পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৩৬৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২ধু ছুরা, ২৮শ রুকু ] পুরুষের প্রাধান্য లgల -তে অধিকারী, কোন অবস্থায় স্বামী স্ত্রীর প্রতি অন্যায় অত্যাচার করিলে, তালাক হুলস্থ করিয়া লওয়ার অধিকারও সেইরূপ স্ত্রীর আছে। কোআনে ও হাদিছে খুব স্পষ্টভাষায় স্ত্রীদিগের এই অধিকার স্বীকার করা হইয়াছে। পাঠকগণ এই ছুরায় এবং ংল, নেছা ও চুর। তালাকে ইহার বিস্তারিত আলোচনা দেখিতে পাইবেন । ২২৬ পুরুষের প্রাধান্ত — চুৱা নেছার ৩৪ আয়তে পুরুষকে নারীর , প্রধানরক্ষক ও অবলম্বন বলা হইয়াছে। নাকে সে সকল আপদ বিপদ হইতে রক্ষা করিবে, নিজে উপার্জন করিয়া তাহার . ভরণপোষণ করিবে, এইরূপ উপকরণ দিয়াই আল্লাহ পুরুষকে স্বষ্টি করিয়াছেন । পুরুষের এই প্রকৃতিদত্ত রক্ষক ও অভিভাবক স্বরূপই তাহার প্রাধান্তের কারণ। এ অবস্থায় এই প্রাধান্তের জন্য নারীর প্রতি তাহার কৰ্ত্তব্য বহুপরিমাণে বাড়িয়া যাইতেছে । আয়তে এই কথা বুঝান হইতেছে যে, স্বামী ও স্ত্রীর পরস্পরের প্রতি পরস্পরের কৰ্ত্তব্য আছে - ইহা ঠিক . কিন্তু স্বামীর প্রতি স্ত্রীপ সতটা কৰ্ত্তব্য, স্ত্রীর প্রতি স্বামীর কৰ্ত্তব্য তাহ অপেক্ষ অনেক অধিক । কারণ আল্লাহ তাআলা তাহাকে নারীর রক্ষক ও অভিভাবকের উপাদান দিয়া হজন করিয়াছেন । স্ত্রীর তুলনায় পুরুষের যে প্রাধান্তের কথা বর্ণিত হইয়াছে, তাহার প্রকৃত তাৎপৰ্য্য ইহাই । দুঃখের বিষয় এই তাৎপর্য্যের প্রতি লক্ষ্য না রাখিয়া অনেকে এই অধ:তর বিকৃত অর্থ গ্রহণ করেন—স্ত্রীকে স্বামীর যথেচ্ছাচারের উপকরণ বলিয়া মনে কপিয়া থাকেন । 源