পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/২৬৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


આ૬૭ কোৱতমাল শরীক { দ্বিতীয় পারা বলিয়া দেওয়া হইতেছে ;H- বিশ্বমানবের নিকট আল্লার পরগামগুলি পৌছাইয়া দেওয়া BBBBB BBBS BBB BBBB BB BBBS BB SAAAAAS AAAAA AAAA AAASS এবং আল্লাহ ব্যতীত আর কাহাকেও তাহারা ভয় করে না ( ছুর আহজাব ৩৯ ) । ফলে তাওহীদের শিক্ষা অনুসারে, যেখানে কোন ব্যক্তি, বস্তু, বিষয় বা ভাব আল্লার নিৰ্দ্ধারিত কৰ্ত্তব্যপথ হইতে তোমাকে বারিত করিয়া রাখে, সেখানে তুমি কাৰ্য্যতঃ আল্লাহকে ত্যাগ করিয়া সেই ব্যক্তি, বস্থ, বিষয় বা ভাবকেই নিজের কৰ্ম্ম ও ভাবের নিয়ন্ত্রতা বলিয়া, খোদা বলিয়া, গ্রহণ করিয়া লও। ভয় দ্বারা তোমাদের পরীক্ষা করিব—অর্থাৎ সে সময় যাহারা আল্লাহকে ভয় করিয়া কৰ্ত্তব্যপথে অগ্রসর হয়, আর যাহারা আল্লার ভয় ত্যাগ করিয়া ও গায়রুল্লার ভয়ে ভীত হইয়া সে পথ হইতে সরিয়া দাড়ায়—সেই দুই দলকে পৃথক করিয়া দিব । ( পরীক্ষা' শব্দের তাৎপর্য্য সম্বন্ধে ১১২ টাকার শেষাংশ দ্রষ্টব্য )। ক্ষুধা-অর্থে থাষ্ঠের অভাব, রুজীর অভাবকে বুঝাইতেছে । অনেক সময় মানুষ জানিয়া শুনিয়াও সত্যকথা প্রকাশ করিতে এবং কৰ্ত্তব্যকৰ্ম্ম সম্পাদন করিতে পরায়ুখ হইয়া থাকে— কেবল পেটের দায়ে । অনেক বড় বড় উপাধিধারী ও লব্ধপ্রতিষ্ঠ আলেমকে, এছলামের ঘোর বিপদের সময় কেবল চাকরীর খাতিরে এবং নিজেদের “রুজীর মালিক”গণকে সস্তুষ্ট করার আশায়, ধর্মের সম্পূর্ণ বিপরীত ফৎওয়া প্রকাশ করিতে, কোবৃঅানের অর্থ বিপৰ্য্যয় ঘটাইতে দেখা যায়। ইংরাজী শিক্ষিত সমাজের মধ্যেও এই দুৰ্ব্বলতা পূর্ণরূপে বিদ্যমান। কিন্তু এখানে কোরআন স্পষ্ট করিয়া বলিতেছে—সত্যকার মুছলমান যে, এই পেটের দায় ও রুজীর ভয় তাহাকে মোছলেমজীবনের সাধনা হইতে কখনই স্থালিত করিতে পারে না । এইরূপে আয়তের শেষভাগে ধনজনের ক্ষতির কথা বলা হইয়াছে । জেহাদে লিপ্ত হওয়ার ফলে এই ধনজনের প্রচুর ক্ষতি হওয়া স্বাভাবিক জাকাত ও ওশর প্রভৃতি প্রদান করিতেও অনেক ধনের ক্ষতি হইয়া থাকে। so3 শব্দের অর্থ ফলশস্ত, ভগবার্থে সন্তানসন্ততির জন্যও উহার ব্যবহার হইয়া থাকে । এমাম শাফেয়ী, শাহ আবদুল আজিজ প্রমুখ পণ্ডিতেরা বলিতেছেন—ধন বলিতে ফলশস্তকেও বুঝায়, ধনের কথা প্রথমেই বলা হইয়াছে। সুতরাং আবার ৪. শব্দের ফলশস্ত অর্থ গ্রহণ করিলে দ্বিরুক্তি দোষ ঘটে। অতএব এখানে উহার অর্থ –সন্তান সন্ততি (ফংহুল বস্থান.১–২০৫, আজিজী ১-৩৮৪ প্রভৃতি) । অর্থাৎ শয়তানের সহিত সত্যুের এই যে সংঘর্ষ মুছলমান হইবে তাহার"সৈনিক, এবং সে জন্ত তাহাকে যেমন সৰ্ব্বদাই আত্মপ্রাণ উৎসর্গ করার জন্য প্রস্তুত হইয়া থাকিতে হইবে, সেইরূপ এই পরীক্ষার আহবে তাহাকে অনেক সময় বিসর্জন দিতে হইবে তাহার ধনের সঙ্গে সঙ্গে স্বজনগণকে, প্রাণাধিক সস্তানগুলিকে । এইরূপে সত্যের জন্ত আল্লার নামে নিজের যথাসৰ্ব্বশ্বকে বিসর্জন দিতে পারে যে, সেই হইবে পরীক্ষায় পাস করা সত্যনগর মুছলমান। ছাহাবাগণের জীবনইতিহাসের প্রত্যেক স্তরে আত্মবিসর্জনের এই স্বৰ্গীয় আদর্শ পরিস্ফুট হইয়া