পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/২৮৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


________________

২৩৪ কোরআন শরীফ [ দ্বিতীয় পারা ১৬০ জ্ঞানের সহিত খাদ্যের সম্বন্ধ : এবাদতের জন্য সত্যজ্ঞানের দরকার, উপরের কএকটী আয়তে এই কথা বুঝাইয়া দেওয়া হইয়াছে। সত্যজ্ঞান লাভের জন্য যে বিশুদ্ধ খাদ্য গ্রহণের আবশ্যক, আলােচ্য আয়তে সেই কথা স্মরণ করাইয়া দেওয়া হইতেছে। আয়তের শেষভাগে বলা হইতেছে যে, তােমরা যদি একমাত্র আল্লারই পূজক হও, তাহা হইলে একমাত্র তাহার নিকট কৃতজ্ঞ হইয়া থাকা তােমাদের পক্ষে একান্ত কত্তব্য।

১৬৯ হারাম চতুষ্টয়

যে খাদ্য বিশুদ্ধ নহে এবং যে খাদ্যের আয়ােজনের দ্বারা একমাত্র আল্লার প্রতি কৃতজ্ঞ হইয়া থাকার মনােভাব নষ্ট হইয়া যায়, এই আয়তে তাহার মধ্যকার প্রধান কএকটী বস্তুর বিশেষ করিয়া উল্লেখ করা হইতেছে। প্রথম তিনী হইতেছে মূলতঃ অশুদ্ধ খাদ্য, সুতরাং মানুষের পক্ষে তাহা সৰ্ব্ব অবস্থায় হারাম। চতুর্থ টী হইতেছে দ্বিতীয় শ্রেণীর অখাদ্যের একটা নজির।

যে জীবকে জবাই করা হয় না, আপনা আপনি মরিয়া যায়, মৃত বলিতে তাহাই বুঝাইতেছে। মাছ ও পঙ্কপাল এই আদেশ হইতে বর্জিত, হজরতের এক হাদিছ হইতে 'তাহার প্রমাণ পাওয়া যাইতেছে (বােখারী, মােছলেম প্রভৃতি)। যে মাছ পানিতে থাকার অবস্থায় আপনা আপনি মরিয়া যায়, এমাম আবুহানিফা প্রমুখ কতিপয় এমাম ও আলেমের মতে তাহা হারাম বা নিষিদ্ধ। এমাম মালেক, এমাম শাফেয়ী এবং অধিকাংশ আলেম ও এমামগণের মতে তাহা হালাল। ছুরা আআম এই ছুরার পূৰ্ব্বে অবতীর্ণ হইয়াছিল, তাহাতে ঠিক এই প্রসঙ্গে এw০ ৫১ বলা হইয়াছে (১৪৬)। সুতরাং রক্ত অর্থে কেবল সেই রক্তকে বুঝাইবে যাহা বহিয়া বাহির হয়, মাংসের সঙ্গে যে রক্ত লাগিয়া থাকে, তাহা হারাম নহে। মাংস বলিতে, মাংস চৰ্বি প্রভৃতি সমস্ত ভােজ্য অংশকে বুঝায়। এই ভাবে শূকর মাংসকে হারাম করা হইয়াছে। আল্লাহ ব্যতীত অন্য কোন বস্তু বা কল্পিত ঠাকুর দেবতা বা ভূত প্রেত প্রভৃতির নামে যে কোন বস্তুকে নজর, নায়াজ, ভােগ বা উৎসৰ্গরূপে নির্ধারিত করিয়া দেওয়া হয়, তাহা হারাম। এখানে শুধু পশুপক্ষী বলি বা উৎসর্গের অর্থ লইলে আয়তের ব্যাপক অর্থকে সীমাবদ্ধ করিয়া লওয়া হইবে। একদল মুছলমান’ মজার, দরগা, স্থান, নজর, হাজত ও নয়াজ বলিয়া স্পষ্ট বােৎপূজার যে কেন্দ্রগুলি গড়িয়া লইয়াছে—তাহাকে উপলক্ষ করিয়া যে সকল 'দ্য উৎসর্গ করা হয়, তাহাও নিশ্চিত হারাম। এই প্রকারে যে পশুপক্ষীকে আল্লাহ ব্যতীত অন্য কাহারও নামে জবাই করা হয়, সেই পশু পক্ষী আসলে হালাল হইলেও এই কারণে তাহার মাংস হারাম হইয়া যায়। ঠিক এইরূপ, কোন পশু পক্ষীকে আল্লাহ ব্যতীত অন্য