পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/২৯৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২য় ছুরা, ২২শ রুকু ] ब्मङ्वञ्श्डप्र'tङ्च घ्न्ल् &ं9 ՎԳՏ

  • F * * *్న శ్నా స్మా !

ব্যবস্থা নাই, স্বেচ্ছাক্রমে কেবল আল্লার প্রেমলাভের আশায় তাহাও সানন্দচিত্তে দান করিয়া, থাকে। আমরা LED . পদের অর্ধ করিয়াছি দাসত্ব মোচন বলিয়া। আভিধানিক হিসাবে উহার অর্থ মানুষের “গ্রীবাকে বন্ধনমুক্ত করা”—গর্দান খালাসি করা। ক্রীতদাস এবং যুদ্ধের বন্দীদিগকে মুক্ত করিয়া দিবার জন্য যে অর্থব্যয় করা হয়, এখানে তাহারই কথা বলা হইতেছে। শাহ আবদুল আজিজ ছাহেব বলিতেছেন—দুস্থ ঋণগ্রস্ত লোকদিগকে । মহাজনের নাগপাশ হইতে মুক্ত করিয়া দেওয়াও এই আয়ত অনুসারে কৰ্ত্তব্য বলিয়া নিৰ্দ্ধারিত হইতেছে। দ্বিতীয় দফায় পুণ্যকাৰ্য্য বলিয়া নামাজ ও জাকাতের উল্লেখ করা হইয়াছে। জাকাত হইতেছে বাধ্যতামূলক দান। নামাজ সম্বন্ধে ৬ টকা দ্রষ্টব্য। ফরজ জাকাত সম্বন্ধে চুরা তাওবায়ু বিস্তারিত আদেশ নাজেল হইয়াছে, সেখানে উহার ব্যাখ্য' দেওয়া হইবে । তৃতীয় দফায় প্রতিজ্ঞা-প্রতিশ্রুতি যথাযথভাবে পালন করাকে পুণ্যকৰ্ম্ম বলিয়া উল্লেখ করা হইয়াছে । চতুর্থ দফায় বিপদে আতাবে ও রণবিভীষিকায় ধৈর্য্যধারণ করার উল্লেখ করা হইতেছে। এই চরি দফার সাধনার সমষ্টি হইতেছে কোআনের নিদিষ্ট । সত্যকর পুণ্যকৰ্ম্ম । বড় দুঃখের বিষয়, মুছলমানের ইহার অধিকাংশ সাধনাকে আঙ্গ বিশ্বত হইয়া বসিয়াছে। এই আয়ত অনুসারে আমাদের দিনদারীর দাস্তিকতার মূল্য যে কতটুকু দাড়ায়, তাহ একবার ভাবিয়া দেখা উচিত। পূৰ্ব্ব রুকু’র শেষ আয়তগুলির সহিত একত্রে বিচার করিয়া দেখিলে যান। যাইবে যে, আল্লাহ তাহার কেতবে যে সব কার্য্যকে ধৰ্ম্মসাধনার লক্ষণ বলিয়া নিৰ্দ্ধারিত করিয়া দিয়াছেন, সেগুলির মধ্যে প্রভেদ ঘটাইয়া, অর্থাৎ দুই একটাকে আবশ্বকীয় বলিয়া গ্রহণ এবং অবশিষ্টগুলির প্রতি উপেক্ষা প্রদর্শন করিয়াই, মানুষ, নিজের ধৰ্ম্মজ্ঞানের অপচয় ঘটাইয়াছে। ১৬৬ নরহত্যার দণ্ড :– উপরে পুণ্যবান লোকদিগের লক্ষণগুলি বর্ণনা করা হইয়াছে। তাহাদিগের সামাজিক জীবন সাম্যবাদের যে উচ্চ আদর্শ অনুসারে গঠিত হইবে, এই আয়ুতে তাহার পরিচয় দেওয়া হইতেছে। সাধারণ নীতি (principle ) হিসাবে আয়তের প্রথমভাগে বলা হইতেছে যে, নরহত্যার জন্য অপরাধীর প্রাণদণ্ড করাই পুণাবান সমাজের কৰ্ত্তব্য হইবে। মূলে কেছাছ'শব্দ ব্যবহৃত হইয়াছে। আভিধানিক হিসাবে উহার অর্থ—অতুকরণ করা, ষে যেরূপ কাজ করে তাহার সহিত সেইরূপ কাজ করা (কবির, প্রভৃতি ) । অতএব হত্যকারীকে হত্য করার নামও কেছাছ। প্রাণহত্যার পরিবর্তে প্রাণদণ্ড–এই সাধারণ ব্যবস্থা প্রকাশ্ন করিয়া দিবার পর সে সম্বন্ধে দুইটী বিশেষ ব্যবস্থার উল্লেখ করা হইতেছে।– (ক) আরবে সাধারণ নিয়ম ছিল—কোন ভদ্র ও সন্ত্রান্ত লোক কোন নিয়শ্রেণীর লোক স্বারা নিহত হইলে, একজনের পরিবর্তে তাহীদের সমাজের বহু লোককে হত্য করা হইত। কোন দাস বা নারী, স্বাধীন লোককে হত্যা করিলে দাসের পরিবর্তে বেলন শ্বাধীন