পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৩০৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২য় চুরা, ২৩শ রুকু ] পরের ধনসম্পত্তি গ্রাসন করা ' جbہت بی বসিয়া একমনে আল্লার জেকুর-ফেকুর করা, তাহার ধ্যান ধারণায় তন্ময় হইয়া থাক, নিজের পাপপুঞ্জ স্মরণ করিয়া অতুতপ্তচিত্তে আল্লার নিকট ক্ষমাপ্রার্থনা করা—এতেকাফকারীর কৰ্ত্তব্য হইয়া থাকে । নিতান্ত আবশ্বকীয় ব্যক্তিগত কাজ ব্যতীত মছজিদের বাহিরে যাওয়৷ বা কাহার সঙ্গে কথা বলাও তাহার পক্ষে নিষিদ্ধ। হজরত রঙুলে করিম শেষজীবন পর্য্যও বরাবরই রমজানের শেষ দশদিন এতেকাফে বসিতেন ( বোখারী, মোছলেম ) । “কৃষ্ণতর সুত্র”-অর্থে রাত্রির অন্ধকার, “শুভ্রতর স্থত্র”-অর্থে উষার প্রথম আলোকরেখা। হজরত এই BB BBBB BBBB SBBBBS BBBBB BBBS BBB BBB BBB BBB BBBB S আরবী পরিভাষা অনুসারে উহার ভাবার্থ হইবে--রাত্রির অন্ধকারের মধ্য হইতে প্রভাতের শুভ্ৰ উষার প্রথম প্রকাশ ( তা জল-অরূহ )। মুছলমানরা ইঙ্গকে “ছে।ণতে ছাদেক" বলিয়া থাকেন । ১৭৫ পরের ধনসম্পত্তি গ্রাস করা ? — BBB BBBB BBBB BSBB BBB BBBS gBB BBBBg gB BBBB BB BBS BBB BB BBBB BBS BB BBBB BBBS BB BBBB SBBB BBBB BBB মনোরথ না হইলে শাসনকৰ্ত্তাদের আদালতে গিয়া মিথ্যা মামলা মোকদ্দমা আরম্ভ করিয়া দেয় এবং আদালতের সাহায্যে তাহা হস্তগত করিয়া লয় । আয়তে বলিয় দেওয়া হইতেছে যে, তোমরা যদি প্রকৃত পুণ্যার্থী হও, যদি সত্যকার দিন্দার পরহেজগার হওয়ার জন্য তোমাদের আগ্রহ থাকে, তাহা হইলে তোমাদিগকে এই মহাপাতক হইতে নিশ্চয়ু বারি ও থাকিতে হইবে । মাতুষ পরহেজগরীর ভেক করিয়া কত প্রকারে অহমিক তা প্রকাশ করে, অথচ হ্রাম খাইতে, হারাম পরিতে বা হারাম ধনসম্পত্তি গ্রাস করিতে দ্বিধা করে না । সে মুখে যতই আল্লাহ আল্লাহ করুক না কেন, তাহার এবাদং আল্লাহ কখনই গ্রহণ করেন না। হারাম দিয়া যে শরীর গঠিত হইয়াছে, আগুন ব্যতীত তাহার গত্যন্তর নাই । কাহারও এক বালেশ্বত (বিঘাত) জমি অপহরণ করিলেও কিয়ামতের দিন তাহ মাহুষের গলায় লা'নতের তওক হইয়া ঝুলিতে থাকিবে । আল্লার বিরুদ্ধে মানুষের যে সব অপরাধ, দয়াময় তিনি, ইচ্ছা করিলে তাহ মআফ করিতে পারেন । কিন্তু তাহার কোন বান্দার স্বত্বাধিকারে (হকুকুল-এবাদে ) কোন প্রকার বিঘ্ন ঘটায় যে, তাহাকে আল্লাহ কখনই মঅফ করিবেন না —যাবৎ সেই উৎপীড়িত ব্যক্তি নিজে মআফ না করিয়া দিবে। এই মর্শের উপদেশসমূহের দ্বারা বিখ্যাত হাদিছগ্রন্থগুলি পূর্ণ হইয়া আছে। (আয়তের অনুবাদে বন্ধনীর মধ্যে ক্ষে দুইটী শব্দ যোগ করিয়াছি, তাহার জন্য বায়জাভী প্রভৃতি দ্রষ্টব্য )।