পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/২৪৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২য় ছুর। ১৭শ রুকু ] কেৰলাল্ল সত্যতা ই ই ৭ : y $o o AESA SAAAAS SeeSAS SSAS SSAS SSASAS SSAS SSAS SSAS SSAS SSAS TT S TAe AMM MA AeeS SS • * *= *్పతF్క* Es ةa تعبير *్క -به این بیان می التي يقة ۹- نامنیت ళ్కాతోkస్కౌూ* ** ** - * ** " + : * * بیست کیت تات" می گ= যে কেবলার দ্বারা, তাহাকে উপলক্ষ করিয়া হজরত মোহাম্মদ মোস্তফা নিজ নবীজীবনের প্রধান সাধনাকে সিদ্ধ করিতে সমর্থ হইবেন, প্রতিশ্রুত কেবল লাভে র্তাহার পরিতুষ্ট হওয়ার ইহাই একমাত্র কারণ । ইহার পরেই নুতন কেবলার আদেশ প্রদত্ত হইতেছে। ১৩৪ মছজিদুল-হারাম—মূতন কেবল — মছজিদুল-হারাম’ অর্থে কা'বা ও তৎসংশ্লিষ্ট নামাজের স্থান । সমস্ত অন্যায় অপকৰ্ম্ম ও সকল প্রকারের হিংসার কাজ এই মছজিদে নিষিদ্ধ—এমন কি, বাহিরে হারাম নহে-এরূপ অনেক কাজও সাবধানত বশতঃ এখানে হারাম করা হইয়াছে। এই জন্য উহাকে মছজিদুল-হারাম বলা হইয়াছে। ভগবার্থে উহার অর্থ “সম্মানিত-মছজিদ"ও হইতে পারে । “মছজিদের দিকে মূখ ফিরাও”—অর্থাৎ যে দিকে কা'বা আছে, তোমরাও সেই দিক পানে মুখ করিয়া নামাজ পড় । ঠিক কণ’বাকে সম্মুখে রাখিয়া নামাজ পড়িতে হইবে, আয়তের এ তাৎপৰ্য্য কখনই গৃহীত হইতে পারে না । প্রথম অর্থ উদ্বেগু হইলে a শব্দ আনিবার কোনই আবশ্যক ছিল না । হজরতের ছাহাব, ৩াবেয়ীন এবং মুছলমান পণ্ডি ংমণ্ডলীর প্রায় সকলেই একবাক্যে ইহা স্বীকার করিয়াছেন । বিস্তারিত আলোচনার জন্য তফছির কবির ( ২—২৩ হইতে ) ও হাদিছের টীকাগুলি দ্রষ্টব্য । ১৩৫ নূতন কেবলার সভ্যতা :– “যাহার কেতাব প্রদত্ত হইয়াছে”-পদে এহুদী, খৃষ্টান প্রভৃতি জাতিকে বিশেষতঃ এহুদীদিগকে বুঝাইতেছে। কারণ মদিনায় কেবলা সম্বন্ধে বিসম্বাদ প্রধানতঃ তাহারাই উপস্থিত । করিয়াছিল। ইহা তাহীদের প্রভুর নিকট হইতে সমাগত সত্য-পদে, “ইহা” সৰ্ব্বনাম, পূৰ্ব্বপদে বর্ণিত কেবল বা রছল উভয়কে বুঝাইতে পারে। তবে প্রথমটাই অধিক সঙ্গত । বলিয়া মনে হয়, কারণ আয়তে কেবল সম্বন্ধেই আলোচনা হইতেছে । " এক সময় বায়ুতুলমোকান্দছ স্থলে কা'বাই যে বিশ্বাসীমণ্ডলীর কেবলা হইবে, ইহা পূর্বেই এহুদী ও খৃষ্টানগণকে তাহাদের নবীদিগের মারফতে জানাইয়া দেওয়া হইয়াছিল। কিন্তু তাঙ্গদের মধ্যকার একদল—অর্থাৎ পণ্ডিত ও পুরোহিত দল, জ্ঞাতসারে তাঙ্গ গোপন করিয়া ফেলিতে উৎসুক ! নিজেদের মতের বিপরীত হইলে এই প্রকারে ধৰ্ম্মপুস্তকে পরিবর্তন, পরিবর্দ্ধন ও পরিবর্জন করাকে তাহারা চিরকালই Pious fraud বা সাধুপ্রবঞ্চনা বলিয়া বিশাল ও প্রকাশ করিয়া আসিতেছে । তত্রীচ বর্তমান বাইবেলে এই আয়তের যথেষ্ট সমর্থন পাওয়া যায় । সংক্ষেপে তাহার কয়েকটা নমুনা নিয়ে উদ্ধৃত করিয়া দিতেছি। (১) হগয় Haggai নবীর পুস্তকে ২য় অধ্যায়ে ম—৯ম পদে বর্ণিত হইতেছে — · I will shake all nations, and the Desire of all nations shall come : and I will fill this house with Glory, saith the Lord of hosts. ......