পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/২৭৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২য় ছুর, ২০শ রুকু ] আল্লার প্রেম-লক্সপূজা ՎՇC, সুতরাং আমরা দেখিতে পাইতেছি যে, ঐ সকল নিদর্শনের দ্বারা আল্লার অস্তিত্বের প্রমাণ জ্ঞানী ব্যক্তিরাই প্রাপ্ত হইয়া থাকেন। বস্তুতঃ স্বষ্টিকে যিনি যত বেশ করিয়া দেখিতে শিখিয়াছেন, আল্লার অস্তিত্বকে তিনি ততই নিঃসন্দেহরূপে উপলব্ধি করিতে পারিয়াছেন। ছুরা আলে-এস্রানের আয়তে বলা হইতেছে যে—আল্লাহকে পাইতে হইলে জ্ঞান চাই, জ্ঞানের সঙ্গে সঙ্গে চিন্তাশীলতা চাই এবং এ সকলের পূর্বে চাই ভাবুকের মন ও মস্তিষ্কের সকল প্রান্তে সত্যকে পাইবার একটা অবিচল সঙ্কল্প, একটা জালাময় অগ্রহ । এই জ্ঞান ও চিন্তাশীলতা লইয়া, এই সঙ্কল্প ও আগ্রহকে অবলম্বন করিয়া ধ্যান ধারণায় প্রবৃত্ত , হইলে আল্লার অস্তিত্বের ও একত্বের উপলব্ধি করা সম্ভব হইতে পারে । যাহীদের অস্তকরণে এ সম্বন্ধে কোন প্রকার সন্দেহ বৰ্ত্তমান, তর্কের পথ পরিত্যাগ করিয়া তাহারা কোআনের নির্দেশ মতে ধ্যানের ও ভাবুকতার আশ্রয় গ্রহণ করুন, তাহা হইলেই সব সন্দেহ সংশয়ের নিরীকরণ হইয়া যাইবে । বস্তুজগতের বা জ্ঞানজগতের একটা সামান্য কোন কিছুকে প্রাপ, হওয়ার জন্য কত আয়োজন উপকরণ ও চেষ্ট চরিত্রের দরকার হয়, আর 'আকবর’ বা সব অপেক্ষা বৃহত্তর যে আল্লাহ, তাকে পাওয়ার জন্য কোন প্রকার সাধনায় প্রবৃত্ত ন হইয়া, একটা অভিমত গঠন করিয়া লওয়া কি সঙ্গত হইতে পারে ? O ১৫৪ আল্লার প্রেম—নরপূজা :– আল্লার নিদর্শন সমূহের দ্বারা পরিবেষ্টিত হইয়া থাকা সত্তেও কতকগুলি লোক অঙ্গ ব্যক্তি বা বস্তুকে কার্য্যতঃ আল্লার শরিকরূপে গ্রহণ করে—অর্থাৎ যে প্রকার প্রেম আল্লাহকে করা উচিত, গয়রুল্লাহেকে সেই প্রকার প্রেম তাহারা করিয়া থাকে । ফলে গফুরুল্লার-প্রেম : যখন আল্লার প্রেমের উপর প্রবল হইয়া উঠে, তখনই মোছলেম, জীবনের অপচয় ঘটিয়া যায়ু । সেই জন্য বলা হইতেছে—মো'মেন যাহারা, আল্লার প্রেমই তাহীদের মধ্যে প্রবল হইয়া আছে। যে সত্যকার প্রেমিক, নিজের মুখস্বাচ্ছদ্য ও ইচ্ছা প্রভৃতিকে বিসর্জন দিয়া সে নিজকে সম্পূর্ণরূপে প্রেমাপদের ইচ্ছার অধীন করিয়া ফেলে এবং এই অধীনতাতেই সে পরমানন্দ লাভ করিয়া থাকে। দুনার এক ,একটা নিরুষ্ট ও অস্থায়ী প্রেমের আকর্ষণে মাতুৰ লোকলজ্জা, রাজদণ্ড, আত্মীয় স্বজন প্রভৃতিকে অতিক্রম করিয়া যায়, নিজের প্রাণকে পৰ্য্যন্তু বিপন্ন করিতে দ্বিধা বোধ করে না । অতএব আল্লার প্রেমে কতদূর তন্ময় হওয়া অবশ্যক, সেই মহান প্রেমাম্পদের হুজুরে কিরূপে নিজের সমস্ত ইচ্ছা ও সমস্ত’ বালনকে বিসর্জন দেওয়া উচিত, তাহা সহজেই বুঝিতে পারা যায় । কিন্তু একশ্রেণীর ভ্রাস্তমানব জারাহ অপেক্ষ গন্নুরুল্লার প্রেমকে নিজেদের বাস্তবজীবনে বড় করিয়া গ্রহণ করে । তাই । যেখানে যেখানে এই দুয়ের মধ্যে সংঘর্ষ উপস্থিত হয়, সেখানে তাহারা আল্লার প্রেমকে বিসর্জন দিয়া এবং গন্নার প্রেমকে সে আসনে বসাইবা দিয়া তাহার পূজা করে। এইটাই