পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/২৫৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২য় ছুর, ১৮শ রুকু ] কেলছনার উদ্দেশ্য . ২৩৭ কষ্মের সাধনায় তাহাকে অগ্রবর্তী হইতে হইবে, চরিত্র মাহায্যে নিজকে আদশরূপে প্রতিষ্ঠিত করিতে হইবে । তাহা হইলেই সে নিজের মোছলেম জীবনে আল্লার মঙ্গলইঙ্গিতকে সফল করিয়া তুলিতে পরিবে । পক্ষান্তরে এদিক দিয়া যদি তাহীদের পতন হয়, তাহা হইলে শুধু নিজেদের কেবলার দোহাই দিয়া বড় হইয়া থাকা, অথবা নিজেদের লক্ষ্যপথে অগ্রসর হওয়া মুছলমানের পক্ষে কখনই সম্ভবপর হইবে না। ১৩৮ কেবলণর উদেশ্ব ঃ– জাতির সাধনাকে সফল করার জন্য তাহার যেমন একটা সাধারণ ও সমবেত লক্ষা থাকা দরকার, সঙ্ঘবদ্ধ জাতীয় সাধনার সফলতার ও স্থায়ীত্বের জন্য সেইরূপ একটা o नt५न्त्र- , কেন্দ্রেরও আবশ্যক। কেন্দ্র বাতীত জমাআত বা সঙ্ঘের অস্তিত্ব থাকিতে পারেন, আবার সঙ্ঘ ব্যতীত শক্তির কল্পনাও অসম্ভব । তাই কণ বাকে মোছলেম উম্মতের কেবলা করিয়া দেওয়া হইয়াছে যেন এই কাবাকে অবলম্বন করিয়া তাঙ্গর সর্বদাই সঙ্ঘবদ্ধ হইয়া থাকিতে পারে। বস্তুতঃ আত্মবিস্মৃতি ও আত্মবিচ্ছেদের এই চরম অবস্থাতেও, একমাত্র এই কণ’বাই মুছলমানকে এক অখণ্ড জাতিরূপে আজিও ধারণ করিয়া রাখিয়াছে । তাই এছলামের চরম আদেশ—কা’বার অতুসরণকারী ব্যক্তি ও জাতিদিগের মধ্যে কাহাকেও কাফের বলিতে নাই । স্তর উইলিয়ম মুয়ূর, এই উপলক্ষে নিতান্ত অসম সাহসিকতার সহিত বলিতেছেন – From this time ... Islam bounds itself up with the worship of Ka'ba, অর্থাৎ এই সময় হইতে এছলাম নিজকে কাবার পূজা করিতে বাধ্য করিয়া লইল, (১০৯ পৃষ্ঠা ) । এই প্রকার অজ্ঞতার কথা সময় সময় অন্যান্ত অমুছলমান লেখকদিগের স্থেও শুনিতে পাওয়া যায় । কিন্তু বস্তুতঃ ইতা তাহদের অজ্ঞতা বা বিদ্বেষের ফল ব্যতীত আর কিছুই নহে । পূজার জন্য কএকটা বস্তুর আবশ্বক ইয়া পাকে । প্রথমতঃ, পূজ্য বস্তুতে কোন অসাধারণ ঐশিক শক্তি ও মহিমার কল্পনা করা হইয়া থাকে । দ্বিতীয়তঃ, পূজাকারী মুখে পূজ্যবস্তুর সেই সব শক্তি ও মহিমার গুণকীৰ্ত্তন করিতে থাকে । তৃতীয়তঃ, নিজের মনকামনাকে সফল করিয়া দেওয়ার জন্য সে পূজ্যবস্তুর নিকট প্রার্থনা করিয়া থাকে। এছলামের সমস্ত সাহিত্যের এবং মুছলমানের সমস্ত ইতিহাসের মধ্যে এমন একট বর্ণ ধুজিয়া পাওয়া যাইবে না, যাহাদ্বারা ঘূণাক্ষরে ইহার কোন একটারও সামান্ত সমর্থন হইতে পারে । মুছলমান কা'বার সম্মান করে—আল্লার এবাদতের জন্য প্রতিষ্ঠিত দুনয়ার সর্বপ্রথম মছজিদ বলিয়া, তওহীদের অন্যতম সাধক হজরত এবরাহিমের স্মৃতি বলিয়া, এবরাহিমের এছমাইলের মৃছার ঈছার ও অন্যান্য নবীগণের আকুল প্রার্থন ও মঙ্গীয়লী ভবিষ্যদ্বাণীর প্রকাশস্থল বলিয়, বিশ্ব-মোছলেম জাতীয়তার একমাত্র শক্তিকেন্দ্র বঙ্গিজ। 蠱 .”