থাকে তাহারা অমান্ত করিয়া চলে এবং সে জন্য তাহদের মনে কোন বেদন বা উত্তেজনার উদ্রেক হয় না। পক্ষান্তরে শাস্ত্র-সন্মত হউক বা না হউক, যে সংস্কারটা তাহদের অন্তরে বদ্ধমূল হইয়া গিয়াছে, তাহাতে অতি সামান্ত আঘাত লাগিতে দেখিলে তাহারা অস্থির হইয়া উঠে এবং শাস্তের সম্মানের দোহাই দিয়া হুলস্থল বাধাইয়া দেয় । এহুদীদিগের উপাখ্যানের মধ্য দিয়া এই গভীর তত্ত্বট কোবৃঅানের বাহকদিগকে বলিয়া দিয়া তাহাদিগকে সতর্ক করা হইতেছে। ৯২ “মৃত্যু কামনা” – এহুদীরা দাবী করিয়া বলিত—তাহারা সকলেই বেহেশতে গমন করিবে এবং তাহারা ব্যতীত আর কোন জাতির লোক বেহেশতে যাইতে পরিবে না। এই সকল দাবীর উত্তরে এছলামের পক্ষ হইতে এহুদীদিগকে বলা হইতেছে যে, ইহার চরম মীমাংসার জন্য, আইস তোমরা আমরা উভয়, আল্লার নিকট প্রার্থনা করি—দুই দলের মধ্যে মিথ্যাবাদী যাহারা மு তাহার ধ্বংস হইয়া বাৰু! চুর জুমআর s ও ৭ মাতে এই প্রকারে এহৗগিক