পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/২৯৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২ধু ছুরা, ২২শ রুকু ] আছিন্নহে ২৭৩ 朝 এছলামের পূৰ্ব্বে আরবদিগের মধ্যে উত্তরাধিকার সম্বন্ধে যে নিয়ম প্রচলিত ছিল, তাহাতে মৃত্যুব্যক্তির পুত্ৰগণ অথবা তাহদের অবিদ্যমানে যুদ্ধক্ষম আত্মীয়গণ ব্যতীত আর কেহই কোন অংশ পাইত না । ইহাতে মৃত্যুব্যক্তির পিতা মাতা এবং অক্ষম ও স্ত্রীলোক আত্মীয়ুদিগের কষ্টের অবধি থাকিত না । মৃতব্যক্তির স্ত্রীকন্যা পিতামাতা প্রভৃতি স্বজনগণ এই ব্যবস্থার ফলে সম্পূর্ণ নিঃসহায় নিঃসম্বল অবস্থায় পথের ফকির হইয়া পড়িত, আর পুত্র বলিয়। অথবা যুদ্ধক্ষম বলিয়া দুই একজন মাত্র আত্মীয় তাহার সমস্ত ধনসম্পদের অধিকারী হইয়া বসিত। সঙ্গতভাবে ধনের নিস্কেন্দ্রীকরণই হইতেছে এছলামের অর্থ-নৈতিক ধারার ' মূলনীতি। এছলামের ফারাএজ বা উত্তরাধিকার আইনের সর্বত্র এই নীতির মহুসরণ করা হইয়াছে । ফারাএজ সংক্রান্ত ব্যবস্থাগুলিতে, কোন ওয়ারেছের কি প্রকার ও কিপরিমাণ স্বত্ত্বাধিকার, কোরআনে তাহা পরিস্কারভাবে বলিয়া দেওয়া হইয়াছে s ফারাএজ সংক্রান্ত । আয়তগুলি প্রকাশ হওয়ার পূৰ্ব্বে আলোচ্য আয়তটা নাজেল হয়। এই আয়ুতে বিশেষ তাকিদের সহিত আছিয়তের আদেশ দিয়া বলা হইতেছে—তোমাদের পরলোক গমনের পর তোমাদের যে সকল অবশ্য-প্রতিপাল্য আত্মীয় স্বজন, আরবের বর্তমান নিয়ম অনুসারে পথের ফফির হইয়া যাইবে—তহাদের জন্য একটা ব্যবস্থা করিয়া যাওয়া প্রত্যেক পবৃহেজগার ও পুণ্যার্থী মুছলমানের একান্ত কৰ্ত্তব্য । সেই প্রতিপাল্য আত্মীয় স্বজন কে বা কাহার। গহার বিচার করার ভার মুছলমানের বিবেকের উপর অর্পণ করা হইয়াছে-বটে, কিন্তু পিতামাতা সম্বন্ধে চিন্তা ও বিচারের কোন অবকাশ বা অবশ্যক নাই, এজন্য তাহীদের কথা আল্লাহ তা'আলাই বলিয়া দিতেছেন । অধিকাংশ আলেম ও তফছিরকারের মতে এই আয়তটা মনচুখ বা রহিত । কিন্তু কোন প্রমাণের দ্বারা আয়তী মনস্থখ হইয়াছে, ইহা সম্বন্ধে তাহাদের মধ্যে, যথেষ্ট মতভেদ দেখা যায়। এজন্য র্তাহারা বিভিন্ন দলে বিভক্ত হইয়া দুইটা আয়ত ও কএকটা হাদিছকে নছৰ বা রহিত হওয়ার প্রমাণরূপে উপস্থিত করিয়া থাকেন। আয়তটা সম্পূর্ণ কি আংশিকভাবে রহিত, সে সম্বন্ধেও তাহদের মধ্যে যথেষ্ট মতভেদ আছে। পক্ষান্তরে একদল আলেম ইহাকে মন্‌ছখ বলিয়া স্বীকার করেন নাই। অপর পক্ষের উপস্থাপিত যুক্তি প্রমাণগুলির অসঙ্গতি ও অসারতা প্রতিপন্ন করার জন্য ইহারাও চেষ্টার ক্রেট করেন নাই । আয়তটা যে মনস্থখ হয় নাই এই কথা প্রমাণ করার জন্য প্রথমতঃ বলা হইতেছে যে, “ফারাএজের যে আয়তদ্বারা এই আয়তকে মনচুখ বলা হইতেছে, তাহাতেও #w a. ریا" .. অর্থাৎ “অছিয়তের পরে” এই পদটা প্রত্যেক স্থানে উল্লেখ করা হইয়াছে। সুতরাং ফারএজের আয়তে ওয়ারেছদিগের অংশ নিৰ্দ্ধারণ হইয়া গিয়াছে—অতএব তাহদের প্রতি আর অছিত চলিতে পারে না-এরূপ কথা বলা সঙ্গত হইবে না। চুর মাদ ইহার অনেক, W❍ ☾ 暑 , Wo