পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৩১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২য় ছুরা, ২৪শ-রুকু ] علي - == "یمیایی ۶یین = * منگند به ای- اگر به ه ক্ৰেহে না-দিল *ふ午 ১৮১ ফেৎনা-দিন ঃ– “যে পর্য্যন্ত ফেৎনা রহিত হইয়া না যায় এবং ধৰ্ম্ম আল্লার জন্ত হইতে না পারে"সে পৰ্য্যন্ত বিধৰ্ম্মীদিগের সহিত যুদ্ধ করার আদেশ এই আয়তে দেওয়া হইয়াছে। একদল লোক বলিতেছেন, এখানে ফেৎনা শব্দের অর্থ কোফর ও শের্ক। অর্থাৎ যাবৎ কাফের ও মোশরেকগণ এছলাম গ্রহপূন করে, তাবৎ তাহাদিগের সহিত যুদ্ধ করার আদেশ এই আয়ুতে দেওয়া ` তোমাদের সহিত যুদ্ধ করে, তাহাদিগের সহিত তোমরাও যুদ্ধ কর”—“তাহারা যুদ্ধ হইতে বারিত হইলে, তোমরাও ক্ষান্ত হইবে, তাহীদের পূৰ্ব্ব অপরাধগুলি ক্ষম করিবে"9ইত্যাদি যে সব উদার ব্যবস্থ এই রুকূর পূর্ববর্ণিত আয়তগুলিতে উল্লিখিত হইয়াছে, ঐ শ্রেণীর লেখকদিগের মতে তাহ। এই আয়তদ্বারা রহিত বা মনচুখ হইয়া গিয়াছে। so W. আমাদের মতে এই অভিমতটা সৰ্ব্বতোভাবে অসঙ্গত । কোরআনের মৰ্ম্ম হজরত মোহাম্মদ মোস্তফা সকলের অপেক্ষা অধিক বুঝিতেন, এবং তাহার আদেশের বিপরীত কাজ করা তাহার পক্ষে সম্পূর্ণ অসম্ভব—এ কথা সকলেই স্বীকার করিবেন । এহুদী, পৌত্ত্বলিক প্রভৃতি জাতির সহিত হজরত রচুলে করিম কিন্তু বরাবরই সন্ধি করিয়াছেন—সকলকে BBBBBBB BBB BBB BBBB BBBBBS BBBBB S BB BBBBBBB BBBBBB BBS এই রুকু’তে বর্ণিত হইয়াছে, সে সময়ও তিনি মক্কার পৌত্তলিক কোরেশদিগের সহিত সন্ধি করিয়াছেন । রহমতুল-লিল-আলামীন যুদ্ধবিগ্রহ নিবারণের উদ্দেশ্যে এক্ষেত্রে কোরেশদিগের এমন অন্যায় শর্তগুলিও স্বীকার করিয়া লইয়াছেন—যাহাকে হজরত ওমর প্রমুখ ছাহাবাগণ মুছলমানের আত্মসম্মানের হানিকর বলিয়া ঘোর অসন্তোষ প্রকাশ করিয়াছিলেন । হজরতের জীবনের শেষ মুহূৰ্ত্ত পৰ্য্যন্ত এইরূপ ব্যবস্থা বরাবরই বলবৎ ছিল। হজরতের খলিফা চতুষ্ঠয়ের ইতিহাস এই উদার আদর্শে পরিপূর্ণ। বহু প্রদেশ ও লক্ষ লক্ষ অমুছলমান খেলাফতের মিত্র ও করদ ‘জিম্মি বলিয়া খলিফাগণ কর্তৃক স্বীকৃত হইয়াছে। মুছলমান না হওয়া পর্য্যন্ত তাহদের সহিত যুদ্ধ করা কৰ্ত্তব্য—একথা তাহারা কেহই বলেন নাই । ফেৎনা-শব্দের ধাতুগত ও ব্যবহারিক অর্থ পূৰ্ব্বে বর্ণিত হইয়াছে। কোফর ও শের্ক সম্বন্ধে উহার প্রয়োগের কোন প্রমাণ অপর পক্ষ প্রদান করেন নাই। কোরআনের সর্বত্রই উহ1,কঠোর পরীক্ষা, বিধৰ্ম্মীদিগের দ্বারা অন্তষ্ঠিত নিৰ্য্যাতন এবং ইহারই সমভাবাত্মক অর্থে ব্যবহৃত হইয়াছে। বোখারীর বর্ণিত হজরত এবনে-ওমরের একটা হাদিছে এই আয়তের ফেৎনা শব্দের তাৎপৰ্য্য স্পষ্টভাবে বর্ণিত হইয়াছে। এবনে-ওমর বলিতেছেন ঃ– فعلنا على عهد رسول الله صلعدم ركان الاسلام قليلاًر كان الرجل يفتان فى دينه ما قتلوهر إما عذبرة - حتى كثر الاسلام فلم تكن فتنة - o b ○切s W.