পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/২১০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কোরআন শরীফ প্রথম পারা ، بييلا কোবৃঅানের পীচ শত আয়তকে রহিত বলিয়া নিৰ্দ্ধারণ করিয়াছেন। এ সম্বন্ধে প্রথম জ্ঞাতব্য এই যে,-“কোরআনের অমুক আয়তটা অমুক আয়ত দ্বারা মনচুখ হইয়াছে”—হজরত রছলে করিম হইতে এ সম্বন্ধে একটীও প্রামাণ্য হাদিছ বণিত হয় নাই। সুতরাং অমুক আয়তট অমুক আয়ত দ্বারা মনচুখ হইয়াছে—কেবল যুক্তির হিসাবে এইরূপ কথা বলা হইয়াছে। তাই আমাদের আলেম সমাজের মধ্যে এই যুক্তির হিসাবে মনচুখ আয়তগুলির বিচার বরাবরই চলিয়া আসিয়াছে, এবং ইহার ফলে এমাম ছয়ুতী প্রমুখ পণ্ডিতেরা স্বীকার করেন যে, উপরোক্ত পাঁচ শত আয়তের মধ্যে অধিকতর আয়ু তই বস্তুতঃ মনচুখ নহে। এমাম ছাহেবের মতে কোরআনে মাত্র ২০টা আয়ত এরূপ আছে, যাহাকে মনচুখ বলিয়া নিৰ্দ্ধারণ করা সম্ভব इइड পারে । ( এৎকান ৪৭ প্রকরণ ) । ইহার পরও আলেম সমাজ এ বিষয়ের গবেষণা পরিত্যাগ করেন নাই, এবং শাহ অলিউল্লাহ ছাহেব ইহার ফলে মত প্রকাশ করেন যে, কোরআনে মাত্র পাঁচটা আয়ত মন্‌চ্‌খ (ফওজুল কবির ) । নওয়াব ছিদ্দিকুল হাছান থা ছাহেব এই রুকু’র তফছিরে শাহ ছাহেবের অভিমত উদ্ধৃত করার পর বলিতেছেন— *- پان¢ *بھاں بھی نظر J Joy —অর্থাৎ শাহ ছাহেবের বর্ণিত এই পাঁচটা আয়ত সম্বন্ধেও বিচার করিবার বিষয় আছে । (তবৃজুমান)। মাওলানা আবদুল হক হাক্কানী ছাহেব এই বিচারে প্রবৃত্ত হইয়া এই পাচটার মধ্যে দুইটী আয়তকে মনচুখ নহে বলিয়া সপ্রমাণ করিয়াছেন । দেখ—তফছির হাক্কানী ৬—৮৪ ও ৭–৬০ পৃষ্ঠা । এই শ্রদ্ধাস্পদ আলেমগণের প্রদর্শিত পদ্ধতির অনুসরণ করিয়া বিচারে প্রবৃত্ত হইলে সহজে জানা যাইবে যে, বস্তুতঃ অবশিষ্ট তিনটা আয়তও মনচুখ নহে। যথা স্থানে পাঠকগণ ইহার আলোচনা দেখিতে পাইবেন । t এই পদে বর্ণিত “আয়ুত” বা নিদর্শন হইতে পুৰ্ব্ববৰ্ত্তী কেতাবগুলির আয়তকেই বুঝাইতেছে—কোরআনের সহিত তাহার কোনই সম্বন্ধ নাই। উপক্রম উপসংহারের ও বাস্তব fact এর প্রতি দৃষ্ট রাখিয়া কথা বলিতে হইলে ইহা স্বীকার করিতে হইবে । পরম পরিতাপের বিষয় এই যে, আয়তটীর বিকৃত ব্যাখ্যার অতুসরণে ও তফছিরের রেওয়ায়তের নামকরণে এমন কতকগুলি অতীয় ও অপ্রামাণিক কথা এই প্রসঙ্গে ব্যক্ত করা হইয়। থাকে, যাহা কোরআনের বিশ্বস্ততার বিরুদ্ধে আজ খৃষ্টান মিশনরীদিগের হাতে সৰ্ব্বপ্রধান অস্ত্রে পরিণত হইয়াছে। (১) -- હર બસ – এহুদীরা হজরতকে বলিয়াছিল—মোহাম্মদ ! তুমি আল্লাহ কে বল, “তিনি আছমান হইতে আমাদিগের জন্য একখানা কেতাব অবতীর্ণ করুন”, তাহা হইলে আমরা তাহাতে o (১) তথাকথিত গুa) ; منسو خ | لحكم আয়তগুলি সম্বন্ধে এৎকানে বর্ণিত রেওয়াকতগুলি এ ক্ষেত্রে বিশেষ উল্লেখ যোগ্য। •