পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৩১৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২র চুর ২৪৭ রুকু ] তাহাদিগকে নিহত কল্লিবে ख३.¥C من قاتل لتكون كلمة الله هى العليا فهر فى سجيل الله - অর্থাৎ—“আল্লার বাণী জয়যুক্ত হউক—একমাত্র এই উদ্দেশ্যে যুদ্ধ করে ষে, সেই কেবল আল্লার পথে” ( ফৎহুল বায়ান ) । ১৭৯ তাহাদিগকে . নিহত করিবে – আয়তের প্রথমভাগে বলা হইতেছে—“তাহাদিগকে যেখানে পাইবে, নিহত করিবে” । এখানে তাহাদিগকে-অর্থে, কাহাদিগকে ? একদল লেখক বলিতেছেন, এখানে তাহদিগকে অর্থে—বিধৰ্ম্মাদিগকে । অর্থাৎ তাহাদিগের মতে, মুছলমানগণ যেখানে কোন অমুছলমানকে পাইবে, সেখানে তাহাকে হত্যা করিয়া ফেলিবে—ইহাই হইতেছে এই আয়তের শিক্ষা । কিন্তু এছলামধৰ্ম্মের সমস্ত সামরিক অনুশাসন, হজরত মোহাম্মদ মোস্তফার জীবনের সমস্ত শিক্ষা এবং এছলামের সুদীর্ঘ ইতিহাস একবাক্যে বলিয়া দিতেছে যে, উহা কোবৃঅানের কদৰ্থও অন্যায় ব্যাখ্যা ব্যতীত আর কিছুই নহে। এ সমস্ত ছাড়িয়া কেবল আয়তের শব্দগুলির প্রতি লক্ষ্য করিলেও, আমরা ঐ প্রকার অর্থের অসঙ্গতি সহজে উপলব্ধি করিতে পারিব । § ১৯০ আয়তে বলা হইতেছে—তোমাদিগের সহিত যুদ্ধ করে যাহারা, তাহাদিগের সহিত তোমরাও যুদ্ধ করিবা’ । উহার অব্যবহিত পরে, এই আয়ুতে বলা হইতেছে— ‘তাহাদিগকে যেখানে পাইবে, নিহত করিবে' । সুতরাং এই ‘তাহাদিগকে অর্থে, মুছলমানদিগের সহিত যুদ্ধ করে যাহার, কেবল সেই অমুছলমানদিগকে বুঝাইতেছে । ইহারা আক্রমণ করার পর যখন যুদ্ধ আরম্ভ হইয়া যাইবে, তখন সেই আক্রমণকারী শক্রদিগকে যত্রতত্র হত্যা করা মুছলমানের পক্ষে অসঙ্গত হইবে না। কণ’বার চারিদিকে কএক স্থাইল ব্যাপিয়া একটী স্থান হরম’ বা নিষিদ্ধ স্থান বলিয়া নিৰ্দ্ধারিত আছে । উহার সীমানার মধ্যে বিশেষতঃ কা'বা গৃহের সন্নিধানে, কোন প্রকার যুদ্ধ বিগ্রহ, নরহত্য ও অশান্তি উপদ্রব ঘটাইবার অল্পমতি নাই। হজরত এবরাহিমের সময় হইতে আজ পর্য্যন্ত এই বিধি সমানভাবে চলিয়া আসিতেছে । হোদায়ুবিয়ার হজযাত্রার সময়, নিষিদ্ধ মাসের সন্ত্রমহানি করিয়া কোরেশগণ যেমন হজরতকে ও র্তাহার সহচরগণকে আক্রমণ করিতে প্রস্তুত হইয়াছিল, সেইরূপ কণ’বার ও তাহার হরমের মর্য্যাদাকে উপেক্ষা করিয়া ঐ নিষিদ্ধ সীমানার মধ্যে, বিশেষতঃ কা'বার নিকটে, তীর্থযাত্রী মুছলমানদিগকে আক্রমণ করিতেও তাহারা সঙ্কল্প করিয়াছিল। অথচ মুছলমানদিগের বংশগত সংস্কার এবং ধৰ্ম্মবিশ্বাস অনুসারে হরমের সীমানার মধ্যে নরহত্যা করা মহাপাপ। মুছলমানদিগের এই দুর্ভাবনা দূর করার জন্য বলিয়া দেওয়া হইতেছে যে, হরমের সীমায় সকল প্রকার শান্তিভঙ্গ নিষিদ্ধ করা হইয়াছে— তীর্থযাত্রীদিগকে নিৰ্ব্বিগ্ন ও নিরুদ্বেগ করার জন্য, যেন তাহারা সম্পূর্ণ শাস্তি ও স্বস্তির সহিত সেখানে আল্লার এবাদত বন্দেগীতে তন্ময় হইয়া থাকিতে পারে। সেই তীর্থযাত্রীদিগকে