পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/২৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ছুর ফাতেহ । প্রথম পারা ، بيا প্রয়াস পাইয় থাকেন। দুঃখের বিষয় এই যে, এই দুই দলের পণ্ডিতেরা প্রতিপক্ষের দ্বারা উপস্থাপিত যুক্তি প্রমাণগুলি সম্বন্ধে স্থপ্রদর্শী ও ন্যায়নিষ্ঠ বিচারকের ন্যায় আলোচনায় প্রবৃত্ত না হইয়া, শক্তিশালী উকীলের ন্যায় কেবল সেগুলিকে খণ্ডন করার নিমিত্ত নিজেদের সমস্ত .জ্ঞান ও প্রতিভার সদ্ব্যয় করিয়া থাকেন। o এই দুই দল ব্যতীত আর একটা মধ্যপন্থী দলও প্রথম হইতে চলিয়া আসিতেছে। এই দলের ঐমাম ওঁ আলেমগণ, উভয় পক্ষের দ্বারা উপস্থাপিত আয়ত ও হাদিছগুলির মধ্যে সামঞ্জস্ত সাধন করিয়া বলেন যে, এমাম যখন জোরে কেবৃঅtৎ করিবেন, মোক্তাদি তখন ছুরা ফাতেহা পাঠ না করিয়া চুপ করিয়া থাকিবে এবং মনোযোগ সহকারে এমামের কেবৃক্ষাৎ শ্রবণ-করিতে থাকিবে। পক্ষান্তরে এমাম যখন মনে মনে কে আং করবেন, মোক্তাদিকে তখন ছুরা ফাতেহা নিশ্চয়ই পাঠ করিতে হইবে। নানাবিধ যুক্তিপ্রমাণ ও বহু অকাট্য দলিল দ্বারা ইহার নিজেদের দুৰী সপ্রমাণ করিয়া থাকেন। এমাম মালেক, এমাম আহমদ-বেনহাম্বল, শেখুল-এছ লাম এমাম এবনে তাইমিয়া, হাফেজ এবনে কাইয়ুম প্রমুখ বহু এমাম ও মোহীদেছ এই মতের সমর্থন করিয়া থাকেন। দুঃখের কথা, এই মতবাদটীর বিষয় আমাদের দেশের বহুলোকের অজ্ঞাত। যাহা হউক, চুরা আরাফের তফছিরে এই বিষয়টা সম্বন্ধে বিস্তারিত আলোচনা করা হইয়াছে। বর্তমানের মত এমাম এবনে তাইমিয়ার একটা মন্তব্য উদ্ধৃত করিয়া দিয়া ক্ষান্ত হইব । এমাম ছাহেব বলিতেছেন ঃ– أصرل الأقوال ثلثة " طرفان ر رسط - فاحل الطرفين أن لا يقـراً خلف الامام " بعال :_ ر الثانی نة یقارا خلف الامام بكل حال カー الثالمعی ر هو قرل اکثبر السلف ]* )lỏ سمع °莎 الامام | أصبتكا o ノ يقرأ 6 ر أذا o بیمه ه سع ;)க قرأ لنفسه 2 صعابهما 功v“テク هنا قولى جمہور العلماء كما لکی ر أحد هدن :ن حڈا-الی طائفة من اصحاب الشافعى رابى حنيفسـة - ر هر القرل القديم للشافعي رقرل اما که محلی بن الحسن - فتاریلی ابری تيمية " ب " " ص ه 0 ا ـ ا * أ و قال السه صنف أيضا - মৰ্ম্মাহুবাদ :-"এ বিষয়ে মূলে তিন প্রকার মতভেদ বিদ্যমান। ইহার মধ্যে দুইটা দুই দিককার চরম পন্থা, আর একটী মধ্যপথ । ইহার মধ্যে একট চরম-পন্থী মত এই যে, মোক্তাদি কোনও অবস্থাতেই ছুর ফতেহ পাঠ করিবে না। অন্যদিককার চরমপন্থীদের মত এই যে, -মোক্তাদিকে সকল অবস্থাতেই ফাতেহা পাঠ করিতে হইবে। এই দুইটা চরম মতের মধ্যে মধ্যপথ এই যে, মোক্তাদি যখন এমামের কেবৃঅাৎ শুনিতে পাইবে, তখন তাহাকে চুপ করিয়া থাকিতে হইবে। পক্ষান্তরে এমামের কেবৃত্মাৎ শুনিতে না পাইলে মোক্তাদিকে ফাতেহা পাঠ করিতে হইবে। ......... পূৰ্ব্ব যুগের অধিকাংশ মহাজনগণের এবং অধিকাংশ জালেমদিগের ইহাই অভিমত। শাফেয়ী ও আবু হানিফার একদল শিষ্ঠ এই মত পোষণ করিতেন এবং মোহাম্মদেরও এই মত।”....(ফাতাওয়া এবনে-তাইমিয়া ২—১৪১-৫০ পৃষ্ঠা।) ஆடன்