পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/২০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ছুক্স ফাতেহা প্রথম পীরা ক্রমবিকাশবাদ—Thgory of Evolution—গ্রহজগৎ এবং তাঁহাতে মানুষের সন্ধান প্রভৃতি, জtধুনিক যুগের বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার। কিন্তু রব ও আলামীন শব্দের অর্থে ও টীকায় পাঠকগণ দেখিছেন যে, কোরআন ও তাহার মহিমাময বাহক বহুপূৰ্ব্বে এ সকল তথ্য বলিষা দিয়াছেন। তবে আধুনিক অভিব্যক্তিবাদের মধ্যে একটা নাস্তিকতার ধারণা জড়াইয়া আছে। কোরআন সকল যুগের সকল দেশের সমস্ত মানুষের পথপ্রদশক । সেই জন্য এখানে ঐ নাস্তিকতার প্রতিবাদ করিয়। বলা হইতেছে যে, ঐ সকল অভিব্যক্তির মূল মালেক ও বিবর্তক একজন আছেন—এবং তিনিই আল্লাহ । এওমুদ্দিন—এওম অর্থে দিন, ক্ষণ, দিন ব! রাত্রির কোন সময়, সমষ বা -তাশ্বাস ক্ষুদ্র বৃহৎ কোন অংশ। কোরআন হাদিছে, এবং প্রাচীন ও আধুনিক আরবী সাহিত্যে, এই সকল অর্থে এওম শব্দের যথেষ্ট ব্যবহার দেখা যায। (মেছ বাহুল-মুনির, মাজ মাউল-বেহার রাগেব প্রভৃতি) । আল্লার স্তাষ-বিচাব এবং তদন্তসারে মান্তষেব সৎ-অসৎ কৰ্ম্মের সহিত যথাযথরূপে প্রতিফল দানের বাবস্থা, এখনও জারী আছে, এবং কিষামতের সমযও থাকিবে । মাল্লাহ যে কেবল কিষামতের দিন বিচাব করবেন, আর তাহার পূর্ব পর্য্যন্ত দুনাট বিগরশূন্ত হইযা রহিবে, এবং আল্লাব বিচারক-গুণট। কিষামতের অপেক্ষাষ চপ করিষ বসিধ থাকিবে, এরূপ মনে করা উচিত নহে। এই জন্য আমি "সময” অর্থ গ্রহণ কবিয়াছি, কারণ ইহাই অধিকতর ব্যাপক। দুন্য। আখেরাতের সকল বিচারই ইহার মধ্যে আসিয। যাইতেছে। 'দিন' শব্দ ধৰ্ম্ম ও কৰ্ম্মফল, এই উভয অর্থেই ব্যবহৃত হইধা থাকে। আলোচ্য অধিতে উহার অর্থ হইবে “কৰ্ম্মফল” । এওম শব্দের দিবস' অর্থ গ্রহণ করিলে অধিতের মৰ্ম্ম এইরূপ হইবে —'আল্লাহ কিযমতের দিনেব. মালেক । এই প্রকার আংশিক অর্থ গ্রহণ করার ফলে বিধৰ্ম্মী লেখকগণেব পক্ষে কোআনেব উপব আক্রমণ করাব সুযোগ হইয়াছে। র্তাহার বলিতেছেন—তাহ হইলে আল্লাহ কি কিযমত ব্যতীত অন্ত সমযেব মলেক নহেন ? অন্ত সমষের মালেক কি অব কেহ আছেন ? কিন্তু আমরা পূৰ্ব্বে বলিখছি যে, আল্লাব বিচার সকল সময সমান ভাবে চলিয। যাইতেছে, সুতরাং সকল সমযেবই মালেক তিনি। এক দল লোক কাৰ্য্য-কাৰ্বণ-পারম্পয্য মাত্র স্বীকাব কবেন। আধতে মালেক শব্দ প্রধোগ দ্বারা বলিয। দেওয হইতেছে যে, কাৰ্য্য-কাবণ-পবম্পরার এই যে বিধান, তাহাবও একজন বিধাতা আছেন—তিনি আল্লাহ। " , ৪ এwU e এব।দত—এবাদত শব্দের আভিধানিক অর্থ দাসত্ব করা—আজ্ঞাবহ হওয়া । নিজের সমস্ত ইচ্ছ, সকল প্রবৃত্তি এবং সমুদয কৰ্ম্মকে অল্পার হুকুমের অধীন ও র্তাহার ইচ্ছার অনুবর্তী করিষা জীবন যাপন করাই এছলামেব এবাদত । ইযাকা' শব্দে, বিশেষতঃ তাহ ন-বোদে ক্রিযাপদেব পূর্বে ব্যবহৃত হওষধ, কৈবল্যস্থচক অর্থ—“ হে আল্লাহ ! আমরা একমাত্র তোমারই এবাদত করিতেছি ও করিতে থাকিব”—ব্যক্ত করা হইধাছে । স্বতরাং চতুর্থ আয়তের প্রথম অর্থের এইরূপ অর্থ গ্রহণ কবিতে হইবে। এেখানে বলা হইতেছে যে, s