পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/২৩০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ു কোরআন শরীফ [ প্রথম পার মোছাল্লা তাহারা প্রতিষ্ঠিত করিয়া লইয়াছিল। চারি মজহাবের চারজন এমাম এই চার মোছার হইতে যথাক্রমে পর পর নামাজ পড়াইয়া যাইতেন। ফলে বিশ্ব মোছলেমের সম্মিলনস্থল হওয়ার পরিবৰ্ত্তে, কা'বাই মুছলমানদিগের আত্মবিচ্ছেদের সর্বপ্রধান প্রমাণ ও প্রতিষ্ঠানে পরিণত হইয়া যায় । ক এক বৎসর হইতে রাজা এবনে-ছউদের চেষ্টায় ঐ মোছাল্লাগুলি উঠাইয়া দিয়া সকলে এখন মকামে এবরাহিমের মোছাল্লায় সমবেত হইতেছেন : এখন সকল মতের ও মজহাবের লোক একই এমামের সঙ্গে একই জমা অণতে নামাজ পড়িয়া থাকেন। ১৯৪ তওয়াফ, এতেকাফ প্রভৃতি :– তিওয়াফ অর্থে প্রদক্ষিণ । তজ উপলক্ষে বা অন্য সময় কণ’বার ‘তওয়াফ করার ব্যবস্থা আছে । ‘হ’জরে-অর্ণছঅদ হইতে আরম্ভ করিয়া সাতবার কা'বা গৃহের প্রদক্ষিণ করিতে হয়, ইহাই ‘তওয়াফ । নরনারী নির্বিশেষে মুছলমানেরা এই তওয়াকে যোগ দিয়া থাকেন, বার মাস ও ২৪ ঘণ্টাই তওয়াফ চলিতে থাকে, কোন সময় কোন অবস্থায় এক মুহূৰ্ত্তের জন্যও তাহার বিরাম হয় না। হাজার হাজার কণ্ঠের কলনিনাদে আল্লার নামের অনন্ত অফুরন্ত DDDBBBB BSBB BBB BBB BBBB BBBB BBDS KSB S BZSB BBBB DD নিজের পাপ স্বীকার এবং তজ্জন্ত র্তাহার হুজুরে ব্যাকল প্রাণে ক্ষমা প্রার্থনা করাই তওয়াফের প্রধান অঙ্গ । বাহিরের সমস্ত কোলাহল হইতে দূরে সরিয়া, সংসারের সকল বৈষয়িক ব্যাপারকে বর্জন করিয়া, নীরবে নিভৃতে আল্লার ধ্যান ধারণায়ু তন্ময় হইয়া যাওয়াকে, এছলামের পরিভাষায় এ তেকাফ বলা হয় । রোজার সময় যে এতেকাফের ব্যবস্থা আছে, অনেকেই বোধ হয় তাহ অবগত আছেন। কা'বাস্থও এই প্রকার এতেকাফের ব্যবস্থা আছে। হজরত এবরাহিম ও হজরত এছমাইলকে আদেশ দেওয়া হইয়াছিল যে, তওয়াফ এ’তেকলফ ও নামাজ নিরত সাধকদিগের জন্য আমার গৃহকে তোমরা বাহিরের ও ভিতরের সকল প্রকার কলুষ হইতে পাক ও ছাফ করিয়া রাখিবা । বাহিরের কলুষ হইতেছে ময়লা আবর্জন প্রভৃতি, আর ভিতরের কলুষ হইতেছে শেষ্ট্ৰেক বা গয়রুল্লার পুঞ্জ। বাইডুল্লাহ বা আল্লার ঘর অর্থে আল্লার এবাদৎ করার ঘর, আরবী সাহিত্য, অভিধান, অলঙ্কার ও শাস্ত্র বিধানের ইহাই সমবেত মীমাংসা । আল্লাহ মছজিদের চতুiসীমার र्भ:१] প্রতিষ্ঠিত হইয়া আছেন, ঐ পদের এ অর্থ গ্রহণ করা কোন মতেই সঙ্গত হইবে ন—অতি নিরেট মুছলমানও এ ধারণা পোষণ করিতে লজ্জিত হয়। শৃঙ্খলার সহিত সঙ্ঘবদ্ধ হওমার এবং রৌদ্র বৃষ্টি হইতে নিরাপদ হইবার জন্যই মুছলমানের মছজিদ প্রতিষ্ঠা । , আল্লার জমিনের সর্বত্রই মুছলমানের মছজিদ, হজরত রঙ্কুলে করিম স্বয়ং এ কথা ণিধান क्रिां८छ्म । । করিয়া