পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৩২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৬: ছুর ফাতেহা [ প্রথম পারা বর্ণিত হইয়াছে। মণিজীবনের উৎকর্ষ ও অপকৰ্ষ লাভের এবং জাতিগণের জীবন মরণের দুই দিককার দুই বিসদৃশু চিত্র পরিস্ফুট করিয়া দিয়া তাহার দ্বারা মানব সমাজকে সতর্ক করিয়া দেওয়া হইয়াছে। এক দিকে নবী, ছিদিক, শহীদ ও অন্যান্য সাধু সজ্জনগণের মঙ্গল ও মুক্তির পুণ্য আদশ,—অন্যদিকে অবিশ্বাসী অনাচারীদিগের সর্ব নাশের শোচনীয় আলেখ্য। ফাতেহার শেষ দুই আয়ুতে এই সকল শিক্ষার সারৎসাররূপে বলিয়া দেওয়া হইতেছে যে, আল্লার এবাদত ও সত্যের সেবাতেই মানুষের ব্যষ্টি ও সমষ্টি সমূহ আল্লার অনন্ত স্তামত ও আশীৰ্ব্বাদ ভাজন হই থাকে এবং আল্লাহ কে অস্বীকার করার ও অনাচারে লিপ্ত হওয়ার ফলে সে নিজেইষ্ঠাহার গজব বা দণ্ডকে নিজের উপর ডাকিয়া আনে। খৃষ্টান লেখকগণের ভ্রান্তি — 卤 কতিপর পৃষ্ঠান লেখক ছুর ফাতেহার তফছির প্রসঙ্গে কতকগুলি ভ্রান্ত ও ভিত্তিহীন মন্তব্য প্রকাশ করিয়াছেন । নিম্নে তৎসম্বন্ধে আলোচনা করিতেছি । রডওয়েলের অন্যায় উক্তি— পাদরী রডওয়েল (Rev.J. M. Rodwell) বিছমিল্লাহ সংক্রান্ত টীকায় লিখিয়াছেন – This formula-Bismillahi ”rrahmani rrahim—is of Jewelsh origin. st was in the first instance taught to the Koreish by Omayah of Taief the poet......who during his mercantile journeys...... had made himself acquainted with the sacred books and doctrines of Jews and Christians. (Kitab-al-Aghani : 16, Delhi). Muhammad adopted and constantly used it. این دیه" এই মস্তব্যের সার মৰ্ম্ম এই যে, “তfএফের কবি ওমাইয়া সৰ্ব্ব প্রথমে কোরেশদিগকে বিছমিল্লাহির-রহমানিল-রহিম পদটা শিখাইয়া দিয়াছিল। ওমাইয়া বাণিজ্য ব্যপদেশে খৃষ্টানদিগের ধৰ্ম্ম পুস্তক ও ধৰ্ম্ম বিশ্বাসাদির সহিত পরিচিত হইয়াছিল। ফলে এই পদটী মূলতঃ এহুদীদিগের নিকট হইতে গৃহীত। (দিল্লীর মুদ্রিত কেতাবুল আগনী’ পুস্তকের ১৬শ খণ্ডে ইহা বর্ণিত হইয়াছে) । মোহাম্মদ উহ, গ্রহণ এবং নিয়ত উহার ব্যবহার করিতে থাকেন ” [The Koran—SS 呜h | ] নিজের দাবী সপ্রমাণ করার জন্য রডওয়েল সাহেবের প্রথমে দেখান উচিৎ ছিল যে, কবি উমাইয়া এহুদী ও খৃষ্টানদিগের ধৰ্ম্ম শাস্ত্র ও ধৰ্ম্ম বিশ্বাসাদির সহিত পরিচিত হইয়াছিল। তাহার পর এহুদী ও খৃষ্টানদিগের ধৰ্ম্ম শাস্ত্রাদির বচন উদ্ধত করিয়া সঙ্গে সঙ্গে ইহাও দেখান উচিৎ ছিল যে, ঐ সকল শাস্ত্রের অমুক অমুক স্থানে বিছমিল্লাহির-রহমানির-রহিম বা তাহার

  • দুইটা আয়তে ভাষার তারতম্য বিশেষভাবে লক্ষা করার বিষয়। এনআম সম্বন্ধে বলা হইয়াছে— সুহাদিগুৰু প্রতি আল্লাহ ‘এনআম’ করিয়াছেন।” আর ‘গজধ’ সম্বন্ধে বলা হইতেছে-যাহারা অভিশপ্ত f wo Ş. 2 I

হ”য়াছে । ایپی=