পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৩৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


!কোরআন শরীফ [ প্রথম পার براذ পুস্তকে পাদ্রী সত্ত্বেরে উক্তির কোন সমর্থনই পাওয়া যায় না। প্রমাণ স্বরূপে আমরা "নাগানী"র বিবরণটা নিয়ে অবিকল উদ্ধৃত করিয়া দিতেছি – ر يقال ان امية قوم على إهل مكة باسمكف اللهم فجعلرها فی ارل کتابهم مکان 粵 : - بسم الله الرحمن الرحيم - کتاب الاغانی مصری با ۴ صری ۸۰ ا অর্থাৎ—“কথিত হইয়া থাকে, উমাইয়া মক্কাবাসীদিগকে বে-এছমেক অল্পহুম্মা’ এই পদটী শিক্ষা দিয়াছিল। তাহারা তখন হইতে বিছমিল্লাহির রহমানির রহিম’ পদের স্থলে নিজেদের পত্রাদির প্রারম্ভে ঐ কথাগুলি ব্যবহার করিতে আরম্ভ করিল।” ( ৪—১৮০ পৃষ্ঠা ) । “আগানী’র এই বিবরণটা যে একেবারে ভিত্তিহীন, তাহ আমরা পরে দেখাইব। এখানে আমাদিগের বক্তব্য এই যে, এই বিবরণকে বিশ্বস্ত বলিয়া ধরিয়া লইলেও, ইহা দ্বার প্রমাণিত হইতেছে যে, উমাইয়া মক্কাবাসীকে “বিছমিল্লাহির রহমানির রহিম” শিক্ষা দেয় নাই, বরং সে শিখাইয়াছিল—“বে-এছমেকা আল্লাহুম্মা”—এই পদটা । তাহার পর আলোচ্য বিবরণ হইতে ইহাও প্রতিপন্ন হইতেছে যে, উমাইয়ার শিক্ষা দানের পূৰ্ব্বে "বিছমিল্লাহির রহমানির রহিম” পদের ব্যবহার মক্কাবাসীর মধ্যে যথেষ্টরূপে প্রচলিত ছিল । সুতরাং উমাইয়া ঐ পদটা মক্কাবাসীদিগকে শিক্ষা দিয়াছিল,-এ দাবীর ও কোন সার্থকতা নাই। এই বিবরণের ভিত্তিহীনতা — (ক) "অগিনীর” গ্রন্থকার এই বিবরণের পুৰ্ব্বে Jএ, ক্রিয়াপদ ব্যবহার করিয়াছেন। ইহার শাব্দিক অতুবাদ —“কথিত হয়।” কোন দুৰ্ব্বল অবিশ্বস্ত ও ভিত্তিহীন বর্ণনা প্রসঙ্গে এই প্রকার ‘মজহুলের ছেগা বা Passive Verb ব্যবহার করা হইয় থাকে । ইহা অরবী সাহিত্যের একট। সৰ্ব্বজন বিদিত সাধারণ ধার। সুতরাং আমরা দেখিতেছি যে, “অগিনী” রচয়িত নিঃজই এই বর্ণনাটকে দুৰ্ব্বল ও অবিশ্বস্ত বলিয়। ধারণা করিয়াছেন। অতএব “আগনী’র বরাত দিয়৷ এই বিবরণকে প্রমাণ স্থলে উপস্থাপিত করা যে কতদূর অন্যায় তাহ অীর কাহাকেও বলিয়া দিতে হইবে না । *_ (খ) কোরআনের ফোর্কান ছুরায় বর্ণিত হইয়াছে ঃ ر أذا قيل لهم سجدرا للرحمن قالوا مالرحمن ! . অর্থাৎ—“এবং তাহাদিগকে যখন বলা হয় যে, তোমরা রহমানের সন্নিধানে ছেজদা কর, তাহারা বলিয়৷ উঠে—“রহমান' আবার কি ?” মিঃ পার্মার (Mr. Palmer ) তাহার অনুবাদের ভূমিকায় ছুরা ফোর্কশনের সার সঙ্কলন প্রসঙ্গে এই vartą 5 Haz R fiftz EggR 2–The Quraish object to the “Merciful’ as a new God. অর্থাৎ—“কোরেশগণ রহমান নামে আপত্তি করিয়া বলিল—ইহাত মুতন খোদা।" সুতরাং আমরা দেখিতেছি যে, চুরা ফোর্কনের এই আযতটা প্রকাশিত "হওয়ার সময় পৰ্য্যন্তও রহমান শব্দটা কোরেশদিগের নিকট সম্পূর্ণ অজ্ঞাত ও অপরিচিত